বৃহস্পতিবার, ১৮ মে ২০১৭ ১২:০৫ ঘণ্টা

একজন আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (র)

Share Button

একজন আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (র)

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী: বাংলাদেশের যে কয়জন আলেম শিক্ষা,সাহিত্য-সংস্কৃতি,রাজনৈতিক ময়দানে গুরুত্বপুর্ন ভূমিকা পালন করেগেছেন তাদের অন্যতম একজন হলেন মাওলানা শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (র)। ইসলামী শিক্ষা বিস্তারের পাশাপাশী আলেম সমাজকে রাজনৈতিক ময়দানে সম্পৃক্ত হতে তিনি যে ভূমিকা পালন করেগেছেন তা সত্যিই বিরল। মুসলিম মিল্লাতের একজন দরদী অভিভাবক,বহুমুখী চিন্তার অধিকারী এই আলেম দেশ বিভাগের পরে জমিয়তকে পুন:প্রতিষ্ঠা করেন। এজন্যই তাকে ’বাবায়ে জমিয়ত’ বলে অভিহিত করা হয়। রাজধানীর বাহিরে অর্থাৎ মফস্বলে থেকেও যে জাতীয় রাজনীতি বুঝতেন এমন ব্যক্তির দৃষ্টান্ত তিনিই স্থাপন করেগেলেন। এদেশের আলেম-ওলামা এবং ইসলামী দলগুলোর মধ্যে ঐক্যের জন্য আমৃত্যু প্রচেষ্টা চালিয়েগেছেন। মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহীউদ্দীন খান বলেন, শায়খে বিশ্বনাথী আমার খুবই ভালো বন্ধু ছিলেন। তিনি ঢাকায় এলে আমার বাসায় আসতেন। তার মাথায় ছিলো জমিয়ত। সেই সময় ঢাকায় জমিয়তের নাম উচ্চারণও শোনা যেতোনা। মাদরাসাগুলো চালাতেন থানভী সিলসিলার বুজুর্গরা। তাদের লেজের বাড়িতে কেউই টিকতে পারতোনা। সত্যিই তখন জমিয়ত নিয়ে দাঁড়ানো কঠিন ছিলো। কিন্তু কয়েকজনকে নিয়ে আমরা দাঁড়িয়ে গেলাম। অনেক লোহা গলিয়ে সংগঠনটিকে দাড় করালাম। এখন তো অনেকেই আছেন। কিন্তু এক সময় জমিয়ত বলতেই লোকেরা ভয় পেতো, কংগ্রেসী বলা হতো, অপবাদ আসতো।’
তাঁর ব্যক্তিত্ব মূল্যায়নে হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেন, দেশে ইসলামী শাসন ব্যবস্থা কায়েম করার জন্য তিনি বহু চেষ্টা চালিয়েছেন। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম এর মাধ্যমে চল্লিশ বছরের বেশী সময় তিনি সংগ্রম চালিয়েছেন। পবিত্র কুরআন-সুন্নাহ ও সলফে সালিহীনদের আদর্শ সমাজ ব্যবস্থা সর্বস্তরে প্রতিষ্ঠার জন্য তার যথেষ্ট মেহনত ছিলো। হযরত শায়খুল ইসলাম আল্লামা সৈয়দ হুসাইন আহমদ মাদানী (রাহ.) এর খলিফা হযরত আল্লামা হাফিজ আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া (রাহ.) এর নেতৃত্বে তিনি সব সময় সক্রিয় ছিলেন। তাঁর অবদানের কথা আমাদের সব সময় স্মরণ হয়। একজন বিশাল ব্যক্তিত্ব ও মর্দে মুমিন ছিলেন হযরত আল্লামা আশরাফ আলী বিশ্বনাথী সাহেব (রাহ.)। আমরা একই সময়ে হাটহাজারি মাদ্রসায় শিক্ষা লাভ করেছি। তিনি ছিলেন আমাদের সিনিয়র। হাটহাজারী মাদ্রাসায় ছাত্রদের মধ্যে ইসলামী রাজনীতির ক্ষেত্রে আন্দোলনের জন্য যে কয়েক জনের নাম স্মরণীয় হয়ে রয়েছে তাদের মধ্যে আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (রহঃ) ছিলেন অন্যতম। হাটহাজারী জামেয়া মূলত: তা’লীম, তাবলীগ ও জেহাদ ফি সাবিলিল্লাহ’র চেতনা নিয়ে দ্বীনের প্রচার-প্রসার, সংরক্ষণ ও বিকাশের যোগ্য কর্মী বাহিনী তৈরি করছে। ফলে প্রতিটি ক্ষেত্রেই আমাদের সাধনার সোনার ফসল ফলেছে। সন্তানরা রাজনৈতিক চেতনাকে দ্বীনের পোষাক পরিয়েছে। তাদেরই একজন মাওলানা বিশ্বনাথী সাহেব’।
সংক্ষিপ্ত পরিচয়:
১৩৩৩ বাংলার ১৪ অগ্রহায়ণ মোতাবেক ১৯২৮ ঈসায়ী বুধবার দিবাগত রাতে সিলেটের বিশ্বনাথ থানাধীন গড়গাঁও গ্রামে জন্ম। তার পিতার নাম মৌলভী জাওয়াদ উল্লাহ। মাতা হাবীবুন্নেসা উরফে জয়তুন বিবি। দারুল উলূম মুইনুল ইসলাম হাটহাজারী থেকে ১৯৪৯ ঈসায়ী সনে দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন। গলমুকাপন মাদরাসার শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবনের সুচনা। ১৯৫০ থেকে ১৯৫৩ পর্যন্ত তিন বছর তিনি গলমুকাপন মাদরাসায় সুনামের সাথে শিক্ষকতা করেন। ১৯৫৪ সালে শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ পেলেন শমেমর্দান চককাসিমপুর মাদরাসায়। এলাকবাসীকে সাথে নিয়ে ১৯৫৯ সালে পুন:স্থাপন করেন আজকের জামিয়া মাদানিয়া বিশ্বনাথ টাইটেল কওমী মাদরাসা। মাদরাসাটি প্রথম ছিলো বিশ্বনাথ শহরের বাসিয়া নদীর দক্ষিণ পারে। কিছুদিন পরই নদীর উত্তর পাড়ে মনোরম পরিবেশে বিস্তৃত অঞ্চলে স্থানান্তর করা হয়। এই জামিয়া মাদানিয়ার উন্নতির জন্য শায়খে বিশ্বনাথী তাঁর জীবনের সর্বস্ব বিলীন করে
গেছেন। ১৯৫৯ থেকে আমৃত্যু তিনি মাদানিয়ার প্রতিষ্ঠাতা মুহতামিম পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন।
২০০১ খ্রিস্টাব্দে পৃথক বালিকা (মহিলা) মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন। বর্তমানে পূর্ণাঙ্গ দাওরায়ে হাদীস মাদরাসা হিসেবে মুসলিম বালিকাদের দ্বীনী ইলমের তাকাযা পূরণ করছে এটি। ১৯৬১ সালে তাঁরই প্রস্তাব ও প্রচেষ্টায় বাসিয়া নদীর উত্তর পারে বিশ্বনাথ নতুন বাজার স্থাপিত হয়।
জমিয়ত প্রতিষ্ঠা:
১৯১৯ সালে গঠিত জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ ভারত খ-ের পর ১৯৫২ সনে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম নামে পাকিস্তানে রাজনৈতিক কার্যক্রম শুরু করে। তখন থেকে নিয়ে ১৯৬৪ পর্যন্ত পূর্বপাকিস্তানে এর কোনো কার্যক্রম ছিলো না। পূর্বপাকিস্তানে সর্বপ্রথম সিলেটেই এর কার্যক্রম চালু হয়। এর পেছনে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা ছিলো তার। ঐ বছর ১লা নভেম্বর তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সিলেট জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৬৬ খ্রিস্টাব্দে শায়খে বিশ্বনাথী মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ও আল্লামা শামসুদ্দীন কাসেমীসহ সচেতন উলামায়ে কেরামের প্রচেষ্টায় পূর্ব পাকিস্তান জমিয়ত গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়। এই প্রেক্ষিতে সে বছর ১৬ মার্চ ঢাকার নবাববাড়ি আহসান মঞ্জিলে উলামায়ে কেরামের সম্মেলন ঘটে। পাকিস্তান থেকে আল্লামা দরখাস্তীসহ বড় বড় আলেম উলামা এ সভায় উপস্থিত ছিলেন। এ সম্মেলনে পূর্ব পাকিস্তান জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সভাপতি নির্বাচনের দায়িত্ব দেয়া হয় শায়খে বিশ্বনাথীকে। এ সম্পর্কে তাঁর ভাষ্য হল; ১৬ মার্চ নবাববাড়ি আহসান মঞ্জিলে পূর্বপাকিস্তান জমিয়তে উলমায়ে ইসলাম গঠন করা হয়। সকাল ৯টা হতে বেলা ১২টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত ১ম অধিবেশনে কমিটির প্যানেল তৈরীর ব্যাপারে আলোচনা হয়। খাজা আনিছ উল্লাহ সাহেব প্রস্তাব করলেন জমিয়তের পূর্বপাকিস্তানের আমীর সিলেট থেকেই হতে হবে। ২য় অধিবেশন বিকাল ৩টায় শুরু হল। অনেক চিন্তা ভাবনার পর মাওলানা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়ার নাম পেশ করা হয়। ১৯৬৮ সনের পহেলা, দুসরা ও তেসরা মে পাকিস্তানে লাহোর অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে শায়খে বিশ্বনাথী ছয় জনের একটি প্রতিনিধিদলসহ সে সমাবেশে যোগদান করেন। ১৯৭১ সনের ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে তিনদিন ব্যাপী জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নিখিল পাকিস্তান অধিবেশন চলে। এই অধিবেশনে পূর্বপাকিস্তানের ২০ জনের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে তিনিও ছিলেন অন্যতম। ১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধপূর্ব সময়ে সংকট নিরসনে জেনারেল ইয়াহইয়ার শাসনামলে শেখ মুজিবুর রহমান ও জুলফিকার আলী ভুট্টোর মধ্যে যে সমস্যা প্রকট হয়ে দেখা দিয়েছিলো, তার নিরসনের লক্ষ্যে জমিয়ত পাকিস্তানের সেক্রেটারি জেনারেল মুফতী মাহমুদ রহ.‘র নেতৃত্বে অন্যান্য রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ শেখ মুজিব ও ইয়াহইয়া খানের সাথে আলোচনার জন্য যখন ঢাকায় এসেছিলেন, তখন ১৩ দিনব্যাপী তিনি মুফতী মাহমুদ রহ.’র সঙ্গে থেকে আলোচনায় অংশ নেন। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান রহ.ও তখন সাথে ছিলেন। ১৯৭৫ সালে শায়খে বিশ্বনাথী জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতির দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। ১৯৮৮ পর্যন্ত এই পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। অতঃপর নির্বাহী সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। শায়খে কৌড়িয়া ২০০১ সনে ইন্তেকাল করলে জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতির দায়িত্ব তাঁর ওপর অর্পিত হয়। আমৃত্যু এ পদে তিনি অধিষ্ঠিত ছিলেন। ভারতীয় আগ্রাসন প্রতিরোধ কমিটির ঘোষিত কর্মসূচি টিপাইমুখ অভিমুখে (২০০৫ সালের ১০ মার্চ) লংমার্চ পরবর্তী বিশাল জনসমাবেশে সভাপতির আসন অলঙ্কৃত করে তিনি জানিয়ে দিলেন যে, জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী সংগ্রাম চালিয়ে যাব। এ লংমার্চে জমিয়তের সর্বস্তরের নেতা-কর্মী সর্বাত্মকভাবে অংশ গ্রহণ করেন। ২০০৫ সালের ২রা এপ্রিল আয়োজন করেন জাতীয় সম্মেলনের। উক্ত সম্মেলনে অতিথির আসন অলঙ্কৃত করেছিলেন বিশ্ব নেতৃবৃন্দ। ভারত থেকে ফেদায়ে মিল্লাত আল্লামা আসআদ মাদানী (এটাই ছিলো তাঁর বাংলাদেশের শেষ সফর।) পাকিস্তান থেকে বিরোধী দলীয় প্রধান আল্লামা ফজলুর রহমান, সংসদ সদস্য মাওলানা শেরানি খান আগমন করেন।

মুক্তিযুদ্ধ:
১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি মজলুম মানবতার পক্ষে কাজ করেন। এসর্ম্পকে গোলাপগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের অফিস সম্পাদক জনাব আব্দুল কাদির জানান, ১৯৭১ সালের মে মাসে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী আমাদের গোলাপগঞ্জে আক্রমণ করে, তখন চৌঘরী এলাকায় এক হিন্দু মহিলার ঘর তারা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেলে। খবর শুনে মাওলানা রিয়াসত আলী চৌঘরী রহ. আসেন এবং শায়খে বিশ্বনাথীকে খবর দেন। পরদিন বিশ্বনাথী আসেন। এরপর পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর একান্ডের প্রতিবাদে সমাবেশ ও মিছিল করেন এবং অত্র এলাকা ছেড়ে যাওয়ার জন্য পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীকে আলটিমেটাম দেন। এরপর হিন্দু মহিলার ঘর নির্মাণের জন্য কিছু চাঁদা দেওয়ার জন্য উপস্থিত সকলের প্রতি আহবান জানান। সকলে মিলে যে টাকা উঠে সেই টাকা শায়খে চৌঘরীর হাতে দিয়ে বললেন, হুজুর আপনি এই মহিলাটিকে একটি ঘর নির্মাণের ব্যবস্থা করে দিন। এ সময় মুক্তিযোদ্ধারা উপস্থিত উলামায়ে কেরামের সাথে সাক্ষাৎ এলে শায়খে বিশ্বনাথী তাদের খোজ নেন। এবং দেশ রক্ষার জন্য সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার আহবান জানান। এসময় উপস্থিত ছিলেন মাওলানা রিয়াসত আলী চৌঘরী, শায়খে ফুলবাড়ীসহ অনেক উলামায়ে কেরাম ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদির, শহিদ মানিক মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা ফলিক মিয়া প্রমুখ। (সূত্র: মাসিক-আল ফারুক শায়খে বিশ্বনাথী সংখ্যা-২০১২)।

ভ্রমন:
ইরাক সরকারের ওয়াকফ ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের আমন্ত্রণে ১৯৮৭ ইংরেজি সনের ১০ই জুন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের পক্ষ থেকে জমিয়ত নেতা মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমীর নেতৃত্বে ৬ জনের একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে তিনি ইরাক সফরে যান । ১৯৮৫ ঈসায়ী সনের ১৭ই অক্টোবর তিনি প্রথম বারের মত ইউরোপ ভ্রমণে যান এবং শেষ ইউরোপ ভ্রমণ করেন ২০০৩ ইংরেজি সনে। মোট ১৩ বার ইউরোপের বিভিন্ন শহর লন্ডন, বার্মিংহাম, বার্ডফোর্ড, লিভারপুল ইত্যাদি সফর করেন। তিনি ১৩৮৭ বাংলায় ১ম হজ্বের সফর করেন। চারবার পবিত্র হজ্বব্রত পালন ও একবার উমরাহ আদায়ের জন্য তিনি সর্বমোট ৫ বার সৌদিআরব সফর করে পবিত্র মক্কা ও মদীনা জিয়ারত করেন। তিনি বেশ কয়েকটি গ্রন্থ রচনা করেন। কয়েকটি হলোÑ * মওদুদী ইসলামের সংক্ষিপ্ত নমুনা (১৯৭০) * মাদরাসাতুল বানাতের পাঠ্য তালিকা (১৯৯২) * জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি (১৯৮৮) * মক্তব প্রথম পাঠ (১৯৮৩) * মুসাফিরের নামাজ (১৯৯৬) * স্মৃতির দর্পনে পূণ্যভূমি ইরাক (১৯৯৫) * এদারার সংক্ষিপ্ত পরিচিতি ইত্যাদি। আল ফারুক প্রতিষ্ঠা: ১৯৯৮ সনের জুন মাসে প্রথম প্রকাশ করেন মাসিক আল-ফারুক নামে একটি সাহিত্য সাময়িকী। বর্তমানে তাঁরই ছেলে হাফিজ হুসাইন আহমদ ইউ.কে’র তত্ত্বাবধানে মাওলানা শিব্বীর আহমদের সম্পাদনায় পত্রিকাটি নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে।
আধ্যাত্মিক জীবন:
শাইখুল ইসলাম সৈয়দ হোসাইন আহমদ মাদানী রহ. রমযান মাসে আসামের বাসকান্দিতে আসতেন। শায়খে বিশ্বনাথী বাসকান্দিতে গিয়ে শাইখুল ইসলাম মাদানী রহ. এর হাতে বাইয়াত গ্রহণ করেন। এবং আত্মশুদ্ধির জন্য সচেষ্ট হন। হযরত শাইখুল ইসলাম আল্লামা মাদানী রহ. এর ইন্তেকালের পর শায়খের ইশারা অনুযায়ী হযরত মাওলানা বশির আহমদ শায়খে বাঘা রহ. এর সাথে আধ্যাত্মিক সম্পর্ক কায়েম করেন। তাঁরও ইন্তেকালের পর হযরত শাইখুল ইসলাম- এর প্রিয় খলীফা হযরত আল্লামা হাফেজ আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়া রহ. এর সাথে আধ্যাত্মিক সম্পর্ক কায়েম করেন এবং তার কাছ থেকে খেলাফত লাভ করেন।
স্ত্রী ও সন্তানাদী:
তিনি ১৯৫৩ খৃস্টাব্দে গলমুকাপন নিবাসী হাজী আবদুল গণী সাহেবের প্রথমা কন্যা বেগম লুৎফুন্নেসা তুহফাকে শাদী করেন। তাঁর গর্ভে জন্ম নেন ১৩ জন ছেলে মেয়ে। ১৯৮১ সনের ২৮ আগস্ট প্রিয়তমা আহলিয়া মুহতারামা ইন্তেকাল করলে ছোট ছোট ৩ জন সন্তানের লালন পালন নিয়ে গভীর চিন্তায় পড়ে যান। তাই অনন্যোপায় হয়ে ১৯৮২ এর জানুয়ারিতে সদর থানার রুস্তমপুরের জনাব আবদুল হান্নান চৌধুরীর কন্যা রহিমা বেগমকে ২য় স্ত্রী হিসেবে গ্রহণ করেন। এ পক্ষের মোট ছেলে মেয়ে ৬ জন।
৮ ছেলে, ১১ মেয়ে, মোট ১৯ জন। ১মা স্ত্রী: মরহুমা মোছাম্মৎ লুৎফুন্নেছা তুহফা এর কোলেÑ ১. মাওলানা রশিদ আহমদ । ২. মোছাম্মৎ আয়েশা খাতুন, স্বামী: সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর থানার অন্তর্গত শেওড়া গ্রামের মুফতী হাফিজ শরীফ উদ্দীন, ৩. আলহাজ্ব হাফিজ হোসাইন আহমদ, লন্ডন প্রবাসী সাধারণ সম্পাদক মাদানিয়া ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট। ৪. মোছাম্মৎ রাবিয়া খাতুন, স্বামী: সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক থানার হায়দারপুর গ্রামের মাওলানা বশীর আহমদ। ৫. মোছাম্মৎ রাহিমা খাতুন, স্বামী: সিলেট সদর থানার আলমপুর গ্রামের সৈয়দ উদ্দীন আহমদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। ৬. মাওলানা শিব্বীর আহমদ, মুহতামিম- জামেয়া মাদানিয়া বিশ্বনাথ। ৭. যুবায়ের আহমদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। ৮. মোছাম্মৎ হাফসা খাতুন, স্বামী: বিশ্বনাথ থানার দশঘর গ্রামের মাওলানা জালাল উদ্দীন, লন্ডন প্রবাসী। ৯. মোছাম্মৎ হাবিবা খাতুন, স্বামী: সিলেট সদর থানার বলদী গ্রামের শামীম আহমদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। ১০. মোছাম্মৎ হাফিজা খাতুন, স্বামী: বালাগঞ্জ থানার বুরুঙ্গা গ্রামের ইউসুফ আহমদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। ১১. মুহাম্মদ ফরিদ আহমদ, বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী, প্রবাসী। ১২. মোছাম্মৎ মাশকুরা খাতুন, স্বামী: হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ থানার অন্তর্গত গজনাইপুর গ্রামের মুহাম্মদ এমদাদুল হক খান, লন্ডন প্রবাসী।
২য় স্ত্রীঃ মোছাম্মৎ রহিমা বেগম এর কোলেÑ ১৪. মাওলানা ফখরুদ্দীন আহমদ, লন্ডন প্রবাসী। ১৫. মোছাম্মৎ মাহফুজা খাতুন, স্বামী: জগন্নাথপুর থানার পাটলী মিনহাজপুর গ্রামের এনামুল হক (রাজু), লন্ডন প্রবাসী। ১৬. মোছাম্মৎ মাউসুফা খাতুন। ১৭. মোছাম্মৎ মাসউদ আহমদ (ফাহিম)। ১৮. মোছাম্মৎ মামদুহা খাতুন। ১৯. মুহাম্মদ মুহসিন উদ্দীন (নাঈম)।
ইন্তেকাল:
২০ মে ২০০৫ রাত ৮টা ৩০ মিনিটের সময় অসংখ্য অগণিত ভক্তকুল ও ছাত্রদেরকে কাঁদিয়ে পরম প্রভূর সান্নিধ্যে চলে যাবার উদ্দেশ্যে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

লেখক: সভাপতি,মাদানী কাফেলা বাংলাদেশ। মোবাইল ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

এই সংবাদটি 1,057 বার পড়া হয়েছে