বুধবার, ১৪ জুন ২০১৭ ০১:০৬ ঘণ্টা

রিমান্ডে পুলিশকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে রাকেশ রায়

Share Button

রিমান্ডে পুলিশকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে রাকেশ রায়

সিলেট রিপোর্ট: ফেসবুকে ইসলাম ধর্ম ও মুহাম্মদ (স.) কে নিয়ে কটুক্তিসহ প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকির ঘটনায় গত ৭ জুন বুধবার ভারতে পালানোর সময় আটক রাকেশ রায় রিমান্ডে পুলিশকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। তবে আলোচিত দু’টি ফেসবুক পোস্টের বিষয়ে সে একেক সময় একেক রকম তথ্য দিয়ে পুলিশকে বিভ্রান্ত করেছে বলে আদালতকে জানিয়েছেন রাকেশ রায়ের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মোঃ মমিনুল ইসলাম। রিমান্ড শেষে আদালতে দেয়া এক প্রতিবেদনে তিনি বলেন, রাকেশ রায়কে তার ফেসবুক আইডি ও আইডি থেকে প্রদত্ত ধর্মীয় উস্কানীমূলক ও হুমকি সম্বলিত পোস্টের বিষয়ে রিমান্ডে ধারাবাহিকভাবে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে আলোচিত দু’টি পোস্টের বিষয়ে একেক সময় একেক ধরণের তথ্য প্রদান করে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে উক্ত পোস্টগুলি তার নামীয় আইডি থেকে প্রচারের বিষয়টি জানালেও তদন্তকালীন সময়ে তার ফেসবুক আইডিতে প্রবেশ করতে পারেনি পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে রাকেশ রায় তার ফেসবুক আইডি সম্পর্কে পর্যাপ্ত তথ্য প্রদান করেছে মর্মে তদন্তকারী কর্মকর্তা মোঃ মমিনুল ইসলাম আদালতকে লিখিতভাবে জানিয়েছেন। তবে আলোচিত পোস্ট দু’টিসহ বিস্তারিত বিষয় জানতে পুলিশ পুনরায় রাকেশ রায়কে রিমান্ডে আনতে পারে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।
উল্লেখ্য যে, সম্প্রতি ফেসবুকে রাকেশ রায় নামক একটি ফেসবুক আইডি থেকে ইসলাম ধর্ম ও মুহাম্মদ (স.)কে নিয়ে কটুক্তিসহ দেশের প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকির ঘটনায় উত্তেজিত হয়ে উঠে জকিগঞ্জসহ সিলেটের ধর্মপ্রাণ মানুষ। রাকেশকে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবীতে সর্বত্র সভা, সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়। এ ঘটনায় জকিগঞ্জ পৌর এলাকার পঙ্গবট গ্রামের ফুযায়েল আহমদ জকিগঞ্জ উপজেলার কেরাইয়া গ্রামের মৃত সুরেশ রায়ের পুত্র রাকেশ রায়ের বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন ২০০৬ (সংশোধীত/২০০৩) এর ৫৭ (২) ধারায় জকিগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- ০৩, তাং- ০৫/০৬/২০১৭ইং। মামলার প্রেক্ষিতে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার লালাখাল নামক স্থান থেকে রাকেশ রায়কে আটক করে জকিগঞ্জ থানা পুলিশ।

এই সংবাদটি 1,112 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন