মঙ্গলবার, ২৫ এপ্রি ২০১৭ ০৮:০৪ ঘণ্টা

কওমী সনদের স্বীকৃতি কৃতিত্ব কার?

Share Button

কওমী সনদের স্বীকৃতি কৃতিত্ব কার?

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : কওমী সনদের স্বীকৃতির বিষয়টি এই সময়ের সবচাইতে বহুল আলোচিত। রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে তৃণমুল পর্যায়ে চলছে কওমী আলোচনা। গণভবন থেকে শুরুকরে টেলিভিশনের পর্দা,পত্রিকার পাতা থেকে নিয়ে ডান-বাম বুদ্ধিজীবী মহল থেকে রাজনৈতিক সভাসমাবেশেও একই প্রসঙ্গ।  কারণ গণভবনে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি ঘোষণা!
গত ১১ এপ্রিল ২০১৭ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশের শীর্ষস্থানীয় আলেম-উলামার সঙ্গে এক ঐতিহাসিক বৈঠকে মিলিত হন। আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে ৬টি কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের প্রায় তিনশত প্রতিনিধির উপস্থিতিতে ওই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী কওমী মাদ্রাসা বিষয়ে তাঁর গুত্বত্বপূর্ণ অভিমত ব্যক্ত করেছেন। গণভবনের এই বৈঠকে দারুল উলুম দেওবন্দের আট মূলনীতির ওপর ভিত্তি করে দাওরায়ে হাদীসকে রাষ্ট্রীয়ভাবে (ইসলামিক স্টাডিজ এবং এরাবিকে এমএ ) মাস্টার্স সমমানের ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। ঐতিহাসিক সত্যউচ্চারণে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন। যে কথাগুলো তিনি বলেছেন, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি কথা হলো: এক. বাংলাদেশে (তথা উপমহাদেশে) শিক্ষার সূচনা হয়েছে কওমী মাদ্রাসার মাধ্যমে। এটা যদি শুরুনা হতো, তাহলে আমরা কেউ শিক্ষিত হতে পারতাম না। দুই. ভারতবর্ষে স্বাধীনতার সূত্রপাত উলামায়ে দেওবন্দের আন্দোলনের মাধ্যমে। তিন. বাংলাদেশে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা দেওয়া হয় কওমী মাদ্রাসাগুলোতে।
কওমী মাদ্রাসা নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ মূল্যায়নের তাৎপর্য অনুধাবন করতে হলে আমাদের ফিরে যেতে হবে ইতিহাসের দিকে। প্রধানমন্ত্রী ওই বৈঠকে আরো বলেছেন, ‘যাঁরা দেওবন্দ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে তাঁদের বিরাট ভূমিকা ছিল। তাঁরাই প্রথম ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন শুরু করেন। কাজেই আজকে যে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি, সেখানে তাঁদের অনেক ভূমিকা রয়েছে। কারণ সেই ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন থেকেই এই যাত্রা শুরু হয়। ’ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ কথার সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করে আমরা বলতে চাই, শুধু ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনই নয়, ব্রিটিশ-পরবর্তী আমলেও আলেমসমাজ স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে কাজ করে গেছেন। ১৯৪৭ সালের পাকিস্তান আন্দোলনে দেওবন্দি আলেমদের একটি দল অংশগ্রহণ করেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে আলেম সমাজের অবদানের বিষয়ে ‘আলেম মুক্তিযোদ্ধার খোঁজে’ নামের বইটি পড়লে অজানা তথ্য পাওয়া যাবে। কওমী মাদ্রাসা বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ অভিমত দিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কওমী মাদ্রাসার ঐতিহ্য ও অবদানের ঐতিহাসিক স্বীকৃতি দিয়েছেন। একইভাবে তিনি কওমী মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতি দিয়ে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন। বলা যায়, উপমহাদেশের সুপ্রাচীন এ শিক্ষাব্যবস্থার ইতিহাসের পাতায় তিনি তাঁর নাম যুক্ত করে দিয়েছেন।

আমরা দৃঢ়তার সাথে বলতে চাই বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণাই যথেষ্ট নয়। কারণ এমন ঘোষণা অতীতেও এসেছিলো। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া এক কন্ফারেন্সে কওমী সনদের স্বীকৃতির ঘোষণা দিয়েছিলেন। ২৯ আগস্ট ২০০৬ সালে একটি প্রজ্ঞাপনও জারি করেছিলো শিক্ষামন্ত্রনালয়। কিন্তু সেই অতীতের ঘোষণা বাস্তবায়ন না করে নতুন করে আবার ঘোষণা কেনো?  বিএনপি সরকার তা আইনে পরিনত করেনি কেনো ?  প্রায় ২০ লাখ কওমী আলেম আজ ্এসব প্রশ্নের জবাব জানতে চায়। অনেকেই আজ স্বীকৃতির কৃতিত্ব নিতে চাচ্ছেন,কেউ কেউ সংর্বধনায় ব্যস্থ। আমরা চাইনা ’স্বীকৃতি’র গ্যারাকলে বা নোংরা রাজনীতির কবলে পড়–ক কওমী আলেম সমাজ। এখনো যাদের প্রতি সাধারণ জনগনের আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে র্পূণমাত্রায়, সেই জায়গাটুকু অবশিষ্ট থাকবেতো ?
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণাটি অবশ্য  কোটি শিক্ষার্থীর হৃদয়ে আনন্দ দিয়েছে। তবে এ আনন্দের পূর্ণতা পাবে যখন কওমী মাদ্রাসার এ স্বীকৃতি মন্ত্রিপরিষদে অনুমোদিত হয়ে সংসদে আইন পাস হয়ে আসবে।
প্রাপ্ততথ্য মতে, কওমী মাদ্রাসা শিক্ষা সনদের সরকারী স্বীকৃতির জন্য ১৯৯০ সাল থেকে দাবী আদায়ের জন্য বিভিন্ন মহল মাঠে নামে। আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তালিম বাংলাদেশের ৩ সেপ্টেম্বর ২০০৩ ঈসায়ী বোর্ডের সোবহানীঘাটস্থ কার্যালয়ে কওমী মাদ্রাসার শিক্ষার স্বীকৃতি সম্পর্কিত বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। মাওলানা ফখরুদ্দীন শায়খে গলমুকাপনীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় কওমী মাদ্রাসা শিক্ষাকে সরকারের পক্ষ থেকে বিনা শর্তে যদি স্বীকৃতি নেয়া যায়, তবে আজকের সভা এ ধরনের স্বীকৃতি আদায় করার পক্ষে সমর্থন জ্ঞাপন করে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ২০০৪ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর এদারার উদ্যোগে কওমী মাদ্রাসা সমূহের দাওরায়ে হাদীসের সনদের স্বীকৃতি লাভের ব্যাপারে আলোচনার জন্য “পূর্ব সিলেট আযাদ দ্বীনি আরবী কওমী মাদ্রাসা বোর্ড ও হবিগঞ্জ কওমী মাদ্রাসা বোর্ড” এর সমন্বয়ে এক পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (রঃ)। সভায় স্বীকৃতি আদায়ের ক্ষেত্রে হাটহাজারী মাদ্রাসার মুহতামীম মাওলানা আহমদ শফী সহ দেশের বিশিষ্ট বুযুর্গদের সাথে মতবিনিময় করে বেফাকের সাথে অন্তর্ভুক্ত না হয়ে সনদের স্বীকৃতির ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। (সূত্রঃ এদারার মজলিসে শুরায় গৃহীত ও অনুমোদিত সিদ্ধান্ত সমূহ, পুস্তক)।
স্বীকৃতি বাস্তবায়নে সিলেটে সমাবেশ:
দাওরায়ে হাদীস সনদের স্বীকৃতি বাস্তবায়নের দাবীতে ৩১ আগস্ট ২০০৬ সিলেট সিটি পয়েন্টে আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তালীম বাংলাদেশ এর অধিনে এক মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ‘এদারার মাধ্যমে স্বীকৃতি’ বাস্তবায়নের দাবীতে আয়োজিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন- বোর্ডের নির্বাহী সভাপতি মাওলানা আব্দুল হান্নান শায়খে পাগলা। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- শায়খুল হাদীস তফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- জাতীয় সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী এম,পি। মাওলানা এনামুল হক ও মাওলানা ফয়জুল হাসান খাদিমানীর যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বোর্ডের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাওলানা জিয়া উদ্দীন, স্বীকৃতি বাস্তবায়ত কমিটির সমন্বয়কারী মাওলানা আব্দুল বাছিত বরকতপুরী। মাওলানা মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরীর কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু  হওয়া সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- এ্যাডভোকেট মাওলানা আব্দুর রকীব, শায়খুল হাদীস মাওলানা মুহিবুল হক গাছবাড়ী, মাওলানা আব্দুল হান্নান দরগাহ, মাওলানা সিকন্দর আলী, শায়খুল হাদীস মাওলানা নাজির হোসাইন, মাওলানা আব্দুল হান্নান গনেশপুর, মাওলানা ফখরুল ইসলাম খান, শায়খ মাওলানা হাফিজ মুহসিন আহমদ, মাওলানা মুশাহিদ দয়ামীরী, মাওলানা আব্দুল মুমিন, মাওলানা মুশ্তাক আহমদ ছিরামপুর, মাওলানা আব্দুল মতীন, মাওলানা ইউছুফ খাদিমানী, মাওলানা ওয়ারিস উদ্দীন হাসনাবাদ, মাওলানা হাজী ইমদাদুল্লাহ, মাওলানা গিয়াস উদ্দীন, মাওলানা আং ছালাম রশীদী, মাওলানা মাহাবুব রব্বানী, মাওলানা আব্দুল মালিক কাসিমী, মাওলানা আতাউর রহমান, মাওলানা আশরাফ আলী মিয়াজানী, মাওলানা তৈয়বুর রহমান চৌধুরী, মাওলানা সৈয়দ ফখরুল ইসলাম, মাওলানা আফসার উদ্দীন, মাওলানা আ,হ,ম, ফখরুদ্দীন, মাওলানা আনওয়ারুল ইসলাম, মাওলানা খলীলুর রহমান, মাওলানা শাহ মাশুকুর রশীদ, মাওলানা আব্দুল গফফার ছয়ঘরী, মাওলানা মুহিবুর রহমান, মাওলানা শাব্বীর আহমদ বিশ্বনাথী, মাওলানা হাফিজ আব্দুল গফফার, মাওলানা আব্দুশ শাকুর প্রমুখ। (সূত্রঃ দৈনিকে সিলেটের ডাক-০১/০৯/০৬ইং)

সাবেক প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা :
৭ জুলাই ২০০৬ ঈসায়ী জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনে তৎকালীন এমপি  এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী তার বাজেট বক্তৃতায় কওমী সনদের স্বীকৃতির ব্যাপারে জ্বালাময়ী ভাষণ প্রদান করে আলোড়ন সৃষ্টি করেন। বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া (বাংলাদেশ কওমী মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড), বেফাক, আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তালিম বাংলাদেশ সহ দেশের প্রায় ৩০টি আঞ্চলিক বোর্ড, ইসলামী ব্যক্তিবর্গের প্রাণের এ দাবীÑ বাস্তবায়নের জন্য তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলেন। শায়খ হাদীস আল্লামা আজিজুল হক,মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (র) রাজপথে র্দীঘ আন্দোলনের ফলে ২০০৬ সালের ২১ আগষ্ট রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স সেন্টারে (আ.সি.সি) তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া দেশের শীর্ষ পর্যায়ের আলেম উলামা ও মাদরাসা প্রতিনিধিদের এক বিশাল সম্মেলনে দাওরায়ে হাদীস বিভাগের সনদেক আরবী ও ইসলামী স্টাডিজ বিভাগের øাতকোত্তর (মাস্টার্সের সমমান) দেয়ার ঘোষণা করেন। এ সময় শিক্ষামন্ত্রী ড. ওসমান ফারুক, শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আ.ন.ম. এহছানুল হক মিলন, আল্লামা আহমদ শফি, মুফতি মাওলানা আবদুর রহমান, মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, মুফতি ফজলুল হক আমিনী এমপি, মুফতি মাওলানা মোহাম্মদ ওয়াক্কাস এমপি, মাওলানা নূর হোসেন কাসেমী, মুফতি শহীদুল ইসলাম এমপি, এদারার সমন্বয়কারী মাওলানা আব্দুল বাছিত বরকতপুরী, এডভোকেট আবদুর রকিব, মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী, মাওলানা আবদুল হালিম বোখারি, মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক, মাওলানা আতাউর রহমান খানসহ দেশের প্রায় আট শতাধিক বিশিষ্ট আলেম ও চিন্তাবিদগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

কওমী কি?
শব্দটি পুরাতন হলেও আমাদের গণমাধ্যমে ‘কওমী’ শব্দটি সাম্প্রতিক সময়ে
এক নতুন ‘শক্তি’ হিসেবেই আলোচিত হচ্ছে। “কওম” মানে জাতি আর “মাদরাসা“ মানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সুতরাং কওমী মাদরাসার অর্থ হচ্ছে জাতীয় ইসলামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কওমী মাদরাসা শব্দদ্বয় আসলে সরকারী মাদ্রাসার বিপরীতে ব্যবহৃত হয়। উপমহাদেশে ১৮৬৬ সালে ভারতের সাহরানপুরস্ত দেওবন্দ নামক স্থানে প্রতিষ্ঠিত দারুল উলুম দেওবন্দ মাদরাসার অনুকূলে প্রতিষ্ঠিত সত্যিকার দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহকেই কওমী মাদরাসা বলা হয়। এ প্রতিষ্ঠান সমূহ যেহেতু সরকারী সাহায্য সহযোগিতা ও হস্তক্ষেপ ব্যতিরেকে জনসাধারণের অর্থায়নে স্বাধীনভাবে পরিচালিত হয় সেজন্য ও
এগুলোকে কওমী মাদরাসা বলা হয়। এর গোড়া পত্তনের প্রেক্ষাপট অনেক বিস্তুত,তাই সে দিকে না গিয়ে সংক্ষিপ্ত ইতিবৃত্ত হলো: বাণিজ্যের নাম নিয়ে দখলকারী ফিরিঙ্গি ব্রিটিশরা আস্তে আস্তে ভারতের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ে এবং শত বছরের মধ্যেই অর্থাৎ ১৭০০ সালের মধ্যে ভারতের চারটি প্রদেশের গভর্ণর জেনারেল নিযুক্ত হয়ে যায় চারজন ইংরেজ। সুচতুর ইংরেজদের আগ্রাসী মনোভাব বুঝতে পেরে এদেরকে প্রতিহত করার  জন্য এগিয়ে আসেন নবাব সিরাজ উদ্দৌলা। ১৭৫৭ সালে নবাব সিরাজ উদ্দৌলা পলাশীর আম্রকাননে ইংরেজদের সাথে তুমুল যুদ্ধে লিপ্ত হন। কিন্তু ঊর্মিচাদ, রায়ভল্লব, মীরজাফর (শিয়া) ও মীর কাসিম (শিয়া) নামীয় বিশ্বাসঘাতকদের বিশ্বাসঘাতকতার ফলে তিনি শহীদ হয়ে যান এবং পরবর্তীতে দেশের শাসন ক্ষমতা সম্পূর্ণরূপে চলে ইংরেজদের হাতে। নবাবের শাহাদতের পর মুসলিম মনীষী ফতেহ আলী ও টিপু সুলতান এগিয়ে আসেন এদেরকে প্রতিহত করতে। কিন্তু তারাও টিকিয়ে উঠতে পারেননি। ১৭৯৯ সালে টিপু সুলতানও শহীদ হয়ে যান। টিপু সুলতানের শাহাদতের পর ইংরেজরা ভারতে তাদেরকে নিরাপদ মনে করে। লর্ড হেরিস নামে এক ইংরেজ নেতা টিপু সুলতানের শাহাদতের পর উৎফুল্লচিত্তে বলছিল, ‘আজ ছে হিন্দুস্তান হামারা হায়’ অর্থাৎ আজ থেকে হিন্দুস্তান আমাদের। সে সময় তদানীন্তন ভারতের সর্বশ্রেষ্ঠ আলিম, চিন্তাবিদ, মনীষী ও রাজনীতিবিদ হযরত মাওলানা শাহ আব্দুল আযীয মুহাদ্দিসে দেহলবী রাহ. তার পিতা বিশ্ববিখ্যাত আলিম ও রাজনীতিবিদ হযরত মাওলানা শাহ ওয়ালীউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলবী রাহ. কর্তৃক স্থাপিত মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস পদে কাজ করছিলেন। ইংরেজদের এহেন কার্যকলাপ নিরীক্ষণ করে ১৮০৬ সালে ইংরেজ অধিকৃত ভারতকে ‘দারুল হরব’ বলে ফতোয়া দিয়ে ইংরেজদের বিরুদ্ধে জিহাদ করার আহ্বান জানান। তাঁর সে ফতোয়াটি তাঁর লিখিত “ফতওয়ায়ে আজিজিয়া” তে অদ্যাবদি স্পষ্ট ভাষায় লিপিবব্ধ রয়েছে। অপরদিকে তারই নিকট থেকে শিক্ষা-দীক্ষা প্রাপ্ত মুজাহিদে মিল্লাত হযরত সায়্যিদ আহম্মদ রায় বেরেলভী মুজাহিদ বাহিনী তৈরী করে ইংরেজদের বিরুদ্ধে সশস্ত্র জিহাদ শুরু করেন। ১৮২৬ খৃস্টাব্দের শেষের দিকে সৈয়দ সাহেব মুজাহিদ বাহিনী সহ রাজপুতনার দিকে রওয়ানা হন এবং সীমান্তের ওজিরিস্থান, সুয়াত ইত্যাদি এলাকায় পাঠানগণের সঙ্গে মিলিত হয়ে একটি ছোট খাটো আর্দশ ইসলামি রাজ্য স্থাপন করেন।
সৈয়দ সাহেব বালাকুটের রণাঙ্গনে ১৮৩১ খৃস্টাব্দে তার সহকর্মী শিষ্য প্রখ্যাত আলেম ও ইসলামি চিন্তাবিদ হযরত মাও. ইসমাঈল শহীদসহ শাহাদত বরণ করেন। সিপাহী জনতার নেতৃত্বদানকারী দিল্লির সম্রাট বাহাদুর শাহ জাফরকে দেশান্তরিত করা হয়। শত শত আলেমকে মাল্টা ও আন্দামান দীপপুঞ্জে নির্বাসন দেওয়া হয়। ১৮৫৭ সালের ১৮ই নভেম্বর দিল্লি জামে মসজিদ চত্বরে ২৭ হাজার মুসলমানকে হত্যা করা হয়। ১৮৫৮ থেকে ১৮৬০ থেকে সাল পর্যন্ত এ তিন বছরে ১৪ হাজার নেতৃস্থানীয় উলামায়ে কেরামদেরকে ফাঁসিকাষ্টে ঝুলানো হয়। গাছের ডালে ডালে উলামাদের লাশ ঝুলানো হয়েছিল। ১৮৬১ সালে তিন লক্ষ কোরআনের কপি দিল্লির রাজপথে জ্বালিয়ে ভস্ম করা হয়। দিল্লির মাদরাায়ে রহীমিয়াকে বুলডেজার দিয়ে ভেঙ্গে চুরমার করে দেয়া হয়। শত শত আলেমকে জ্বলন্ত চুলায় জ্বালিয়ে ছাঁই করে দেয়া হয়। এক বর্ণনা মতে লাহোরের রাভি নদীতে প্রত্যহ ৮০ জন আলিম কে ডুবিয়ে মারা হতো। ডব্লিউ ডব্লিউ হান্টার লিখেছেন, আমি আশ্চর্য হয়ে গেলাম এ সংবাদ শুনে যে ৪০ জন আলেমের এক এক গ্রুপকে চুলায় জ্বালানোর সময় এক গ্রুপকে অগ্নিতে ফেলে দিয়ে অন্য গ্রুপকে তা দেখিয়ে বলা হতো, এখনো তোমরা যদি ইসলামকে না ছেড়ে ইংরেজ শাসনকে কবুল না করো তা হলে তোমাদের এ দশা হবে। কিন্তু ঐ গ্রুপ তাদের ধর্মের জন্য হাসিমুখে অগ্নিতে জ্বলতে রাজি হয়ে লাফিয়ে লাফিয়ে অগ্নিকু-তে ঝাপিয়ে পড়তো। মসজিদ-মাদ্রাসাগুলো চূর্ণ-বিচূর্ণ করে মাটির সাথে মিশিয়ে দেওয়া হলো। আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী (র.) সিলেটি লিখেছিলেন “১৮৫৭ খ্রিস্টাব্দের জঙ্গে আজাদীর পূর্বে ও পরে ইংরেজ জাতি ভারতীয় মুসলমানদের উপর যে অমানুষিক অত্যাচার
চালিয়েছিল তা লিখার জন্য কলমের কালি নয় বরং হৃদয়ের রক্তের আবশ্যক”।
এদিকে, ১৮৫৭ সালের সম্মুখ সমরে পরাজয়ের পর উলামায়ে কেরাম সম্মুখযুদ্ধে ব্রিটিশদের বিরোধিতা পরিহার করে মুসলমানদের ঈমান আক্বিদা সংরক্ষণে ব্রতি হন। ঐতিহাসিক শামেলী যুদ্ধের বীর সিপাহসালার হুজ্জাতুল ইসলাম আল্লামা কাসিম নানুতভী ব্রিটিশদের গোলামী থেকে উম্মার চিরমুক্তি এবং ঈমান আক্বিদা ও ইসলামি তমদ্দুন রক্ষা কল্পে ইসলামি বিদ্যাপীঠ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বিকল্প পথ খুঁজতে থাকেন। তিনি জাতির উদ্দেশ্যে বলেছিলেন, “রাজত্ব তো গিয়েছে, এখন মুসলমানদের ঈমান ও আক্বিদা সংরক্ষণ করা হোক। আর সে লক্ষ্যে ওয়ালিউল্লাহী আন্দোলনকে পুনরুজ্জীবিত করার মানসে যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যক্তি গঠন, দ্বীনি শিক্ষার বিকাশ ও ইসলামি সভ্যতা-সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে তিনি (আল্লামা কাসিম নানুতভী) ১২৮৩ হিজরীর ১৫ই মহররম মোতাবেক ১৮৬৬ সালে রোজ বৃহস্পতিবার দেওবন্দ নামক স্থানে ছাত্তা মসজিদের প্রাঙ্গণে ঐতিহাসিক ডালিম গাছের ছায়াতলে দারুল উলূম দেওবন্দের গোড়াপত্তন করেন। এটাই ভারতবর্ষে সর্ব প্রথম কওমী মাদরাসা। আর সেই সে মাদরাসারই সূর্যসন্তান শায়খুল হিন্দ মাওলানা মাহমুদুল হাসান ও শায়খুল ইসলাম মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানী ও মাওলানা উবায়দুল্লা সিন্দি বিশ্বব্যাপি স্বাধীনতার চেতনা জাগ্রত করেন। তাঁরা ছিলেন বিশ্ব মুক্তি আন্দোলনের সফল অগ্রদূত। দারুল উলুমের অভ্যন্তরে তারা শুরু করেন সামারাতুত তারবিয়াত থেকে জমিয়াতুল আনসার। তারপর ১৯১৯ ইংরেজীতে প্রতিষ্ঠা হয় জামিয়তে উলামায়ে হিন্দ। জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ সেই সংগঠন যে সর্বপ্রথম ভারত স্বাধীনতার দাবি উত্থাপন করে। শেষ পর্যন্ত উলামায়ে দেওবন্দের জানবাজী আন্দোলনের চাপে ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ সরকার ভারত ছাড়তে বাধ্য হয়। অতএব ব্রিটিশ খেদাও আন্দোলন তথা ভারতের স্বাধীনতা-সংগ্রামে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের একচেটিয়া অবদান কোনো ইতিহাস-সচেতন ব্যক্তি অস্বীকার করতে পারবে না। তাই বলতে পারি আলেমরাই ভারতের স্বাধীনতার জনক। এই দারুল উলুম দেওবন্দের অনুস্মরণেই ১৯০১ সালে বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত হয় আজকের ‘দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী’ মাদরাসা’। আর এই প্রতিষ্ঠানের মহাপরিচালক হলেন ‘তৃতীয় শক্তি’ খ্যাত আমিরে হেফাজত খলিফায়ে মাদানী আল্লামা শাহ আহমদ শফী।

পরিশেষে বলতে চাই- উপরোল্লিখিত অপ্রিয় সত্য থেকে আলেম সমাজকে শিক্ষা নিতে হবে। শুধু ঘোষণাতেই আনন্দে আত্মহারা হলে চলবেনা। মনে রাখতে হবে  প্রজ্ঞাপনের খুব একটা গুরুত্ব নেই। বর্তমান সরকারের বিশ্বস্তজন  মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসউদের ভাষায় ’আইন পাস না হওয়া পর্যন্ত খুশি হতে পারছি না।’
লেখক: সম্পাদক-সিলেট রিপোর্ট ডটকম। ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

এই সংবাদটি 1,049 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com