বৃহস্পতিবার, ০৮ জুন ২০১৭ ০৯:০৬ ঘণ্টা

মওদুদকে উচ্ছেদে সরকারের হাত নেই: কাদের

Share Button

মওদুদকে উচ্ছেদে সরকারের হাত নেই: কাদের

ডেস্ক রিপোর্ট:  বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদকে গুলশানের বাড়ি থেকে উচ্ছেদে সরকারের হাত নেই বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, সর্বোচ্চ আদালতের সিদ্ধান্তে মওদুদকে বাড়ি ছাড়তে হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে গাজীপুরের টঙ্গীর চেরাগ আলী এলাকায় ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়ক পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন সড়ক পরিবহন মন্ত্রী।

গত বুধবার গুলশান-২ এর ১৫৯ বাড়ি থেকে মওদুদকে উচ্ছেদ করে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। এই বাড়িতে মওদুদ দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছেন। বাড়িটির প্রকৃত মালিক ছিলেন পাকিস্তানি নাগরিক মো. এহসান।

১৯৬০ সালে তৎকালীন ডিআইটির কাছ থেকে তিনি ওই বাড়ির মালিকানা পান। ১৯৬৫ সালে বাড়ির মালিকানার কাগজপত্র এহসানের স্ত্রী অস্ট্রিয়ার নাগরিক ইনজে মারিয়া প্লাজের নামে নিবন্ধন করা হয়। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে এহসান স্ত্রীসহ ঢাকা ছাড়েন। তারা আর ফিরে না আসায় ১৯৭২ সালে এটি পরিত্যক্ত সম্পত্তির তালিকাভুক্ত হয়।

ওই বছরই মওদুদ ওই বাড়ির দখল নেন। কিন্তু ইনজে মারিয়া প্লাজের মৃত্যুর পর ভুয়া আমমোক্তারনামা তৈরি করে মওদুদের ভাই মনজুর আহমদের নামে ওই বাড়ির দখল নেওয়া হয়। ২০১৩ সালে দুদক মামলা করার পর শুরু হয় আইনি লড়াই। আর উচ্চ আদালত মওদুদের ভাইয়ের নামে করা দলিল ভুয়া বলে রায় দেয়ার পর রিভিউ আবেদন করেন মওদুদ। গত ৪ জুন সে আবেদন নাকচ হয়ে যায় এবং তিন দিন পর বুধবার বাড়ির দখল বুঝে নেয় রাজউক।

বাড়ির দখল হারানোর পর মওদুদ ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। বলেছেন, তাকে নোটিশ না দিয়ে এই উচ্ছেদ অবৈধ। আর এই বাড়িতে তিনি ভাড়া ছিলেন বলে দাবি করে বিচারিক আদালতে মামলা করেছেন। পাশাপাশি উচ্ছেদের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করেছেন উচ্চ আদালতে।

মওদুদ আহমদকে তার দীর্ঘ দিনের আবাস ছাড়তে বাধ্য হওয়ার পর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তার ক্যান্টনমেন্টের বাড়ির বরাদ্দ বাতিল করে সেখান থেকে উচ্ছেদের পর এই ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেছেন, জনগণ একদিন আওয়ামী লীগকেও এক কাপড়ে বাড়ি থেকে বের করে দেবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘খালেদা জিয়া ও মওদুদ অবৈধভাবে বাড়িতে ছিলেন। সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের পর যেসব সংস্থা রায় বাস্তবায়ন করার কথা, সেসব সংস্থা সে রায় বাস্তবায়ন করেছে। এসবের সাথে সরকারের কোন সম্পর্ক নেই।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর নির্বাহী আদেশে শেখ হাসিনাকে বরাদ্দ দেয়া গণভবন এবং শেখ রেহানার বাড়ি বাতিল করেছিল। কিন্তু মওদুদ ও খালেদা জিয়া সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশে বাড়ি ছাড়া হয়েছেন।’

আসন্ন ঈদে মহাসড়কে যাত্রীচাপ মোকাবেলায় সরকারের প্রস্তুতি নিয়েও কথা বলেন সড়ক পরিবহন মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘মানুষের চলাচল নির্বিঘ্ন করতে সড়ক মহাসড়কে  আনসার, পুলিশসহ কমিউনিটি পুলিশ কাজ করবে।’

এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে ঢাকা বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খান, গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ, ভারপ্রাপ্ত সিটি মেয়র আসাদুর রহমান কিরণসহ সড়ক ও জনপথের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এই সংবাদটি 1,073 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন