সোমবার, ০৫ জুন ২০১৭ ০৩:০৬ ঘণ্টা

শ্রীমঙ্গল ইসলামিয়া মাদরাসার ইফতার মাহফিল সম্পন্ন

Share Button

শ্রীমঙ্গল ইসলামিয়া মাদরাসার ইফতার মাহফিল সম্পন্ন

এহসান বিন মুজাহির : শ্রীমঙ্গল শহরতলীর দক্ষিণ মুসলিমবাগ ইসলামিয়া হাফিজিয়া মাদরাসার আয়োজনে রোববার (৮ রমজান) দক্ষিণ মুসলিমবাগ ইহামা মিলনায়তনে ‘কুরআন শিক্ষার তাৎপর্য শীর্ষক’ আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল ২০১৭ অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে আলোচনা পেশ করেন খেলাফত মজলিস শ্রীমঙ্গল উপজেলা সভাপতি মাওলানা আয়েত আলী, খেলাফত মজলিস শ্রীমঙ্গল পৌর সভাপতি মাওলানা এমএ রহিম নোমানী, জামেয়া ইসলামিয়া শ্রীমঙ্গলের শিক্ষাসচিব মুফতি মনির উদ্দীন, দক্ষিণ মুসলিমবাগ আল মদীনা জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা শাফায়েত উল্লাহ, দারুল আজহার ইনস্টিটিউট শ্রীমঙ্গলের ভাইস প্রিন্সিপাল, সাংবাদিক-কলামিস্ট এহসান বিন মুজাহির প্রমুখ।

মাদরাসার প্রিন্সিপাল হাফেজ শুয়াইবুর রহমান চৌধুরীর পরিচালনায় সভায় ইফতার পূর্ব আলোচনায় মাওলানা আয়েত আলী বলেন-রমজানে কুরআন নাযিল হয়েছে। সুতরাং কুরআনের আলোকে ব্যক্তি পরিবার ও সমাজ গঠন করা সকলের ঈমানী দায়িত্ব। এ রমযান মাসের মর্যাদা কুরআনের কারণেই। তাই সকলকে কুরআনের আলোয় আলোকিত হতে হবে।মাওলানা এমএ রহিম নোমানী বলেন, কুরআনের সংস্পর্শ ছাড়া কোন মুমিন নিজে ও সমাজকে পরিশুদ্ধ করতে পারবে না।মুফতি মনির উদ্দিন বলেন-রোজা পালনের মাধ্যমে সৃষ্টিকুলের প্রতি সমবেদনা, সদাচরণ, ত্যাগ ও সবরের শিক্ষা অর্জন করা যায়।সাংবাদিক এহসান বিন মুজাহির বলেন-মহান আল্লাহ তায়ালা রমজান মাসে পবিত্র কুরআন শরীফ নাজিল করেছেন। এর রক্ষণাবেক্ষণ তিনিই করবেন। জ্ঞান বিজ্ঞানের প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে এবং আখেরাতে মুক্তি পেতে কুরআন শিক্ষা অর্জনের বিকল্প নাই। জ্ঞানের মূল উৎস হচ্ছে মহাগ্রন্থ আল কোরআন। তাই কোরআন নাজিলের মাস হিসেবে মাহে রমজানের গুরুত্ব অপরিসীম।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কাজী মাওলানা শিহাব উদ্দিন, মাওলানা আছগর হোসাইন, কারী মাওলানা শামছুল ইসলাম, কারী মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা আবুল কালাম আজাদ, মাওলানা আনোয়ার হোসাইন, কাজী জয়নাল আবেদিন প্রমুখ।
মাদরাসার কার্যকরী কমিটির দায়িত্বশীলের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কমিটির উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর হোসেন হিমু, সহসভাপতি আব্দুর রউফ, সহ সভাপতি চান মিয়া, কমিটির সদস্য শেখ শাহিন আলম প্রমুখ।
প্রসঙ্গত মাদরাসাটি ২০০৪ সালে প্রতিষ্ঠা করেন আমেরিকা প্রবাসী আলহাজ শাহনূর চৌধুরী।

এই সংবাদটি 1,057 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন