বুধবার, ১৪ জুন ২০১৭ ১২:০৬ ঘণ্টা

জামিআ সিদ্দিকীয়ায় মুফতি আ. যাকারিয়া : কুরআনের সাথে সম্পর্ক বৃদ্ধি করতে হবে

Share Button

জামিআ সিদ্দিকীয়ায় মুফতি আ. যাকারিয়া : কুরআনের সাথে সম্পর্ক বৃদ্ধি করতে হবে

সিলেট রিপোর্ট: জামেয়া কাসিমুল উলুম  দরগাহ হযরত শাহজালাল (রাহ.) মাদরাসার মুহতামিম মুফতি আবুল কালাম যাকারিয়া বলেছেন, মানুষকে পরিশীলিত ও মানবিক করতে কুরআন অবতীর্ণ হয়েছে। রমজানকে আল্লাহ পাক কুরআনের মাস হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন। প্রতিবছর রমজান আসে কুরআনের নীতি বাস্তবায়নের অনুশীলপর্ব হিসেবে। কুরআন চর্চার মাধ্যমে প্রত্যেক মানুষকে নীতিবান ও মানবিক হবার শিক্ষা নিতে হবে।
মঙ্গলবার (১৭ রমজান)  সিলেট নগরীর বালুচরস্থ জামিআ সিদ্দিকীয়ায় দোয়া ও ইফতারপূর্ব আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মুফতি আবুল কালাম যাকারিয়া তাঁর বক্তব্যে আরও বলেন, রমজানের মতো বসন্ত পেয়েও যদি আমরা আমাদের গোনাহ মাফ করতে না পারি যেটা আমাদের দুর্ভাগ্য। রমজানের সিয়াম সাধনা আমাদের মুত্তাকী হতে সাহায্য করে, এ মাসে কুরআন নাযিল হয়েছে কাজেই কুরআনের সাথে সম্পর্ক বৃদ্ধি করতে হবে। কুরআনের আদেশ নিষেধ জীবনে প্রতিফলিত করে নিজেদেরকে সংশোধন করতে হবে। যে রমজান পেয়েও গোনাহ মাফ করতে পারলো না তার চেয়ে দুর্ভাগা নেই।
জামিআ সিদ্দিকিয়ার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সৈয়দ মবনুর সভাপতিত্বে ও উপ-পরিচালক মাওলানা রেজাউল হকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সিলেট ল’ কলেজের অধ্যক্ষ অ্যাডভোকেট সৈয়দ মহসিন আহমদ, সিলেট কৃষিবিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীপুষ্টি বিভাগের অধ্যাপক ডক্টর জাসিম উদ্দীন, সিলেট ক্যাডেট কলেজের সাবেক অধ্যাপক বজলুর রহমান, সিলেট কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী, সিলেট সদর উপজেলার ৫নং টুলটিকর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলী আহমদ, জামেয়া হোসাইনিয়া দলদলীর পরিচালক মুফতী আলী আহমদ, জামিআ সিদ্দিকীয়ার শিক্ষা সচিব মুফতি কামরুল হাসান, জামিআ সিদ্দিকিয়া (জোনাকী শাখার) পরিচালক মাওলানা জিয়াউল হক, সিলেট রিপোর্টের সম্পাদক মাও. রুহুল আমীন নগরী, দৈনিক প্রভাতবেলার স্টাফ রিপোর্টার মাওলানা ইকবাল হাসান জাহিদ, জামিআ সিদ্দিকিয়ার সুধী শামীম আহমদ চৌধুরী পিয়েল, সফিক-রফিক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক আব্দুল বাছিত, শৈলীর সভাপতি হেলাল হামাম, হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা রুহুর আমিন চৌধুরী উজ্জল, সাবেক ছাত্র মাওলানা আব্দুর রহীম, আঞ্জুমানে আল ইসলাহর সাবেক জেলা সেক্রেটারি মাও. আব্দুল আলিম প্রমূখ।

এই সংবাদটি 1,058 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন