শনিবার, ১৭ জুন ২০১৭ ০১:০৬ ঘণ্টা

জৈন্তাপুরে ‘বাতায়ন’র সাপ্তাহিক আসর ও ইফতার সম্পন্ন

Share Button

জৈন্তাপুরে ‘বাতায়ন’র সাপ্তাহিক আসর ও ইফতার সম্পন্ন

.সিলেট রিপোর্ট: শিল্প, বিজ্ঞান, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘বাতায়ন’র উদ্দোগে ‘বদর দিবসের আলোচনা, ইফতার মাহফিল ও ৩৪ তম ধারাবাহিক সাপ্তাহিক আসর ১৬ জুন দরবস্ত বাজারস্থ বাতায়ন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন জৈন্তাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জয়নাল আবেদীন। বাতায়ন পরিচালক রাসেল আহমদ মাহফুজের সভাপতিত্বে ও বিজ্ঞান বিভাগীয় পরিচালক মুশাহিদ আলী, সংস্কৃতি বিভাগীয় পরিচালক আবু মাসরুর ও বাতায়ন পাঠাগার উপপরিচালক লুৎফুল করীম রাজ্জাকের যৌথ উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত মাহফিলে তেলাওয়াত করেন সাহিত্য বিভাগীয় উপপরিচালক মুজিবুর রহমান। সংগীত পরিবেশেন করেন বাতায়ন শিল্পীগোষ্ঠীর সংগীত পরিচালক তারিফ বিন নূর ও কিশোর শিল্পী রেজওয়ানুল করীম।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জমিয়ত নেতা মাওলানা ওলিউর রহমান, বিএনপিনেতা বাহারুল আলম বাহার চেয়ারম্যান, শিক্ষাবিদ গুলজার সিরাজী, বিশিষ্ট মুরব্বী আব্দুল হক, জমিয়তনেতা মাওলানা কবির আহমদ, যুবলীগনেতা কুতুব উদ্দীন, হাফিজ মাসউদ আজহার, মাওলানা রজব আলী, হাফিজ জয়নুল আবেদীন ডালিম, ফজলে রাব্বী আফজল সাজু, মনসুর আহমদ, মুকুল আহমদ, লোকমান উদ্দীন, প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বদরের চেতনায় আবারো জেগে ওঠার আহ্বান জানিয়ে বলেন- ইসলামী বিশ্ব আজ যেনো রণক্ষেত্র। ট্রাম্পীয় আক্রমণে অস্থির মধ্যপ্রাচ্য। যেন মহাপ্রলয়ের ঠিক আগমুহূর্তে অবস্থান করছে পৃথিবী। বর্তমান বিশ্বপরিস্থিতি বলছে অচিরেই কিছু একটা ঘটতে যাচ্ছে। মার্কিন-কুরিয়ার মারমুখো অবস্থান সেই অাশঙ্কাকে আরো শক্তিশালী করছে। এই পরিস্থিতিতে মুসলিম উম্মাহর প্রতিটি ঘরে ঘরে বদর দিবেসের আলোচনা হওয়া উচিত। একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রয়োজন বদরের চেতনায় জাগ্রত ঈমানদার একঝাক মরদে মুমিন। যুগ-চাহিদাকে বুঝতে পেরে এমন একটি প্রোগ্রাম উপহার দেওয়ায় বাতায়নকে ধন্যবাদ জানান অতিথিরা।
মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন মাওলানা আলা উদ্দীন, রশিদ আহমদ, জহির আহমদ বাবর, সব্বুর আহমদ, আব্দুল কুদ্দুছ, সহিদুর রহমান নাঈম, তানহার উদ্দীন, ফয়সল আহমদ, ফয়েজ আহমদ, আব্দুল্লাহ, গোলাম কিবরিয়া, আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ প্রমুখ

এই সংবাদটি 1,021 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন