শনিবার, ১০ জুন ২০১৭ ১২:০৬ ঘণ্টা

তাহিরপুরে ছুরিঘাতে কলেজ ছাত্র আহত

Share Button

তাহিরপুরে ছুরিঘাতে কলেজ ছাত্র আহত

তাহিরপুর প্রতিনিধি ::  সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ শাখার সভাপতি প্রার্থী স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তারেক আল মামুনকে ছুরিকাঘাত করার ঘটনায় ৬ জনের নামে হত্যা প্রচেষ্টার অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে আহতের পিতা আক্তার হোসেন ৬জন কে আসামী করে এই হত্যা চেষ্টার মামলা করেন।

থানায় দায়েরকৃত মামলার আসামীরা হলেন, উপজেলার পৈলনপুর গ্রামের মৃত নূর ইসলামের ছেলে আযহারুল ইসলাম সোহাগ, বাদাঘাট বাজারের নজরুল ইসলাম মানিকের ছেলে রাহাত হায়দার, মল্লিকপুর গ্রামের আবদুল মালিকের ছেলে রাহাতুল ইসলাম, কামড়াবন্দ গ্রামের আবদুল হামিদের ছেলে জহিরুল ইসলাম জহির, পৈলনপুর গ্রামের নূর আলীর ছেলে ফারুক মিয়া ও চরগাঁও গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে ইকবাল হোসেন।
মামলার বাদী আক্তার হোসেন জানান, তারেক আল মামুন বাদাঘাট সরকারি কলেজের ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী হওয়ায় একই কলেজের আযহারুল ইসলাম সোহাগ সহ ৭/ ৮ জন সংঘবদ্ধ হয়ে বাদাঘাট বাজারের বাদাম পট্রিতে তারেক আল মামুন কে আটক করে ধারালো চাপাতি ও ছুরি দিয়ে রওার্থ জখম করে প্রানে মারার চেষ্টা করে।
তাহিরপুর থানার ওসি (তদন্ত) মো. আসাদুজ্জমান হাওলাদার শুক্রবার রাতে বলেন, এ ঘটনায় আহতের পিতা ৬জনকে আসামী করে থানায় এশটি মামলা দায়ের করেছেন ।  আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
প্রসঙ্গত, উপজেলার বাদাঘাট সরকারি কলেজ শাখার ছাত্রলীগ সভাপতি প্রার্থী হওয়ায় বৃহস্পতিবার রাতে তারেক আল মামুন নামের ওই কলেজ ছাত্রকে ছুরিকাঘাত করে ফেলে রেখে যায়।  রাতেই আশংকাজনক অবস্থায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।’ তারেক  বাদাঘাট সরকারি কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী এবং বড়দল উত্তর ইউনিয়নের আক্তার হোসেনের ছেলে।’

এই সংবাদটি 1,049 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন