রবিবার, ১৮ জুন ২০১৭ ০৪:০৬ ঘণ্টা

যেকোন জায়গায় মূর্তি নির্মাণের অধিকার নেই: নজরুল

Share Button

যেকোন জায়গায় মূর্তি নির্মাণের অধিকার নেই: নজরুল

সিলেট রিপোর্ট: জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় নেতা ও সিলেট জেলা জমিয়তের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা নজরুল ইসলাম বলেন, রমজান মাস হলো আত্মশুদ্ধির মাস। এ মাসে আমাদেরকে সমস্ত পাপাচার থেকে মুক্ত হয়ে স্বীয় আত্মাকে পরিশুদ্ধ করে নববী আদর্শে জীবনযাপন করতে হবে। কিন্তু একটি মহল এ মাসেও ইসলামবিরোধী বিভিন্ন কর্মকান্ড করতেছে। তিনি বলেন, ওলী আউলিয়ার এদেশে শুধু সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে মূর্তি নয় বরং দেশের কোন জায়গায় মূর্তি নির্মাণের অধিকার নেই। তাই মসজিদ মাদ্রাসার এই দেশে মূর্তি অপসারণ নয়, উৎখাত করতে হবে। ২১ রমযান রোববার জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ ঘিলাছড়া ইউপি শাখার উদ্যোগে (ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার আল আমিন জামে মসজিদে ) পবিত্র মাহে রমযানের তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন।
অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে আল আমীন জামে মসজিদের মুতাওয়াল্লী বিশিষ্ট মুরব্বী জনাব আব্দুজ জহির জুনু মিয়ার সভাপতিত্বে ও ক্বারী আব্দুল ওয়াদুদ রিপনের উপস্থাপনায় সভার শুরুতে পবিত্র ক্বোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন জমিয়ত নেতা হাফিজ সাইদুর রহমান।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সাইফুল ইসলাম, ঘিলাছড়া ইউপি জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা রেজোয়ান আহমদ, সহসাধারণ সম্পাদক মাওলানা জাহিদ হাসান চৌধুরী, বিশিষ্ট মুরব্বী আব্দুল আহাদ এনু মিয়া, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা ছাত্র জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক ছাত্রনেতা মাওঃ মুহি উদ্দীন আলমগীর, ফটিক মিয়া, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বাবুল মিয়া সহ ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা জমিয়তের সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এই সংবাদটি 1,012 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন