শুক্রবার, ১৬ জুন ২০১৭ ১১:০৬ ঘণ্টা

ফাউন্ডেশন অফ গ্রেটার জৈন্তা’ নিউইয়র্ক ‘র ইফতার অনুষ্ঠিত

Share Button

ফাউন্ডেশন অফ গ্রেটার জৈন্তা’ নিউইয়র্ক ‘র ইফতার অনুষ্ঠিত

নিউইয়র্ক প্রতিনিধি: প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর ঐতিহ্যের ধারক বাহক ও খনিজ সম্পদে ভরপুর বৃহত্তর জৈন্তা(জৈন্তাপুর-গোয়াইনঘাট-কানাইঘাট-কোম্পানীগন্জ) এলাকার উন্নয়নে, প্রবাসীদের সমন্বয়ে (২০১৬ সালে গঠিত) “ফাউন্ডেশন অফ গ্রেটার জৈন্তা” নিউইয়র্ক এর ইফতার ও দো’য়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৫ই জুন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা আটটায় নিউইয়র্কের বাংলাদেশী অধুষ্যিত জ্যাকসন হাইটসের টক অফ দ্যা টাউন রেস্টুরেন্টের হল রুমে অনুষ্ঠিত মাহফিলে সংগঠনের উপদেষ্টা,বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ জনাব ফারুক আহমেদ এর সভাপতিত্বে ও সংগঠনের প্রেসিডেন্ট রশীদ আহমদ এর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে আলোচনা পেশ করেন জালালাবাদ এসোসিয়েশন অফ আমেরিকা ইনক এর সভাপতি জনাব বদরুল খান।বিশেষ অতিথি ছিলেন জালালাবাদ এসোসিয়েশন অফ আমেরিকা ইনক এর ট্রাস্টি সদস্য জনাব একলিমুজ্জামান নুনু,রূপসী বাংলা চাঁদপুর এসোসিয়েশন এর সেক্রেটারী জনাব ফখরুল ইসলাম মাসুম,তরুণ রাজনীতিবিদ ও জালালাবাদ এসোসিয়েশন অফ আমেরিকা ইনক এর প্রাক্তন সহ-সভাপতি মুহাম্মদ ইমদাদ চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সেক্রেটারী জামীল আনসারী।শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সহ সভাপতি মুহাম্মদ বুরহান উদ্দিন,গোয়াইনঘাট প্রবাসী সমাজ কল্যাণ পরিষদ যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি ইফতেখার আহমদ হেলাল। আরো উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক এমদাদ হোসেন চৌধুরী দীপু,জনাব মুমিনুল ইসলাম মজুমদার, তরুণ সমাজ সেবক জনাব দুরুদ মিয়া রনেল,জনাবা আফিয়া বেগম, ব্যবসায়ী মুহাম্মদ জিলানী,জনাব আবদুল মালেক,ফাউন্ডেশন অফ গ্রেটার জৈন্তা,নিউইয়র্ক এর সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক বিদ্যুত দেব,প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মহসীন মাসরুর,সদস্য মুহাম্মদ আবদুল আজিজ,সদস্য ও গোয়াইনঘাট প্রবাসী সমাজ কল্যাণ পরিষদ যুক্তরাষ্ট্র শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ কামরুল পায়েস, মুহাম্মদ আবদুল্লাহ প্রমূখ। এছাড়াও নিউইয়র্কে বসবসরত বৃহত্তর জৈন্তা’র অনেক প্রবাসীরা উপস্থিত ছিলেন। মাহফিলের দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে মুনাজাত পরিচালনা করেন সংগঠনের অন্যতম সহ-সভাপতি মাওলানা আনোয়ার হোসেন।

এই সংবাদটি 1,031 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন