শনিবার, ১৭ জুন ২০১৭ ১০:০৬ ঘণ্টা

বারাকা পাওয়ার লিমিটেডের ইফতার মাহফিল

Share Button

বারাকা পাওয়ার লিমিটেডের  ইফতার মাহফিল

সিলেট রিপোর্ট:
প্রবাসী বাংলাদেশীদের উদ্যোগে দেশের একমাত্র বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বারাকা পাওয়ার লিমিটেডের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সিলেট নগরীর মির্জাজাঙ্গালস্থ একটি অভিজাত হোটেলের কনফারেন্স হলে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়। এতে রাজনৈতিক, ব্যবসায়ী, ব্যাংকার, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক ব্যক্তিত্বরা অংশ নেন।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, একটি সুস্থ, সুন্দর ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধশালী সমাজ গঠনে বারাকা গ্রুপ কাজ করছে। উন্নয়ন ও শিক্ষাকে পাশাপাশি এগিয়ে নিতে বারাকা প্রতিশ্রুত। সামাজিক এই দায়বদ্ধতাকে হৃদয়ে ধারণ করেই দেশের উন্নয়নে কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি।
অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগে সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ, বারাকা গ্রুপের চেয়ারম্যান ফয়সল আহমদ চৌধুরী, সিলেট চেম্বারের সভাপতি খন্দকার সিপার আহমদ, সিলেট মহানগর জামায়াতের আমির এহসানুল মাহবুব জুবায়ের, সিলেট মহানগর বিএনপির মাহবুব কাদির শাহী, সিলেট চেম্বারের পরিচালক মো. সহিদুর রহমান, মো. হুমায়ুন আহমদ, ফাহিম আহমদ চৌধুরী, শাহজাহান সামসুদ্দিন, বিপিএলের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল বারী, বিপিএলের ডাইরেক্টর আফজাল রশিদ চৌধুরী, আবুল ওয়ায়েস চৌধুরী, পল্লী বিদ্যুতের জিএম ইঞ্জিনিয়ার মো. মাহবুবুল আলম, সিলেট চেম্বারের পরিচালক এহতেশামুল হক চৌধুরী, আমানউল্লাহ কনভেমনশন হলের ছানাউল্লাহ ফাহিম, সিলেট চেম্বারের সাবেক পরিচালক এটিএম শোয়েব প্রমূখ।
অনুষ্ঠানের সহ আয়োজক ছিল পতেঙ্গা পাওয়ার লিমিটেড, রয়েল হোমস লিমিটেড, রয়েল এডুকেয়ার লিমিটেড, কুয়িন্স হেলথ লিমিটেড।

এই সংবাদটি 1,017 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন