সোমবার, ১২ জুন ২০১৭ ০৪:০৬ ঘণ্টা

মুফতি তাহের কাসেমীকে স্বপদে পুনর্বহালের দাবি

Share Button

মুফতি তাহের কাসেমীকে স্বপদে পুনর্বহালের দাবি

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি : নেত্রকোনা জেলার ঐতিহ্যবাহী দ্বীনী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়া মিফতাহুল উলুম মাদ্রাসার মুহ্তামিম মুফতি মোঃ তাহের কাসেমীকে অন্যায় ভাবে বহিস্কার করায় রোববার (১১জুন) বিকালে নেত্রকোনা প্রেসকাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন মুফতি তাহের কাসেমী ও তার অনুসারীরা। সংবাদ সম্মেলনে মুফতি তাহের কাসেমী বলেন, অত্র অঞ্চলে দ্বীনী শিক্ষা প্রসারের লক্ষ্যে ১৯৪২ সালে জেলা শহরের বারহাট্টা রোডে ১২.০৭ শতাংশ জমিতে মিফতাহুল উলুম মাদরাসা প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে প্রায় ২৫ শতাংশ ভূমির উপর মাদরাসার শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে মাদরাসার নামে দানকৃত মাদরাসা সংলগ্ন দক্ষিণ পাশে চারতলা একটি ভবন, দোকানপাট ও জমিজমাসহ মাদ্রাসার নামে অন্তত ২৪-২৫ কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে। প্রতি বছর মাদরাসার বাসা, দোকান ভাড়া ও নিজস্ব ধানী জমি থেকে সহা¯্রাধিক মন ধানসহ অন্তত ৪০-৫০ লক্ষ টাকার মত আয় হয়ে থাকে। মাদ্রাসার এই বিশাল সম্পত্তি ভোগ ও কর্তৃত্ব নিয়ে মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সাথে শিক্ষকদের মতদ্বৈততা ও দ্বন্দ্ব কোন্দলের সৃষ্টি হচ্ছে।
মাদ্রাসার সম্পত্তি ভোগ ও কর্তৃত্ব নিয়ে বিরোধের কারনে বিগত ২০১০ সালে চরম অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়। অচলাবস্থা নিরসনে ২০১০ সালের ১২ আগষ্ট আমাকে মাদ্রাসার মুহতামিম হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। দক্ষতা ও বিচক্ষণতার সাথে কঠোর ভাবে হাল ধরায় অল্প কিছুদিনের মধ্যে মাদ্রাসায় স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসায় ছাত্র শিক্ষক অভিভাবকসহ সকলের মাঝে স্বস্থি ফিরে আসে।
মাদ্রাসার নানা অনিয়ম, কতিপয় শিক্ষকের নেতিবাচক কর্মকান্ড প্রতিরোধ ও কমিটির সদস্যদের কাছে থাকা দোকান ঘরের ভাড়া বৃদ্ধিসহ মাদ্রাসার বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের উদ্যোগ গ্রহন করায় প্রভাবশালী সুবিধাভোগীদের স্বার্থহানীর আশঙ্কায় তারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে আমার বিরুদ্ধে নানা ধরণের ষড়যন্ত্র শুরু করে।
মাদরাসার কাজে গত বছরের ৩ অক্টোবর নেত্রকোনা থেকে মোটর সাইকেল যোগে আটপাড়ায় যাবার পথে দরবেশপুর ব্রিজের কাছে সড়ক দুর্ঘটনায় আমি গুরুতর ভাবে আহত হই।মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির কতিপয় সদস্যরা আমাকে সহায়তার পরিবর্তে নভেস্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আমার চার মাসের অর্ধেক বেতন কর্তন করেন। ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে কমিটির সদস্যরা আমার বিরুদ্ধে সাধারণ ছাত্রদের উস্কানী, অসত্য তথ্য উপস্থাপনসহ মাদরাসার সুনাম বিনষ্টের অভিযোগ আনয়ন করে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি কর্তৃক আমাকে শো’কজ করা হয়।আমি ২৭ ফেব্রুয়ারি শো’কজের জবাব দেই। গত ২৯ এপ্রিল অনুষ্ঠিত ম্যানেজিং কমিটির সভায় ১ মে থেকে আমাকে সাময়িক বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নেন।সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমাকে অন্যায় ভাবে মাদ্রাসা থেকে বরখাস্ত করায় মাদ্রাসার ছাত্র, শিক্ষক, অভিভাবক ও সচেতন ধর্মানুরাগীদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। মাদ্রাসার অধিকাংশ ছাত্র কমিটির এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে গত ২ মে থেকে অনুষ্ঠিত বার্ষিক পরীক্ষা বর্জন করে।সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত মাদ্রাসার বিপুল সংখ্যক ছাত্র, শিক্ষক ও অভিভাবকগণ মুফতি তাহের কাসেমীর অন্যায়ভাবে বরখাস্তের আদেশ প্রত্যাহার করে মাদ্রাসার শিক্ষার অনুকুল ও সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য সরকার ও স্থানীয় প্রশাসনের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেন।

১০১ আলেমের বিবৃতি:

এদিকে, নেত্রকোনা জেলার বিশিষ্ট আলেম, বেফাক জেলা শাখার উপদেষ্টা, হেফাজতে ইসলামের জেলা আমির ও জামিয়া মিফতাহুল উলুম মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুফতি মোহাম্মদ তাহের কাসেমীকে তার পদে পুনর্বহালের জোর দাবি জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন ১০১ জন বিশিষ্ট আলেম। বিবৃতিদাতারা বলেন, ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সুযোগ্য মুহতামিম মুফতি মোহাম্মদ তাদের কাসেমীর বিরুদ্ধে একটি বিশেষ মহল গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। এর ধারাবাহিকতায় দেশে প্রচলিত আইনের তোয়াক্কা না করে সম্প্রতি মুহতামিমের পদ থেকে তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। আমরা এই বরখাস্তের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সাথে বিলম্বে তাকে সসম্মানে স্বপদে পুনর্বহালের দাবি জানাচ্ছি।
লিখিত বিবৃতিতে ১০১ জন স্বাক্ষরকারীর মধ্যে রয়েছেন, এন আকন্দ আলিয়া মাদরাসার অধ্যক্ষ মুহাম্মদ আবদুুল বাতেন, বেফাক জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও জামিয়া হুসাইনিয়া মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা আবদুল কাইয়ুম, বেফাক জেলা শাখার যুগ্ম সম্পাদক মাওলানা মুফতি মামুনুর রশিদ, সুতারপুর মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মোহাম্মদ ইউসুফ, দুগিয়া ফাজিল মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা আবদুুল ফাতাহ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন খান, জামিয়া আরাবিয়া ইশা আতুল উলুম, লক্ষীপুর মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা আবদুুল মজিদ, জামিয়া মাদানিয়া জামিউল উলুম, দুর্গাপুর মাদরাসার মুহতামিম হাফেজ মাওলানা অলিউল্লাহ, সদর উপজেলা মসজিদের খতিব মাওলানা নূরুল আমিন, ছোটবাজার মসজিদের খতিব মুফতি মুহাম্মদ জাকারিয়া,জামিয়া মাদানীয়া নগর বালক-বালিয়া মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা রুহুল আমীন নগরী, জেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মফিজুর রহমান,যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মাওলানা হারুনুর রশিদ,নেত্রকোনা জেলা যুব জমিয়তের সেক্রেটারী মাওলানা মুফাজ্জল হোসাইন প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,325 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন