মঙ্গলবার, ২০ জুন ২০১৭ ০১:০৬ ঘণ্টা

মিরপুর বাজারে ভাই-ভাই সুপার মার্কেটের ইফতার মাহফিল

Share Button

মিরপুর বাজারে ভাই-ভাই সুপার মার্কেটের ইফতার মাহফিল

সিলেট রিপোর্ট: জগন্নাথপুর উপজেলাধীন মিরপুর বাজারে ভাই-ভাই সুপার মার্কেটের দ্বিতীয় বর্ষ উদযাপন উপলক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক যুক্তরাজ্য প্রবাসী আলহাজ্ব কামাল উদ্দিনের উদ্যোগে বাজারের ব্যবসায়ীদের সম্মানে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আতাউর রহমান বলেন ভাই-ভাই সুপার মার্কেট অত্র এলাকার ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের সুবিধার্থে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। সুবিশাল, আধুনিক ও ব্যাপক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত এই মার্কেট আগামীতে আর সমৃদ্ধ হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করে মালিক পক্ষকে ধন্যবাদ জানান।
বাজার তদারক কমিটির সভাপতি সাহিদ মিয়ার সভাপতিত্বে ও ব্যবসায়ী ফয়ছল হোসেনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য জগন্নাথপুর উন্নয়ন সংস্থার সাধারন সম্পাদক আব্দুল ওয়াহিদ, মিরপুর ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্ট ইউকে এর সভাপতি মাহবুল হক শেরিন, যুক্তরাজ্য জগন্নাথপুর উন্নয়ন সংস্থার সহ সভাপতি মোসাদ্দেক কামালী,বক্তব্য রাখেন ইউনিক যুব সংঘ মিরপুর’র সভাপতি রোটারিয়ান এম এম সোহেল, আইডিয়েল ভিলেজ ফোরামের সভপতি মুজাক্কির হোসাইন ।
অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মিরপুর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুল খালিক,বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ,আল জান্নাত ইসলামিক এডুকেশন ইনস্টিটিউট এর প্রিন্সিপাল মাওলানা শহীদুল ইসলাম নিজামী ,হলিয়ার পাড়া মাদ্রাসার গভর্নিংবডির সদস্য আব্দুর রউফ,সমাজসেবি রিয়াছত মিয়া,মিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমির হামজা,বিএনপি নেতা এম এ আজিজ,মার্কেট এর ব্যবস্থাপক আওলাদ হোসেন,ছাত্রনেতা পলাশ,মিজানুর রহমান, বরকত সুলতান, আং মানিক, আব্দুল ওয়াহাব সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও বাজারের ব্যবসায়ী বৃন্দ।

এই সংবাদটি 1,013 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন