রবিবার, ১৮ জুন ২০১৭ ০৫:০৬ ঘণ্টা

সাদাক্বায়ে ফিতর কি ও কেন ?

Share Button

সাদাক্বায়ে ফিতর কি ও কেন ?

মাওলানা মুফতি নূরুল আলম জাবের : একমাস ব্যাপী রামাযানের রোযা ও সিয়াম-সাধনার মাধ্যমে মানুষ আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করে,আর এর পুরস্কার স্বরূপ আল্লাহ তাঁর বান্দাদেরকে ঈদুল ফিত্র দান করেন। মুসলমানদের জন্য আল্লাহ পাক বৎসরে দু’টি ঈদ দান করেছেন। মুসলমানগণ বৎসরে দু’বার খুশি উদ্যাপন করবে- ১. ঈদুল ফিত্ও ২. ঈদুল আজহা।
সেই দু’দিনের প্রথমটি আসছে রামাযানের রোযার শেষে মুসলিম জাতির মহা খুশি ও আনন্দের দিন ঈদুল ফিত্র। মুসলমানগণ পরস্পর সমস্ত ভেদা-ভেদ ভুলে গিয়ে ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার দিন। ধনী-গরীব,রাজা- প্রজা, সকলেই এক কাতারে এসে একত্রিত হওয়ার বার্তা নিয়ে উপস্থিত হচ্ছে আমাদের মহা খুশির দিন ঈদুল ফিত্র। রহমত,মাগফিরাত ও নাজাতের এই মাসে প্রত্যেক মুসলমানই যথা স্বাধ্য চেষ্টা করেছেন আল্লাহর ইবাদত-বন্দেগী করে হাজার মাসের চেয়ে শ্রেষ্ঠ রজনী লাইলাতুল ক্বাদ্র-এর ফজিলত পেতে। তাই তো আল্লাহর প্রিয় বান্দাগণ এই রজনী পাবার আশায় এ’তেক্বাফের মাধ্যমে হন্য হয়ে তা তালাশ করেন। সেই মাস ব্যাপী সাধনার পর মুসলমানদের সামনে এসে উপস্থিত হচ্ছে মহা আনন্দের দিবস ঈদুল ফিত্র।
ঈদ মানেই হাঁসি,খুশি আর আনন্দ। ঈদ মানেই ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া। ঈদের আনন্দ-ফুর্তি যাতে করে সমস্ত মুসলিম পরিবারে,ধনী-গরীব সকলের ঘরে আমেজ বিরাজ করে সে জন্য দয়াময় আল্লাহ তাঁর মনোনীত একমাত্র ধর্ম ইসলামে রেখেছেন ফিত্রার বিধান। আজ আমি সাদাক্বায়ে ফিত্র নিয়েই কিছু লেখার ইচ্ছে করেছি।
সাদাক্বায়ে ফিত্র : ফিত্র-এর অর্থ রোযা খুলে দেয়া। রামাযান শেষ হওয়ার পর রোযা খুলে যাওয়ার খুশি ও শুকরিয়া স্বরূপ যে দান করা হয়,তাকে সাদাক্বায়ে ফিত্র বলে।
ওয়াজিব হওয়ার কারণ: যতœবান হয়ে রোযা রাখার পরেও রোযার মধ্যে কোন কোন সময় ত্রুটি হয়েই যায়। যার ফলে রোযার ক্ষতি হয়ে যায়। এ রকম ক্ষতিপূরণের জন্য ইসলামী শরীআত রোযা শেষে সাদাক্বাতুল ফিত্র ওয়াজিব করেছে। রাসূল সা. সাদাক্বায়ে ফিত্রকে জরুরী সাব্যস্ত করেছেন,যা রোযাদারের জন্য বেহুদা কথা ও অশালীন কাজ কর্ম থেকে রোযাকে পবিত্র করার উপায় এবং গরীবদের জন্য খাদ্যের ব্যবস্থা। আবু দাউদ,হাদিস নং১৬০৯
সাদাক্বাতুল ফিত্র কার উপর ওয়াজিব ? যদি কোন ব্যক্তি ঈদের দিনে ৭.৫ তোলা স্বর্ণ কিংবা ৫২.৫ তোলা রৌপ্য বা তার মসপরিমাণ মূলের নগদ টাকা ইত্যাদির মালিক হয় এবং উহা তার জীবিকা নির্বাহের অত্যাবশ্যকীয় উপকরণ ব্যতীত হয় এবং উক্ত ব্যক্তি ঋণমুক্ত হয় তাহলে এক বছর অতিবাহিত না হলেও তার উপর সাদাক্বায়ে ফিত্র বা ফিতরা ওয়াজিব। নিজের পক্ষ থেকে এবং নাবালিগ সন্তানাদির পক্ষ থেকেও ফিতরা দেয়া পিতার উপর ওয়াজিব। তবে নাবালিগ সন্তানের নেসাব পরিমাণ নিজস্ব সম্পদ থাকলে তার সম্পদ থেকে আদায় করতে পারবে। পিতার উপর ওয়াজিব নয়। স্ত্রী,মাতা,পিতা ও বালিগ সন্তানাদির পক্ষ থেকে ফিতরা আদায় করা ওয়াজিব নয়। সাদাক্বায়ে ফিত্র কখন ওয়াজিব ? ঈদের দিন সুবহে সাদিকের সময় সাদাক্বায়ে ফিত্র ওয়াজিব হয়। যদি কেহ সুবহে সাদিকের আগে মারা যায় তাহলে তার উপর সাদাক্বায়ে ফিত্র ওয়াজিব নয়। আর মালিকে নেসাবের যে সন্তান সুবহে সাদিকের পূর্বে ভূমিষ্ঠ হবে তার সাদাক্বায়ে ফিত্র দিতে হবে। সুবহে সাদিকের পরে জন্ম গ্রহণ করলে তার পক্ষ থেকে সাদাক্বায়ে ফিত্র দিতে হবে না।
সাদাক্বাতুল ফিত্র কখন আদায় করবেন ? উত্তম হলো ঈদের দিন ঈদের নামাজে যাওয়ার পূর্বেই ফিত্রা আদায় করা। যাতে করে সকল ধর্মপ্রাণ মুসলমান খুশিমনে ঈদগাহে উপস্থিত হতে পারে, অন্তত আজ ঈদের দিনে যেন তার চেহারায় অভাবের ছাপ না থাকে। আর এটাই হচ্ছে সাদাক্বাতুল ফিত্রের অন্যতম এক বৈশিষ্ট। তবে ঈদের নামাজের পরে কিংবা ঈদের পূর্বে এমন কি রামাযানের পূর্বে আদায় করলেও জায়েজ হবে। (বাদায়ে’২/২০৭, বাহরুর রাইক্ব ২/২৫৫,শামী ২/৩৬৬)
সাদাক্বাতুল ফিত্রের পরিমাণ :সাদাক্বায়ে ফিত্র সম্পর্কিত হাদিসগুলো পর্যালোচনা করলে এ বিষয়ে মোট পাঁচ প্রকার খাদ্যের বর্ণনা পাওয়া যায়। ১. খেজুর, ২. যব, ৩. কিছমিছ, ৪. পনির ৫. গম/আটা। গম/আটা দিয়ে ফিত্রা আদায় করলে অর্ধ সা’= ১ কেজি ৬৫০ গ্রাম, বা তার সমমূল্যের নগদ টাকা ইত্যাদি। খেজুর ,যব ,কিছমিছ ও পনির দ্বারা আদায় করলে এক সা’= ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম,বা তার সমমূল্যের কোন কিছু প্রতি জনের পক্ষ থেকে আদায় করতে হবে।এটা হলো ওজনের দিক দিয়ে পার্থক্য। আর মূল্যেও দিক দিয়ে তো পার্থক্য আছেই। এক খেজুরের মধ্যে কত রকমের রয়েছে , তন্মধ্যে সর্বোত্তম খেজুর হচ্ছে আজওয়া।
১৪৩৮ হি. মোতা. ১৭ ঈ. সনে সাদাক্বাতুল ফিত্রের বর্তমান বাজার মূল্যেও তালিকা :
ফিতরার পণ্য প্রতি কেজির
মূল্য ফিতরার
পরিমাণ বর্তমান
ওজনমতে জন প্রতি ফিতরার
বর্তমান বাজার মূল্য
খেজুর আজওয়া ১০০০/-
প্রায় এক সা’ ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম ৩৩০০/-
পনির ৪০০/- এক সা’ ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম ১৩২০/-
খেজুর
নরমাল ১২০/- এক সা’ ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম ৩৯৬/-
কিছমিছ ৩০০/- এক সা’ ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম ৯৯০/-
আটা ৩২/- ,৩৩/- অর্ধ সা’= ১ কেজি ৬৫০ গ্রাম ৫৫/-
উল্লিখিত দ্রব্যের মধ্যে যে কোনো একটির দ্বারা ফিতরা প্রদান করলে তা আদায় হবে। যেন মুষলমানগণ প্রত্যেকই নিজ স্বামর্থ ও সুবিধা অনুযায়ী এর যে কোন একটি দ্বারা তা আদায় করতে পারেন। এখানে লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে যে, প্রত্যেক শ্রেণীর মুসলমান যদি বর্তমান বাজার মূল্যে সর্বনি¤œ মূল্যের দ্রব্য দিয়ে ফিতরা আদায় করেন,তাহলে বাকী তিনটির উপর আমল কারা করবে ? আসলে এ ক্ষেত্রে এমন হওয়া উচিত ছিল যে, উন্নতমানের (আজওয়া) খেজুর দিয়ে ফিতরা দেয়ার যার স্বামর্থ রয়েছে সে উন্নতমানের (আজওয়া) খেজুর দিয়েই আদায় করবে। আর যার এ পরিমাণ স্বামর্থ নেই সে পনির দিয়ে, স¦ামর্থনা থাকলে কিছমিছ দিয়ে । আর যার স্বামর্থ আরো কম সে সাধারণ খেজুর দিয়ে আদ্য় করবে। আর যে সকল মুসলিম ভাইদের উক্ত হিসাবে দেয়া কঠিন হয়ে যায় তারা সর্বন¤িœ মূল্যেও দ্রব্য গম/ আটা দ্বারা আদায় করবে। এটাই হলো উত্তম নিয়ম,যা ছিলো রাসূল সা.,সাহাবায়ে কেরাম, তাবেঈন তথা স্বর্ণযুগের আমল ও নিয়ম। এ কেমন কথা, সব শ্রেণীর লোক চাই উচ্চ বিত্ত হোক কিংবা মধ্য বিত্ত হোক সকলেই এক ধরণের দ্রব্য দিয়ে ফিতরা আদায় করবে? এ ব্যাপারে এমন একটি দূর্বল প্রমাণও পাওয়া যায নাই যে, ইসলামের সূনালীযুগের কোন সময় সর্ব শ্রেণীর মুসলমান সর্বনি¤œ র্মল্যের দ্রব্য দ্বারা ফিতরা আদায় করেছেন। বরং রাসূল সা.-এর হাদিস,সাহাবীদের আমল ও চার ইমামের ঐক্যমত যে, দাতার নিকট যা সর্বোৎকৃষ্ট এবং সর্বোচ্চ মূল্যের দ্রব্য দ্বারা ফিতরা দেয়া উত্তম। (আওজাযুল মাসালেক ৬/১২৮)
রাসূল সা.-এর যুগে গমের ফলন ছিল না বললেই চলে। পরবর্তীতে হজরত আমীরে মুআবিয়া রা.-এর যুগে গমের ফলন বৃদ্ধি পায় এবং এর প্রচুর ছিলো। ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে, তৎকালীন যুগে অর্ধ সা’ গমের মূল্য যা ছিল এক সা’ খেজুরের মূল্যও তাই ছিল। তখন সাহাবায়ে কেরাম সাদাক্বায়ে ফিত্র গম দ্বারাই বেশি আদায় করেছেন। এর কারণ এই নয় যে, গম সর্বনি¤œ মূল্যের ছিল বরং তৎকালীন যুগে গম ছিল সর্বোৎকৃষ্ট ও সর্বোচ্চ মূল্যের পণ্য। যে কারণে সাহাবায়ে কেরাম খেজুর দ্বারা না দিয়ে সাদাক্বায়ে ফিত্র গম দ্বারাই বেশি আদায় করেছেন। কিন্তু বর্তমানে এই পাঁচ প্রকারের মধ্যে গমের বাজার মূল্য সর্বনি¤œ। অতএব এখন যদি সব শ্রেণীর লোক এমন কি সম্পদশালীরাও বাজারের সর্বনি¤œ মূল্যর পণ্য গম দ্বারা সাদাক্বায়ে ফিত্র আদায় করা সমীচীন হবে? দুঃখজনক হলেও সত্য আমাদেও মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ যুগ,যুগ ধরে বাজারের সর্বনি¤œ মূল্যর পণ্য গমের হিসাবে সাদাক্বায়ে ফিত্র আদায় করে আসছেন। উচ্চ বিত্ত,মধ্য বিত্ত সকলই ফিতরা দিচ্ছেন একই হিসাবে জন প্রতি ৫০/৬০টাকা করে। খবরের কাগজে দেখলাম এ বছর ফিতরা কোথায়ও ৫৫/- কোথায়ও ৬০/- কোথায়ও ৬৫/-টাকা করে।এই অবস্থা দেখলে মনে হয় যে, আমাদের দেশের মুসলমান ভাইগণ ভুলেই গেছেন যে,গম হচ্ছে ফিতরার পাঁচটি দ্রব্যের মধ্যে সর্বনি¤œ একটি দ্রব্য মাত্র। আরো চারটি দ্রব্য রয়েই গেছে। আমি ইজ এই লিখনির মাধ্যমে আমাদেও দেশের ফিতরা প্রদানকারী ভাই-বোনদের প্রতি অনুরুধ জানাব। সকলেই যেন একই হিসাবে ফিতরা প্রদান না করে প্রত্যেকই যেন নিজ স্বামর্থানুযায়ী হাদিসে বর্ণিত দ্রব্যগুলোর মধ্যে তুলনা মূলক বেশি মূল্যের দ্রব্য দিয়ে ফিতরা প্রদান করি। যাতে করে হাদিসে বর্ণিত পাঁচটি দ্রব্যের মধ্যে কোনোটিই উপেক্ষিত না হয়। আমাদের সমাজের ধনী শ্রেণীর মুসলমান ভাইদের জন্য আজওয়া,পনিরের হিসাবে ফিতরা দেয়া কোনো ব্যাপারই নয়। যেখানে আমাদেও বিত্তশালী ভাইগণ ইফতার পার্টিও নামে হাজার হাজার টাকা ব্যয় করেন, ঈদেও শপিং করতে গিয়ে প্রচুর টাকা খরচ করেন। সেখানে ফিতরার জন্য কয়েক হাজার টাকা কোনো ব্যাপারই নয়। এমনিতেই তো আমারা অযথা অনেক টাকা খরচ করি,কোনো দিন এর হিসাব পর্যন্ত করছি না ,তাহলে কেন আমরা এই সাওয়াবের কাজে কৃপণতা দেখাব? একবার চিন্তা করে দেখুন এটা কি আমাদের জন্য সমীচীন হচ্ছে? বিত্তবান ভাইগণ একবার ভেবে দেখুন প্রত্যেক জিনিসের মূর‌্য কি হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, আপনার দেয়া ফিতরার টাকা জন প্রতি ৫৫/৬০ টাকা করে দিলে আমাদের গরীব ভাইগণ এই টাকা দিয়ে কিভাবে ঈদেও আনন্দ উদযাপন করবে? এই টাকা দিয়ে তার নিত্যপ্রয়োজনীয় বস্তুই তো অনেক ক্ষেত্রে ক্রয় করা অসম্ভব হবে। তাই আসুন ! আমরা এমনভাবে সাদাক্বায়ে ফিত্র আদায় করি যাতে করে সমস্ত মুসলমানদের হাদিসে নববী সা.-এর উপর পূর্ণরূপে আমল প্রতিষ্ঠিত হয় এবং রাসূল সা.-এর ছেড়ে দেয়া একটি সুন্নাতও পুনরায় জীবিত হয়। এবং এই পদ্ধতি অবলম্বন করে দেশের দারিদ্রতা হ্রাসে অবদান রাখি। যার ফলে গরীব,দুঃখি ও অভাবী মানুষের মুখে হাসি ফুঠবে এবং ঈদের আনন্দ উৎসব পুরোভাবে প্রত্যেক মুসলমানের ঘরে বিরাজ করাতে সক্রিয় ভূমিকা রাখবে। সব কথার শেষ কথা হলো এর মাধ্যমে আল্লাহর কাছে আমরা উত্তম প্রতিদান পাব।
আল্লাহ তা’আলা যেন আমাদের সকলকে এই আমল করার তাওফীক্ব দান করেন। আমীন।
লেখক পরিচিতি : মুহাদ্দিস ও মুফতি, জামিয়া ইসলামিয়া হাফিজিয়া দারুল হাদিস দরগাহ্ হজরত শাহ পরাণ রাহ. সিলেট, বাংলাদেশ। মোবাইল নং- ০১৭১৬৮২৬০৬৩

এই সংবাদটি 1,017 বার পড়া হয়েছে