মঙ্গলবার, ১৩ জুন ২০১৭ ১১:০৬ ঘণ্টা

শক্তি-সংখ্যায় কম হলেও দ্বীনের জন্য সদা  অগ্রসর হওয়া

Share Button

শক্তি-সংখ্যায় কম হলেও দ্বীনের জন্য সদা  অগ্রসর হওয়া

 
রুহুল আমীন নগরী: আজ মঙ্গলবার ১৭ রমজান ১৪৩৮ হিজরী, মোতাবেক ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বাংলা, ১৩ জুন ২০১৭ ঈসায়ী। ঐতিহাসিক ‘বদর’ দিবস আজ। দ্বিতীয় হিজরীর আজকের এই দিনে দুনিয়ার ইতিহাসে গতি পরিবর্তন কারী বদরের যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল। এ যুদ্ধছিল মুসলমান ও মুশরিকদের মধ্যে সত্য-মিথ্যার লড়াই। বদরের যুদ্ধ ইসলামের ইতিহাসের সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপুর্ন এক ইতিহাস। অল্প সংখ্যক মুসলমান তাদের জীবন যৌবন, মান সম্মান সব কিছু বিলীন করেদিলেন আল্লাহর রাহে। মহানবী হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সমীপে সাহাবায়ে কেরাম ঈমানের সর্বোচ্চ নাযরানা পেশ করলেন। রাসুলে খোদা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সমবেত আনসার ও মুহাজেরদের সম্মতি নিয়ে সত্যের সংগ্রামে ব্রতি হলেন। সে এক বিরল ইতিহাসের অপুরন্ত পাঠ, যে পাঠ এই কলামে লেখা সম্ভব নয়। পবিত্র কোরআনে যে কাহিনীর বর্ণনা দিয়েছেন স্বয়ং আল্লাহপাক রাব্বুল আলামিন। স্বল্প সংখ্যক মুসলিম বাহিনী মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সম্মতি প্রাপ্ত হয়ে সর্বপ্রকারের নি: সম্বলতা সত্ত্বে ও নিজেদেরকে সত্য ও মিথ্যার সংগ্রামের জন্য স্বেচ্ছাপ্রণোদিত এবং উৎসর্গিত প্রাণের পবিত্র আবেগের সাথে পেশ করে দিলেন।
পবিত্র কোরআনে যে সমস্ত গুরুত্বর্পূণ গাযওয়ার উল্লেখ রয়েছে, তার মধ্য ‘গাযওয়ায়ে বদর’ বিশিষ্ট মর্যাদার অধিকারী। বদর হলো একটি কূপের নাম , সাথে সংযুক্ত উপত্যকাটিকে ও ‘বদর’ বলা হয়। এ উপত্যকাটি মক্কা ও মদীনার মাঝে মদীনার ‘সুলতানী সড়কের’ উপর অবস্থিত। হুক’মতে উসমানীর শাসনামলে মক্কা হতে মদীনা যাওয়ার জন্য যে মহাসড়ক র্নিমাণ করা হয়েছে তাকে ‘সুলতানী সড়ক’ বলা হয়। এ স্থানেই ঐতিহাসিক গাযওয়ায়ে বদর সংঘটিত হয়, যা দুনিয়ার ধর্ম ও মাযহাবসমুহের ইতিহাসেই নয় বরং জীবনের প্রত্যেকটি শাখারই গতি পরিবর্তন কওে অত্যাচার ও উৎপীড়ন হতে ন্যায়ের দিকে প্রত্যার্বতন করেছে। উল্লেখ্য যে, আল্লাহর পথে জেহাদ করার ব্যাপারে যে সেনাবাহিনীর সঙ্গে স্বয়ং রাসুলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অংশ গ্রহণ করেন, তাকে ‘সাযওয়াহ’ বলা। বদরের যুদ্ধ ইসলামের ইতিহাসের প্রথম সামরিক অভিযান। নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বদরের উদ্দেশ্যে রওয়ানাকালে তাঁর সঙ্গে তিনশর কিছু বেশী সংখক সাহাবী ছিলেন। এ সংখ্যা কারো মতে ৩১৩, কারো মতে ৩১৪ এবং কারো মতে ৩১৭। তাদের মধ্যে ৮২, মতান্তরে ৮৩ , মতান্তরে ৮৬ জন মোহাজের ,বাকি সকলেই ছিলেন আনসার। আনসারদের মধ্যে ৬১ জন আওস আর ৭০ জন খাযরাজ গোত্রের অর্ন্তভুক্ত ছিলেন। এই যুদ্ধে মুসলিম বাহিনী যুদ্ধের জন্যে বিশেষ কোনো ব্যবস্থা বা তেমন কোনো প্রস্তুতি নেয়নি। সমগ্র সেনাদলে ঘোড়া ছিলো মাত্র ২টি। একটি হযরত যোবায়ের ইবনে আওয়াম (রা.) এর অন্যটি হযরত মেকদাদ ইবনে আসওয়াদ কেন্দি (রা.) এর । ৭০ টি উট ছিলো, প্রতিটি উটে দুই বা তিন জন পালাক্রমে আরোহন করতেন। একটি উটে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম , হযরত আলী (রা.) এবং হযরত মারসাদ ইবনে আবূ মারসাদ গানাবী (রা.) পালাক্রমে আরোহন করছিলেন। (সূত্র : আর রাহীকুল মাখতুম-আল্লামা ছফিউর রহমান মোবারকপুরী)
রাসুলে কারীম রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদীনায় আগমনের পর ইসলামী রাজনীতির সর্বপ্রথম বুনিয়াদ প্রতিষ্ঠিত করেন। মুহাজেরীন ও আানসারদের স্বদেশী ও স্বজাতীয় সাম্প্রদায়িকতাকে মিটিয়ে দিয়ে ইসলামের নামে এক নতুন জাতীয়তা প্রতিষ্ঠা করেন। মুহাজেরীন ও আনসারদের বিভিন্ন গোত্রকে ভাই-ভাইয়ে পরিণত করে দেন। আর হুযুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালা আনসারদের সে সমস্ত বিরোধও দূর করে দেন যা শতাব্দীর পর শতাব্দী থেকে চলে আসছিল। এবং মুহাজেরীনদের সাথেও তিনি পারস্পরিকভাবে ভাই ভাই সম্পর্ক স্থাপন করেন। (তাফসীরে মা’আরেফুল কোরআন)
যারা আল্লাহ তা’য়ালার পরিপূর্ণ আনুগত্য করার পথে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করবে, তাদেরকে সর্বশক্তি দ্বারা প্রতিহত করা ঈমানের দায়িত্ব। এরই নাম জেহাদ। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সুন্নত অনুযায়ী জীবনযাপন এবং দ্বীনের জন্য অবিরাম জেহাদই কেবলমাত্র ঈমানের পরিপূর্ণতা ও আল্লাহ তা’আলার সন্তুষ্টির পথেপরিচালিতকরে। নিষ্টার সাথে এ দুটি কাজ করে যাওয়াই সুলূক বা তাসাউফ। যুদ্ধ জয়ের প্রধান কৌশল কী ? এ প্রশ্নের জবাবে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান অনূদিত তাফসীরে মা’আরেফুল কোরআনে উল্লেখ করা হয়েছে: যুদ্ধ জয়ের প্রধান কৌশলরূপে আল্লাহ পাক মুসলমানগণকে দু’টি কৌশল শিক্ষা দিয়েছেন। প্রথমমত: দৃঢ়তা অবলম্বন। শত্রুপক্ষের আক্রমন যত তীব্রই হোক না কেন, দৃঢ়তার সাথে তার মোকাবেলা করতে হবে এবং যেকোন বিপদে স্থির থাকতে হবে। দ্বিতীয় কৌশলটি হচ্ছে আল্লাহর যিকির । নারায়ে-তাকবির আল্লাহু আকবার-এর গগনবিদারী আওয়াজই হচ্ছে যিকিরের প্রধান বাক্য। এটি বারবার উচ্চারণ করলে আল্লাহর পক্ষ থেকেই শত্রুর মনে ত্রাস ও ভীতির সৃষ্টি কওে দেওয়া হয়। এ কারণেই নারায়ে তকবীরের শ্লোগানটি আল্লাহর দ্বীনের দুশমনদের নিকট অপ্রিয় ও ভীতিজনক। এমনকি মুনাফেক চরিত্রের মুসলমানদের নিকট ও এ শ্লোগান বিরক্তিকর। সে মতে ঈমানদারগণের পক্ষে যত বেশী সম্ভব এ শ্লোগান উচ্চরণ করা কর্তব্য। এর দ্বারা একাধারে মুজাহেদগণের মনে হিম্মত, শত্রুর মনে ভীতি সৃষ্টি হয় এবং মুজাহেদগনের প্রতি আল্লাহর রহমত বর্ষিত হতে থাকে।
১৭ রমজান বদরের প্রান্তরে হক্ব-বাতিলের তুমুল যুদ্ধ চলছে, এমতাবস্থায় আল্লাহপাক সকলকে তন্দ্রাচ্ছন্ন করে দিলেন, এর কয়েক মিনিট পরে জাগ্রত করে তাদের মধ্যে এক নতুন প্রাণের সনচার করে দেয়া হলো। সাহাবায়ে কেরাম জীবনের সকল মোহনীয় শক্তির উর্ধেউঠে শাহাদাতের তামান্না নিয়ে , জান্নাতের সমীরণে উজ্জীবীত হয়ে নবীপ্রেমে মত্ত হয়ে ময়দানে ঝাপিয়ে পড়লেন।
মুসলিম বাহিনী প্রথমে পরাজয়ের মনোভাব নিয়ে যুদ্ধ করলে ও দোয়া শেষে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যুদ্ধক্ষেত্রে যখন তাশরীফ এনে একমুষ্টি ধুলি ও কংকর, ‘‘শত্রুদের মুখমন্ডলসমুহে অন্ধকার হয়ে যাক’’ বলতে বলতে ,শত্রুদের দিকে নিক্ষেপ করলেন। তখন আল্লাহর অলৌকিক বায়ু দ্বারা তা মুশরিকদের চক্ষু বিদ্ধ হলো। বদরের যুদ্ধ যদি সংঘটিত না হতো এবং মক্কার মুশরিকদের শক্তি পরাভ’ত ও বির্চুণ না হত, তবে নি: সন্দেহে সমগ্র বিশ্বজগতের জল ও স্থল ভাগে যুলুম অবাধ্যতাচরণ এবং বাতিলে পরির্পূণ হয়ে যেত। চিত্তের স্বাধীনতা বিলুপ্ত হয়ে যেত, সত্যের প্রেরণা ও আবেগ মুছে যেত এবং এ সবের স্থলে অত্যাচার ও উৎপীড়ন নিজের স্থান করে নিত।
সারকথা হলো বদরের যুদ্ধক্ষেত্রে সত্য বিজয় এবং সফলতা লাভ করলো। আর এ বিজয় ও সাফল্য শুধু মুসলমানদের জন্যই ছিলনা , বরং সমগ্র মানব জাতির উপর বিরাট অনুগ্রহ ছিল। সতেরো-ই রমজান বদরের কাহিনী থেকে এটা প্রমানিত হলো যে, জয় ও পরাজয় সংখ্যাধিক্য ও সংখ্যাস্বল্পতার উপর নির্ভরশীল নয়। বরং শুধু আল্লাহ তা‘য়ালার দয়া ও অনুগ্রহের উপরই র্নিভর করে। তাই প্রতিটি মুমিনের উচিত হলো শক্তি-সংখ্যায় কম হলেও দ্বীনের জন্য সদা বাতিলের মোকাবেলায় অগ্রসর হওয়া। আল্লাহপাক বিশ্বের আনাচে কানাচে অবস্থান রত সকল মুসলিম বাহিনীকে আসহাবে ‘বদর’রন্যায় ঈমানী জযবা, শক্তি-সাহস দান করুন। আমীন।

এই সংবাদটি 1,020 বার পড়া হয়েছে