শুক্রবার, ১৬ জুন ২০১৭ ০৩:০৬ ঘণ্টা

সৈয়দপুর ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট’র কমিটি গঠন

Share Button

সৈয়দপুর ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট’র কমিটি গঠন

সিলেট রিপোর্ট: জগন্নাথপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহি গ্রাম সৈয়দপুরে উদ্যমি ও শিক্ষিত তরুণদের সমন্বয়ে সৈয়দপুরের গরিব- দুঃখি তথা অসহায় মানুষদের কল্যাণে কাজকরতে ”সৈয়দপুর ওয়েলফেয়ার ”নামে নতুন একটি সামাজিক সংগঠণ গঠন প্রতিষ্ঠা করা হয়। এ উপলক্ষে গত ১৪ জুন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা প্রভাষক সৈয়দ আয়েশ মিয়ার সভাপতিত্ত্বে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সর্ব সম্মতিক্রমে সৈয়দ আয়েশ মিয়াকে সভাপতি ও মল্লিক কাউছার আহমদকে সাধারণ সম্পাদক করে ৭ সদস্যের প্রেসিডিয়াম কমিটি এবং ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্যান্য দায়িত্বশীলরা হলেন সহকারি সম্পাদক মোঃ সুজেল মিয়া, যুগ্ম সম্পাদক শেখ নাহির আহমদ, অর্থ সম্পাদক হাফিজ মোঃ আব্দুল জলিল, সহকারি অর্থ সম্পাদক সৈয়দ ইয়াহইয়া আহমদ ও সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ ইমন মিয়া প্রমূখ। ঈদের পর বর্ধিতসভা সভা করে বাকি পদগুলো পূরণ করা হবে।

সভাপতির বক্তব্যে সৈয়দ আয়েশ মিয়া বলেন – সৈয়দপুর শিক্ষা- সাহিত্য- সংস্কৃতি এবং আর্থিকভাবে প্রবাসী অধূ্ষ্যিত সিলেট বিভাগের মধ্যে একটি উন্নতমান সম্পন্ন ধনি এলাকা। তবুও এ গ্রামের কিছু মানুষ রয়েছে যারা দরিদ্র সীমার নিচে বসবাস করতেছে। এ সমস্হ দরিদ্র মানুষের কল্যাণে কিছু একটা করার জন্য আমরা কতিপয় শিক্ষিত ও মানবতাপ্রেমিক তরুণরা মিলে এ সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছি। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মল্লিক কাউছার আহমদ বলেন – আমাদের সৈয়দপুরের যারা দরিদ্র – অসহায় মানুষ রয়েছেন তাদের জন্য কিছু একটা করার লক্ষ্য নিয়ে আমরা সৈয়দপুর ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট গঠণ করেছি। আমরা দরিদ্র মানুষের একটি তালিকা করছি, এ তালিকা অনুসারে আমরা প্রতিমাসে তাদের জন্য কিছু খাদ্যসামগ্রী প্রদানের ব্যবস্হা করবো। আমরা দেশি- প্রবাসী সবার দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করছি।

এই সংবাদটি 1,016 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন