মঙ্গলবার, ২০ জুন ২০১৭ ০২:০৬ ঘণ্টা

যুব ও ছাত্র জমিয়ত সুজানগর ইউপির ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

Share Button

যুব ও ছাত্র জমিয়ত সুজানগর ইউপির ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

ইয়াহইয়া আহমদ, মৌলভীবাজার থেকে: যুব ও ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ ৯ নং সুজানগর ইউপি শাখার উদ্যোগে (২৩ রমযান, সোমবার) “সুজানগর ইউনিয়ন অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
এতে প্রধান অতিথিছিলেন- ৯ নং সুজানগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব আলহাজ্ব নছিব আলী।প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন- সুজানগর ইউনিয়নে কয়েক বছর থেকে ছাত্র জমিয়তের কাজ সুষ্ঠুভাবে চলছে। সমাজ বিনির্মাণে তারা কাজ করে যাচ্ছে। বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে তাদের অংশগ্রহণ প্রশংসনীয়। প্রতি বছরই আমি তাদের ইফতার মাহফিলে অংশগ্রহণ করে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি। ছাত্র জমিয়ত কর্মীদের এসব কাজের প্রশংসা করে তিনি আরো বলেন- আপনারা বন্যা কবলিত মানুষের পাশে যথাসম্ভব দাড়ানোর চেষ্টা করুন। সাধ্যমত যার যার অবস্তান থেকে তাদেরকে সহযোগীতা করুন। দেশে আসন্ন সব গজব থেকে পবিত্র এ মাসে আপনারা দোয়া করবেন।
ইউ.পি ছাত্র জমিয়তের সভাপতি মাওঃ হুসাইন আহমদ সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারি তায়েফ আহমদ’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মাহফিলে স্বাগত বক্তব্য রাখেন- শাখা সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওঃ আব্দুল ওয়াহিদ সিদ্দিকী।
বিশেষ অতিথির আলোচনা পেশ করেন- যুব জমিয়ত বাংলাদেশ বড়লেখা উপজেলা শাখার আহবায়ক মুফতি হারুনুর রশীদ, সদস্য সচিব মাওঃ আব্দুল কাইয়্যুম সাদিক, সুজানগর ইউপি যুব জমিয়তের সহ-সভাপতি হাফিয মাওঃ শামিম আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওঃ মাসুম আহমদ।
প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন- ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ বড়লেখা উপজেলা শাখার সেক্রেটারি হাফিয ইয়াহইয়া আহমদ।
বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন- বড়লেখা উপজেলা ছাত্র জমিয়তের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওঃ সাইফুর রহমান, সুজানগর ইউপি ছাত্র জমিয়ত নেতা মাস্টার রায়হান আহমদ অপু প্রমুখ।
পরিশেষে বন্যা কবলিত মানুষের জন্য বিশেষ মুনাযাত করা হয়।

এই সংবাদটি 1,023 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন