বুধবার, ১৪ জুন ২০১৭ ০১:০৬ ঘণ্টা

লন্ডনে আগুন , পুড়ছে ২৭ তলা ভবন

Share Button

লন্ডনে আগুন , পুড়ছে ২৭ তলা ভবন

 


লন্ডনে আগুন , পুড়ছে ২৭ তলা ভবন

 

ডেস্ক রিপোর্ট: লন্ডনের পশ্চিমাংশে একটি ২৭ তলা আবাসিক ভবন আগুনে জ্বলছে। আগুনে ভবনের একেবারে নিচতলা থেকে শুরু করে ২৭ তলা পর্যন্ত ছেয়ে গেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছে, ভবনে বহু মানুষ আটকা পড়েছে।

 

বিবিসি জানিয়েছে, নটিংহিলের কাছে লাটিমার রোডে ২৭ তলা গ্রেনফেল টাওয়ারে স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাত ১টা ১৬ মিনিটে আগুন লাগার খবর পায় ফায়ার সার্ভিস। বহুতল এই ভবনটি ১৯৭৪ সালে নির্মিত হয়েছে। অন্তত ২৪ তলার এ ভবনটিতে ১২০টি ফ্লাট রয়েছে। তবে ভবনটি ২৪ তলা নাকি ২৭ তলা এ নিয়েও ভিন্ন ভিন্ন তথ্য রয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, আগুনে ভবনের একাংশ ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছে। প্রাথমিকভাবে দুইজনকে নিঃশ্বাসে প্রদাহজনিত চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। উদ্ধার তৎপরতা চলছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের সরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে হতাহতের কোনো খবর জানা যায়নি। তবে ভবনের বাসিন্দাদের নিয়ে স্বজনেরা চিন্তিত, অনেকের সঙ্গে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। তারা বেঁচে আছে কিনা সে বিষয়ে জানতে চাইছেন অনেকে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই আগুন লাগা ওই ভবনের ছবি ও ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ করেছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে ভবনের ভেতরে অনেকে আটকে রয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছে, তারা ছাদের ওপর থেকে আলো নাড়ানো দেখেছে। তাদের ধারণা ভবনের লোকজন ছাদের ওপর থেকে টর্চের আলো দিয়ে সাহায্য চাইছে। আর্তনাদও তারা শুনতে পেয়েছেন। তাদের ভাষ্য অনুযায়ী ছাদে আগুন পৌঁছাতে আর বেশি দেরী নেই।

বিবিসির অ্যান্ডি মুর জানান, ‘পুরো ভবনটি আগুনে জ্বলছে এবং ভবনটি ধসে পড়ারও আশঙ্কা করা হচ্ছে। ভবন থেকে ধ্বংসাবশেষ পড়তে দেখছি। আমরা বড় বিস্ফোরণের শব্দও শুনেছি। কাঁচ ভাঙার শব্দও পেয়েছি।”

বিবিসির সাইমন লেডারমেন জানান, ‘ভবনটি যেভাবে জ্বলছে কয়েক মাইল দূর থেকে তা স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। ভবনের আগুন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে।’

প্রায় ২০০ ফায়ার ফাইটার সেখানে আগুন নেভাতে কাজ করছেন এবং বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে লন্ডন মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। আগুন নেভাতে এসেছে ৪০টি ফায়ার ইঞ্জিন।  

লন্ডন ফায়ার ব্রিগেডের অ্যাসিস্টেন্ট কমিশনার ডেন ডেলি বলেন, ‘পরিস্থিতি ভয়াবহ। এমন জটিল পরিস্থিতি সামাল দেয়ার চেষ্টা করছেন দমকলকর্মীরা। অনেক বড় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা এটি এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আমরা আমাদের সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছি।’

আগুনের ধোঁয়ায় অসুস্থ হয়ে পড়া কয়েকজনকে চিকিৎসাও দেয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে। লন্ডন অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসের জরুরি বিভাগের কর্মকর্তাদেরও ভবনটিতে পাঠানো হয়েছে। আগুনের কারণে লন্ডন পাতাল রেলের হ্যামারস্মিথ এবং সিটি ও সার্কেল লাইন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

লন্ডনের মেয়র সাদিক খান এটাকে “অত্যন্ত গুরুতর ঘটনা” বলে বর্ণনা করেছেন।

জর্জ ক্লার্ক নামের একজন প্রত্যক্ষদর্শী বিবিসি রেডিও ফাইভকে জানিয়েছেন “আমার সারা গায়ে ছাই লেগে গেছে। আগুনটা কত ভয়াবহ হতে পারে চিন্তা করুন। আমি প্রায় ১০০ মিটার দূরে এবং পুরোপুরি ছাইয়ে ঢেকে গেছি। এটা অত্যন্ত মর্মান্তিক ঘটনা। আমি দেখেছি ভবনের উপরের দিকে কেউ টর্চ জ্বালাচ্ছিল। তারা অবশ্যই বের হতে পারেনি। হয়তো তারা বেঁচে নেই।”

জডি মার্টিন নামে আরেকজন জানান, আগুন দেখার পর তিনি দৌড়ে ভবনটির কাছে গিয়ে বাসিন্দাদের বের হয়ে আসতে বলেন। কিন্তু ভবনে আটকে থাকা লোকজন চিৎকার করে বলছিলেন তাদের বাইরে বের হবার উপায় নেই। কারণ করিডোরের ভেতরটা পুরোটা ধোঁয়ায় ভরে গিয়েছিল।

এই সংবাদটি 1,087 বার পড়া হয়েছে