বুধবার, ০৭ জুন ২০১৭ ০৩:০৬ ঘণ্টা

প্রকৃত রোজাদার সংঘর্ষে লিপ্ত হয়না

Share Button

প্রকৃত রোজাদার সংঘর্ষে লিপ্ত হয়না

 

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : আজ বুধবার ১১ রমজান ১৪৩৮ হিজরী, মোতাবেক ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বাংলা, ৭ জুন ২০১৭ ঈসায়ী। মাহে রমজানের রহমতের দশক আমাদের নিকট থেকে চলে গেলো। প্রত্যেক রোজাদারের চিন্তাকরা উচিৎ আমরা কে কতটুকু রহমতের অংশিদার হতেপেরেছি? আসুন আজ রাতেই আমরা একটু গভীর ভাবে চিন্তাকরি, আত্ম সমালোচনার মাধ্যমে আত্মশুদ্ধির এই মাস অতিবাহিত করি। রমজানের ২য় দশক অর্থাৎ মাগফেরাতের দশক আজ শুরু। রমজান মাসে আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে একজন আহবানকারী আহবান করতে থাকে যে, হে কল্যাণ প্রার্থীগণ, সামনে অগ্রসর হও। আর হে মন্দ পথের যাত্রী, থেমে যাও। এ মাসে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষকে জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্ত করা হয়। আর তা সমগ্র রমজান মাস ব্যাপী অব্যাহত থাকে। (তিরমিযী)
অপর এক হাদীসে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) র্বণনা করেন যে, রমজান মাস আসার সাথে সাথে হযরত নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকট কোনো লোক আটক থাকলে সঙ্গে সঙ্গে তাকে মুক্ত করে দিতেন। আর প্রত্যেক (প্রার্থীকে) সায়েলকে তিনি কিছু না কিছু অবশ্যই দিতেন। (বায়হাকী)
রমজান আত্মসংযমের মাস। এমাসে আল্লাহপাক শয়তানকে শিকল বন্ধিকরে রাখেন। অনেক ব্যক্তিকে বলতে শোনা যায়, ‘‘শয়তান যদি শিকল বন্ধি-তাহলে কেন, মানুষ খুন খারাবী করে? আসলে যারা ১১টি মাস শয়তানের খাঁচায় বন্ধি থাকেন , তাদের দিলের মধ্যে রমজানের একমাস সেই ওসওয়াসার আসর কিছুটা থেকেই যায়। যাদের অন্তরে খোদাভীতি প্রবল হয় রমজানের পবিত্রতা রক্ষাকরা তাদের পক্ষেই সম্ভব। সত্যিকারের কোন রোজাদার কে যদি অযথা কেউ গালমন্দ বলে ,সে তখন চুপ থাকে। কারণ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন তোমরা যখন রোজা রাখবে,তখন অশ্লীল বাক্যালাপ করবে না। চেঁচামেচি করবে না। যদি কেউ গায়ে পড়ে ঝগড়া করতে আসে বা তোমাকে গালিগালাজ করে তবে বলে দিবে, আমি রোজাদার। (ঝগড়া ফ্যাসাদ আমার পক্ষে সাজেনা)
(বুখারী-মুসলিম)

মহিমান্বিত এই রমজানে সর্বোচ্চ ধৈর্য্যশক্তি প্রদর্শনের কথা থাকলেও সামান্য বা তুচ্ছ ঘটনায় আমরা খুনীর ভ’মিকায় অবর্তীন হয়ে যাই। ফালতু কথায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছি।
পারিবারীক কলহের জেরধরে জন্মদাতা বৃদ্ধ পিতাকে খুনকরা হলো!
অথচ ধর্মীয় দৃষ্টিতে মানুষ হত্যাকরা মহাপাপ। পবিত্র এই মাসে যারাই খুন খারাবী করে মাহে রমজানের পবিত্রতা নষ্টকরছে, তাদের রক্ষানেই। হাশরের ময়দানে এদের চরম বে ইজ্জতি ও কঠোর শাস্তি রয়েছে। সত্যিকারের কোন ঈমানদার রোজারেখে এমন জঘন্য কাজ করতে পারেনা। কিন্তু আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় তা ঘটেই চলছে। যারা মন্দ পথ থেকে ফিরে না আসে,তাদের দুনিয়া ও আখেরাতে ভাল বলতে কিছুই থাকবেনা। আল্লাহপাক আমাদের সকলকে মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষার তাওফিক দিন। আমীন।

#

এই সংবাদটি 1,020 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন