রবিবার, ১১ জুন ২০১৭ ০৯:০৬ ঘণ্টা

৩ সন্তানসহ ৫ মাস ধরে নিখোঁজ প্রবাসীর স্ত্রী

Share Button

৩ সন্তানসহ ৫ মাস ধরে নিখোঁজ প্রবাসীর স্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট:
গাজীপুরের কাপাসিয়ায় এক সৌদি প্রবাসীর স্ত্রী ও তিন সন্তান প্রায় পাঁচ মাস ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। এ ঘটনায় স্থানীয় এক প্রভাবশালী ব্যক্তি জড়িত থাকায় পুলিশ এবিষয়ে কোনও অভিযোগ নিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন প্রবাসী মহসিন শিকদার (৪২)।

কাপাসিয়া উপজেলার লাগুরী গ্রামের সৌদি প্রবাসী মহসিন ৯ জুন (শুক্রবার) গাজীপুরে এক সংবাদ সম্মেলন করে এসব অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, প্রায় ৮ বছর আগে সুনামগঞ্জ জেলা সদরের বৈষারপাড় এলাকার ডলিকে পরিবারের সম্মতিতে বিয়ে করেন। প্রতি বছর তিনি ছুটি নিয়ে বাড়ি আসতেন। সংসারে তাদের এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। স্বামীর অনুপস্থিতিতে প্রতিবেশী চাচা ফখরুল শিকদারের (৪৫) সঙ্গে ডলির সম্পর্ক গড়ে উঠে। গত ৩ জানুয়ারি তিনি বাড়িতে এসে এই অভিযোগের সত্যতা পান। ওই রাতেই মহসিনের বাড়িতে ফখরুল হামলা করে মোবাইল ফোন, আড়াইশ’ রিয়েল ও একটি টর্চলাইট নিয়ে যায়। যাওয়ার আগে স্ত্রী ডলির পরকীয়ার বিষয়ে মুখ খুললে মিথ্যা মামলায় জড়ানোর হুমকি দিয়ে যায়।

মহসিন আরও বলেন, তিনি বাড়িতে আসার একদিন পর থেকে বাবার বাড়ি যাওয়ার কথা বলে ডলি তিন সন্তান ইশরা (৭), ইলমা (২) ও রুস্তমকে (২) নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। পরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে বাবার বাড়ি না গিয়ে ডলি সন্তানদের নিয়ে ফখরুলের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী সোনারুয়া গ্রামের সজিব ব্যাপারীর বাড়িতে ওঠেন। কিন্তু এর কয়েকদিন পর থেকে তিন সন্তানসহ ডলি নিখোঁজ হন। বিভিন্নস্থানে সন্ধান করেও তাদের পাওয়া যাচ্ছে না। এ ব্যাপারে মহসিন কাপাসিয়া থানায় অভিযোগ নিয়ে গেলে পুলিশ তা গ্রহণ করেনি।

এ বিষয়ে কাপাসিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর চৌধুরী বলেন, তার কাছে কোনও অভিযোগ নিয়ে কেউ আসেননি।

মহসিন সংবাদ সম্মেলনে আরও জানান, ফখরুল মাদকব্যবসায়ী এবং নেশাসক্ত। তার বড় ভাই রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চপদে কর্মরত আছেন। প্রভাবশালী হওয়ায় তার বিরুদ্ধে পুলিশ অভিযোগ নেয়নি। এ বিষয়ে তিনি র‌্যাব-১ এর অধিনায়কের কাছেও অভিযোগ করেছেন। বর্তমানে তার স্ত্রী-সন্তান কোথায় আছে তিনি কিছুই জানেন না। স্ত্রী-সন্তানদের উদ্ধারে তিনি প্রধানমন্ত্রী ও প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

এই সংবাদটি 1,025 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন