শুক্রবার, ১৬ জুন ২০১৭ ০১:০৬ ঘণ্টা

বাহুবল পাবলিক লাইব্রেরীর বই নষ্ট হচ্ছে, দেখার কেউ নেই

Share Button

বাহুবল পাবলিক লাইব্রেরীর বই নষ্ট হচ্ছে, দেখার কেউ নেই

বাহুবল প্রতিনিধি: হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল উপজেলা সদরের একমাত্র পাবলিক লাইব্রেরীটি পাঁচ বছর ধরে পাঠক বিহীন। চারদিকে ঘাসের স্তুপ। নেই কোন মানব পদ চিহ্ন। দিনরাত ২৪ঘন্টার ভেতর পাঠকের জন্য কখনো দরজা খোলা হয় না। নেই কোন কেয়ারটেকার কিংবা লাইব্রেরীয়ান। নেই পরিচালনা কমিটি। তবে লাইব্রেরীর নামে নিয়মিত আনা হয় নানা সরকারি- বেসরকারী অনুদান।
ঐতিহ্যবাহী বাহুবল পাবলিক লাইব্রেরীটি একসময় এই অঞ্চলের সাহিত্য সাংস্কৃতির প্রাণকেন্দ্র ছিল বলে জানিয়েছেন লাইব্রেরীর প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারি আব্দুল আওয়াল তহবিলদার সবুজ। তিনি আরো জানান একসময় লাইব্রেরীতে স্কুল কলেজের ছাত্র ও সাধারন পাঠকের পদচারনায় মূখর ছিল। গত পাঁচ বছর যাব্ৎ পরিচালনার কোন কমিটি নেই। স্থানীয় সাংবাদিক নুরুল ইসলাম মনি জানান, তিনি গত বছরও বাহুবল পাবলিক লাইব্রেরীর উন্নায়নের জন্য স্থানীয় মহিলা এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরীর মাধ্যমে ৮০হাজার টাকা অনুধান এনে দিয়েছেন। কিন্তু কোন কাজ হয়েছে কি না তিনি জানেন না। লাইব্রেরীর সাবেক সেক্রেটারী রুহুল আমিন আখন্জি এই প্রতিবেদককে জানান, আমি গত ছয় মাস আগে একটিক্লাবেরঅনুষ্টানে লাইব্রেরীতে প্রবেশ করেছিলাম, দেখলাম শত শত বই নষ্ট হয়ে ইউ পোকাদের খাদ্য হয়েছে। আমার সময়ের কেনা বাংলা পিডিয়া ও রবিন্দ্র সমগ্রর মতো অনেক ভলিয়মের বহু খন্ড সহ প্রচুর বই লাইব্রী থেকে চুরি হয়ে গেছে। লাইবেরীর অপর সাবেক সেক্রেটারী সুহেল আহমদ কুটি জানান, একটি ক্লাব সহ নানা প্রতিষ্টান এতে অবৈধভাবে জোড় করে অফিস বানিয়ে দখল করে। এতে করে লাইব্রেরী তার পাঠক হারায়। এখন পুরোপুরি ধ্বংসের পথে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার পদাধিকার বলে লাইব্রেরীর সভাপতি। একের পর এক ইউএনও আসেন -যান স্থানীয় সাহিত্য সাংস্কৃতি কর্মীরা তাদের কাছে লাইব্রেরী পূনরায় চালু করার জন্য ধরনা দেন। কিন্তু রহস্য জনক কারণে তারা লাইব্রেরীর ব্যাপারে কোন উদ্দ্যোগ গ্রহন করছেন না। তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্থানীয় তরুনরা এটা নিয়ে এখন প্রচুর কথা বলছেন। অনেকে লাইব্রেরী উদ্ধারে প্রয়োজনে হাইকোটে রীট করার কথা বলছেন। তিনি একজন সেক্রেটারীকে দায়ী করে বলেন, পদ আকঁরে ধরে রাখায় দুর্নীতি ও লুটপাটে লাইবেরী ধ্বংসের কারণ বলে জানান।
সম্প্রতি বেসরকারি উন্নায়ন সংস্থ এফআইভিডিবি, রীড প্রকল্প, স্যাভ দ্যা সিলডেনের অর্থায়নে বাহুবল পাবলিক লাইব্রেরীতে প্রতিটি ৪৫ হাজার টাকা মূল্যের ৫টি ট্যাবসহ নানা উপকরণ দিয়েছে বলে এফাইভিডিবির রীড প্রকল্পের টেকনিক্যাল অফসার আব্দুস সেলিম আকাশ জানিয়েছেন। দুই লক্ষ টাকার এই ট্যাব, রাউটার, প্রযোজনীয় শিশু কর্ণারের শিক্ষা উপকরণ ও পুস্তক লাইব্ররীকে দিয়েছে। তবে স্থানীয় শিক্ষানুরাগীরা জানান কাগজে কলমে সব ঠিক থাকলেও থালাবদ্ধ এই লাইব্রেরীতে রীড প্রকল্পের কোন কাজ নেই। পঠন পাঠনের কোন সুযোগ নেই।
তবে বিষয়টিকে অন্যভাবে ব্যাখ্যা করেছেন বাহুবল উপজেলা নির্বাহী অফিসার জসিম উদ্দিন।
তিনি বলেন “গ্রন্থাগারটি বন্ধ তা বলা যাবে না। পাঠক না আসায় আমরা মাঝে মধ্যে তালা খুলি। তাছাড়া আমাদের কোনো লাইব্রেরিয়ান নেই যে প্রতিদিন লাইব্রেরইটি খুলবে। বর্তমানে সেটি ব্যবহার করছে উপজেলা মডেল প্রেস ক্লাব এবং নজরুল একাডেমীর সদস্যরা।”
গণগ্রন্থাগার কেন প্রেসক্লাব ও নজরুল একাডেমী ব্যবহার করবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “প্রেসক্লাবের লোকেরা অনেক আগে থেকেই লাইব্রেরি ব্যবহার করে আসছে।”
টাকা আত্মসাতের ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, “এখনো কিছু বলতে পারব না। কারণ আমি নতুন নিয়োগ হয়েছি। লাইব্রেরিকে সচল করতে ইতোমধ্যে আমি পদক্ষেপ নিয়েছি। আশা করি সফল হব এবং টাকার বিষয়টা আমি খতিয়ে দেখব।”

এই সংবাদটি 1,023 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন