সোমবার, ১৯ জুন ২০১৭ ০২:০৬ ঘণ্টা

লন্ডনে মসজিদের সামনে হামলা, আহত ১০

Share Button

লন্ডনে মসজিদের সামনে হামলা, আহত ১০

যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: সেভেন সিস্টার্স রোডের ফিন্সবারি পার্কের কাছে গাড়ি চালিয়ে ওই হামলার ঘটনায় ৪৮ বছর বয়সী একজনকে আটক করেছে পুলিশ। হামলার পরপরই রোববার স্থানীয় সময় রাত ১২টা ১৫ মিনিটে লন্ডনের অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসকে খবর দেয়া হয়।

মুসলিম কাউন্সিল অব ব্রিটেন (এমসিবি) জানিয়েছে, প্রার্থনা শেষে বাড়ি ফেরার পথে মুসল্লিদের ওপর চালানো ওই হামলা ইচ্ছাকৃত।

সংগঠনটির তরফ থেকে বলা হয়েছে, এই ঘটনার মাধ্যমে হিংসাত্মক ইসলামভীতির বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। তারা মসজিদের চারপাশে অতিরিক্ত নিরাপত্তা নিশ্চিতের আহ্বান জানিয়েছেন।
এই হামলার ঘটনাকে ভয়ানক ঘটনা বলে উল্লেখ করেছেন প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। তিনি বলেন, হামলায় যারা হতাহত হয়েছেন তাদের জন্য আমরা ব্যথিত। ঘটনাস্থলে জরুরি বিভাগের কর্মকর্তারা রয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।

রায়ান নামের এক নারী জানিয়েছেন, তিনি দুর্ঘটনার আগে ওই মসজিদের কাছেই ছিলেন। নামাজ শেষে সবাই ফিরছিল। তিনি পেছনে দাঁড়িয়ে একজনের সঙ্গে কথা বলছিলেন।
তিনি সিএনএনকে জানিয়েছেন, আমি কথা বলছিলাম। কিছুক্ষণ পরেই লোকজনের চিৎকার শুনতে পেলাম। আমি একটু সামনে এগিয়ে গেলাম কি হয়েছে সেটা দেখার জন্য।

রিয়ান জানান, তাকে ভেতরে যাওয়ার জন্য বলা হয়েছিল। তাকে বলা হয়েছিল এটা নিরাপদ জায়গা নয়। কিন্তু তিনি কারো কথা শোনেননি।

তিনি বলেন, ‘আমি হাঁটতে হাঁটতে ঘটনাস্থলে পৌঁছাই। আমি দেখতে পেলাম কিছু মানুষ রাস্তায় পড়ে আছে, কেউ কেউ মারাত্মক আহত হয়েছে। এদের মধ্যে একজন সম্ভবত মারা গেছেন। পুলিশ আমাদের সেখান থেকে সরিয়ে দিচ্ছিলেন।’

এই হামলার ঘটনা সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানায়নি পুলিশ। এছাড়া কোনো সন্দেহভাজন সম্পর্কেও কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয়নি।

এই সংবাদটি 1,092 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন