শনিবার, ০৩ জুন ২০১৭ ০৪:০৬ ঘণ্টা

রহমতের সপ্তম দিবসের শপথ হোক অপচয় রোধ করার

Share Button

রহমতের সপ্তম দিবসের শপথ হোক অপচয় রোধ করার

 
মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : আজ শনিবার ৭ রমজান ১৪৩৮ হিজরী, মোতাবেক ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বাংলা, ৩ জুন ২০১৭ ঈসায়ী। সিয়াম সাধনার এই মাসের গুরুত্বর্পুণ রহমতের দশক বিদায়ের পথে। সুবহে সাদিক থেকে পানাহার ও জৈবিক প্রয়োজন পূরণ বর্জন করে সূর্যাস্ত যাওয়া মাত্র যে পানাহার করা হয় ইসলামের পরিভাষায় তাকে ইফতার বলে। সারাদিন উপোস থাকার পর ইফতার আনন্দের একটি মুহূর্ত। ইফতারের মাধ্যমে রোজার পূর্ণতা আসে। এ সময়টি আল্লাহ মুমিনের পুরস্কারের জন্য নির্ধারণ করেছেন। নানা ধরনের খাবার সামনে পড়ে থাকা সত্ত্বেও আল্লাহর বিধান না থাকায় খাচ্ছে না-এটা আল্লাহর কাছে খুবই পছন্দের। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, রোজাদারের খুশির মুহূর্ত দুটি : এক. ইফতারের মুহূর্ত। দুই. তাকে যেদিন জান্নাতে স্বাগত জানানো হবে। বান্দা যখন ইফতার সামনে নিয়ে বসে থাকে, আল্লাহ তখন ফেরেশতাদের কাছে গর্ব করেন। ইফতারের সময় দোয়া করলে তা কবুল হওয়ার বিশেষ সম্ভাবনা থাকে। ইফতারের কোনো দোয়া বৃথা যায় না। হাদীসে আছে, রাসুল সা. বলেছেন, ‘‘আল্লাহ তায়ালা রমজান মাসে প্রতিদিন ইফতারের সময় দশ লাখ লোককে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেন।’’ ইফতারের সময় এ দোয়াটি পড়ার কথা হাদীসে আছে : ‘আল্লা হুম্মা লাকা সুমতু ওয়া আলা রিজকিকা আফতারতু।’ ‘হে আল্লাহ! আমি তোমার জন্যই রোজা রেখেছিলাম এবং তোমার রিজিক দ্বারাই ইফতার করলাম।’
ইফতার নিছক একটি পানাহার নয় বরং এর রয়েছে ধর্মীয় গুরুত্ব, মর্যাদা ও গ্রহণযোগ্যতা। তাই ইফতারের আয়োজন অবশ্যই হতে হয় শতভাগ হালাল টাকা দিয়ে। চুরি, ডাকাতি, লুণ্ঠন, জালিয়াতি, দখল, নিয়োগবাণিজ্য, রাষ্ট্রীয় সম্পদ আত্মসাৎ, চাঁদাবাজি, কাজ না করে উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা, ঘুষ, সুদ ইত্যাদির মাধ্যমে অর্জিত অর্থ দ্বারা ইফতারের আয়োজন করলে ইফতার হবে বটে, তা সারাদিনের সংযম সাধনাকে নিষ্ফল করে দেবে।
এছাড়া ইফতারের মুহূর্তে অযথা গল্প-গুজবে লিপ্ত না হওয়াই ভালো। এ সময় মনে মনে জিকির ও তওবা করা উচিত। অনেকে এক সঙ্গে ইফতার করলে সম্মিলিতভাবে দোয়াও করা যেতে পারে। তবে ইফতারের মতো একটি গুরুত্বর্পুণ সময়ে আমরা যেনো কোন ফরজ তরক অথবা গোনাহ হওয়ার মতো কোন আমল না করা চাই। ইফতার পবিত্র রমজানের একটি অনুষঙ্গ হওয়া সত্বেও ইদানিং আমাদের দেশে ইফতারের এই ইবাদাতকে আমরা অনেকটা সামাজিক ফ্যাশনে পরিনত করে ফেলেছি। রাজনৈতিক ফোরামে ও নববিবাহিত ফ্যামেলির মধ্যে কোন কোন সময় ইফতার নিয়ে লংকা কান্ডও ঘটে। আমাদের দেশে বিশেষকরে সিলেটে আম-কাটলী, ইফতার ইস্যুতে বিভিন্ন পরিবারে স্বামী-স্ত্রীর দাম্পত্যজীবনে অন্ধকারও নেমে এসেছে।
পবিত্র রমজান শরীফ মোমিনের জন্য আনন্দবার্তা নিয়ে এলেও অনেক নি¤œও মধ্যবিত্ত পরিবারের জন্য অশনি সংক্ষেত নিয়ে আসে। দরিদ্র মা-বাবা মেয়ে বিয়ে দেওয়ার পর রোজা আসার সাথে সাথে জামাই বাবুর জন্য ইফতার পাঠানোর জন্য তাদের টেনশন বেড়ে যায়। কয়েকদিনের রোজি রুজগারের পুরো টাকাটাই দিয়ে দিতে হয় মেয়ের বাড়ীতে! ফলে অনেক ক্ষেত্রে ইফতারের নামে যুলুমও হচ্ছে, হচ্ছে অপচয়। সম্প্রতি আমরা মিডিয়ার কল্যাণে আরেকটি বিষয় লক্ষ করেছি , তা হলো রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের পক্ষ থেকে ইয়াতিম ও আলেমদের নিয়ে ইফতার। প্রধান রাজনৈতিক জোটের নেতারা আলেম ও ইয়াতিমদের নিয়ে একত্রে ইফতার করার একটি কালচার তৈরী হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে আরো ভালো হতো যদি নেতা নেত্রীরা শাহী ইফতারের আয়োজন না করে (বহুবিধ অপচয় রোধকল্পে) নিজেরা ইয়াতিমদের অবস্থান স্থলে, আলেমগনের আস্থানায় গিয়ে ইফতার করতেন অথবা ইফতার সামগ্রী বিতরণ করতেন তাহলে অনেক ভালোহতো। আর এতেকরে ঐ শাহী ইফতারে যে পরিমান খরচ হয়, সেই খরচ দিয়ে পুরো ইয়াতিম খানায় কয়েক দিনের ব্যবস্থা হয়ে যেতো। এই দেশে, আমাদের সমাজে এমন ও পরিবার রয়েছে, যারা শুধু একটুকরো খেজুর আর পানি দিয়ে ইফতার করছেন। সাহরীর সময় এক জাতীয় তরকারী দিয়ে কোন রকম ক্ষুধা নিবারন করছেন। অপর দিকে রমজানের প্রতিদিন শুধু ইফতারের সময় বিপুল পরিমান খাদ্য আমরা ডাষ্টবিনে ফেলে দিচ্ছি। অভিজাত হোটেলসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গিয়ে এর সত্যতা পাওয়া গেছে।
প্রিয় পাঠক আশাকরি বিষয়টি উপলদ্ধিকরতে পেরেছেন। আল্লাহপাক আমাদেরকে অসহায় দরিদ্র জনগোষ্টির প্রতি সহানুভতিশীল হওয়ার এবং অপচয় রোধকরার তাওফিক দিন। 

এই সংবাদটি 1,036 বার পড়া হয়েছে