মঙ্গলবার, ২০ জুন ২০১৭ ০১:০৬ ঘণ্টা

দুর্নীতি মুক্তকরণ বাংলাদেশ ফোরামের আলোচনা ও ইফতার মাহফিল

Share Button

দুর্নীতি মুক্তকরণ বাংলাদেশ ফোরামের আলোচনা ও ইফতার মাহফিল

সিলেট রিপোর্ট: দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলনকে বেগবান করার লক্ষ্যে দুর্নীতি মুক্তকরণ বাংলাদেশ ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে ‘দুদক আইনের বিকল্প নেই’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সোমবার বিকেলে সিলেট নগরীর বন্দরবাজারস্থ ওরিয়েন্টাল রেষ্টুরেন্ট ও পার্টি সেন্টারে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

কেন্দ্রীয় সভাপতি সিনিয়র আইনজীবি নাসির উদ্দিন এডভোকেটের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মকসুদ হোসেনের পরিচালনায় বক্তারা বলেন, স্বাধীনতা প্রিয়, ধর্ম প্রিয়, গণতন্ত্র প্রিয় এই জাতিকে বিশে^র দরবারে তিন তিনবার শ্রেষ্ঠ দুর্নীতিবাজ হিসেবে পরিচয় করে দেয়া হয়েছে। গোটা দেশকে অক্টোপাসের মতো দুর্নীতিবাজরা ঘিরে ফেলেছে। জনগণের করের টাকার দ্বারা রাষ্ট্রীয় ব্যাংকের মূলধন গঠিত হয়। সেই করের দ্বারা গঠিত ১৪ হাজার কোটি টাকা এক শ্রেণীর ব্যাংক কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীগণ লুট করে নিয়ে গেছেন। তাদের বিরুদ্ধেও দৃশ্যমান কোন পদক্ষেপ নেই। অথচ নির্দোষ, অসংগঠিত, সরল প্রাণ জনগণের উপর গ্যাস, বিদ্যুৎ ও দ্রব্যমূল্যের ঘন ঘন মূল্য বৃদ্ধিতে নাগরিক জীবন আজ নাভিশ^াস হয়ে উঠেছে।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দুর্নীতি মুক্তকরণ বাংলাদেশ ফোরামের কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ-সভাপতি ইকবাল হোসেন চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশিদ এডভোকেট, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. অরুণ কুমার দেব, সমবায় বিষয়ক সম্পাদক মো. আলী লাহিন, ছাত্র ও যুব বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সেনাজ, জেলা জাসদ (রব) আহবায়ক মনির উদ্দিন মাস্টার, ওয়ার্কাস পার্টির সিলেট জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কমরেড সিকান্দর আলী, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম মহানগর নেতা মাওলানা মাহমুদুল হাসান, সিলেট জেলা জাতীয় জনতা পার্টি সাধারন সম্পাদক আখলিছ আহমদ চৌধুরী, দুর্নীতি মুক্তকরণ বাংলাদেশ ফোরামের কেন্দ্রীয় সদস্য রাজিউল ইসলাম তালুকদার রাজু, আব্দুল মোতাওয়াল্লী ফলিক, কয়েছ আহমদ সাগর, মো. মাহবুব ইকবাল মুন্না, মল্লিকুর রহমান মল্লিক, নিউনেশন পত্রিকার সিলেট প্রতিনিধি এস. এ. শফি, সাপ্তাহিক নকশী বাংলা পত্রিকার সম্পাদক সালেহ আহমদ হোসাইন, ডা. এস. এম হারুন-আর-রশিদ, সাপ্তাহিক প্রজন্ম ডাকের সম্পাদক ডা. অলিউর রহমান নাসিম, সাংবাদিক ফারুক আহমদ চৌধুরী, কিরণ দেব নাথ, দুর্নীীত মুক্তকরণ বাংলাদেশ যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ, সহ-সভাপতি হেলাল আহমদ হেলাল, সাধারণ সম্পাদক তাওহীদুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুকাদির কিবরিয়া সিরাজী, গুন সিন্ধু দেবনাথ (সুমন), সাংগঠনিক সম্পাদক ইমাম হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন পাটোয়ারী, দিপঙ্কর তালুকদার, যুব নেতা আবুল কালাম আজাদ, মোঃ আলমগীর হোসেন, মোঃ রুহুল আমীন, সৈয়দ নিয়াজ আহমদ প্রমুখ।

সভা শুরুতে কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন যুবনেতা বেলাল উদ্দিন ও দোয়া পরিচালনা করেন বিশিষ্ট লেখক ও ইসলামী চিন্তাবিদ মাওলানা মাহমুদুল হাসান।

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন