বৃহস্পতিবার, ০৮ জুন ২০১৭ ০২:০৬ ঘণ্টা

পাঁচটি কাজ রোজা বরবাদ করে দেয়

Share Button

পাঁচটি কাজ রোজা বরবাদ করে দেয়

 

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী: আজ বৃহস্পতিবার ১২ রমজান ১৪৩৮ হিজরী, মোতাবেক ২৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বাংলা, ৮ জুন ২০১৭ ঈসায়ী। মাগফিরাতের দশকের দ্বিতীয় দিন। নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, পাঁচটি কাজ রোজাদারের রোজা বরবাদ করে দেয়। যথা: ১. মিথ্যা বলা ২.চোগলখুরী ৩. পেছনে নিন্দাকরা ৪. মিথ্যে কসম করা ৫.কামভাব নিয়ে দৃষ্টিপাত করা। আমরা যেন কেবল ক্ষুধার্থ থেকে সময় অতিবাহিত না করি বরং আমরা যেন সমস্ত অপকর্ম থেকে নিজেকে দূরে রাখি আর উত্তম কর্মগুলোকে পালনে সচেষ্ট হই। আমাদের এই রোজা যেন কেবল মাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যই হয়। মহান আল্লাহতায়ালা যেন আমাদেরকে পবিত্র রমজানের সমস্ত শর্তাবলী সহকারে রোজা রাখার শক্তি সার্মথ দেন।
রোজা একটি পবিত্র আমানত বিশেষ। কারণ বান্দা রোজা রাখবে একমাত্র রেজায়ে মাওলার উদ্দেশ্যে। কেউ যদি লোক দেখানোর উদ্দেশ্যে রোজার নামে উপবাস থাকে তাহলে তা হবে ফলাফল শুন্য। মিথ্যা বলা,পরনিন্দাকরা, অন্যের হক নষ্টকরা,কারো প্রতি যুলুমকরা এমন কিছু কাজের মাধ্যমে রোজার পবিত্রতা বিনষ্ট হয় অর্থাৎ রোজার আমানতে খেয়ানত হয়। প্রত্যেক রোজাদারকে মুনাফিকী চরিত্র ত্যাগ করতে হবে। আমাদের কারো মধ্যে যদি মুনাফিকী অব্যাস থেকে থাকে তাহলে তা আজ এখন থেকেই তা পরিহার করতে হবে। আল্লাহর খালিস নিয়তে তাওবা করলে তিনি ক্ষমাকরে দেবেন। কারণ ক্ষমা চাওয়ার প্রকৃত সুর্বণ সুযোগ হলো মাহে রমজান।
মুনাফিকের শাস্তি সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হচ্ছে, ‘‘নিশ্চয়ই মুনাফিকরা জাহান্নামের সর্বনিকৃষ্ট স্তরে থাকবে এবং তাদের জন্য তুমি কখনও কোনো সাহায্যকারী পাবে না।’’ (সুরা নিসা, আয়াত: ১৪৫)
সাহাবী হযরত ‘‘আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) থেকে বর্ণিত নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, চারটি স্বভাব যার মধ্যে বিদ্যমান সে হচ্ছে খাঁটি মুনাফিক। যার মধ্যে এর কোনো একটি স্বভাব থাকবে তা ত্যাগ না করা পর্যন্ত তার মধ্যে মুনাফিকের একটি স্বভাব থেকে যায়। এগুলো হচ্ছে -১. আমানতের খেয়ানত করে
২. কথা বললে মিথ্যা বলে
৩. অঙ্গীকার করলে ভঙ্গ করে এবং ৪. বিবাদে লিপ্ত হলে অশ্লীলভাবে গালাগালি করে।’’ (বুখারী-২২৫৯, মুসলিম ১/২৫)
আমরা যেন কেবল ক্ষুধার্থ থেকে সময় অতিবাহিত না করি বরং আমরা যেন সমস্ত অপকর্ম থেকে নিজেকে দূরে রাখি আর উত্তম কর্মগুলোকে পালনে সচেষ্ট হই। আমাদের এই রোজা যেন কেবল মাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যই হয়। মহান আল্লাহতায়ালা যেন আমাদেরকে পবিত্র রমজানের সমস্ত শর্তাবলী সহকারে রোজা রাখার শক্তি সার্মথ দেন। আল্লাহপাক আমাদের সকল কে মুনাফিকি ত্যাগকরে সঠিক ভাবে রোজা আদায়ের তাওফিক দিন। আমীন।#

এই সংবাদটি 1,017 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন