মঙ্গলবার, ২০ জুন ২০১৭ ০২:০৬ ঘণ্টা

পাঠানটুলা হ্যাপী ক্লাবের ইফতার ও ক্বেরাআত মাহফিল অনুষ্ঠিত

Share Button

পাঠানটুলা হ্যাপী ক্লাবের ইফতার ও ক্বেরাআত মাহফিল অনুষ্ঠিত

সিলেট রিপোর্ট: আন্তর্জাতিক সেবামূলক সংগঠন “ওয়ান নেশন” এর স্পন্সরে সিলেট নগরীর পাঠানটুলা হ্যাপী ক্লাবের উদ্যোগে সোমবার (১৯ জুন) ২৩ রমজান ইফতার ও ক্বেরাআত মাহফিল পাঠানটুলায় ক্লাবের সভাপতি শাহ মাহমুদুল হুসাইন রাহাতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সৈয়দ আদনান এবং ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক হাফিজ মাওলানা সৈয়দ বুরহান আহমদের যৌথ উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে ক্বেরাআত পরিবেশন করেন আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত বিশ্বজয়ী হাফিজ আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ ও জাতীয় পর্যায়ে স্বর্ণপদক প্রাপ্ত ক্বারী আশিক মুসতাবী। অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন, পাঠানটুলা স্কুলের ধর্ম বিভাগীয় প্রধান শিক্ষক মাওলানা সৈয়দ জাকারিয়া সাহেব (মুল্লা স্যার), পাঠানটুলা মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা হুসাইন আহমদ, লাভলী রোড মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা সাইদুর রহমান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক জনাব রানা শেখ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম, জাবালে নূর মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা নাজিম উদ্দিন, হাফিজ মাওলানা মানসূর বিন সালেহ, হাফিজ মাওলানা আব্দুল করীম হেলালী, পাঠানটুলা ক্বেরাআত প্রশিক্ষণের প্রধান ক্বারী মাওলানা ইফতেখার আহমদ, মাওলানা মাজেদ উদ্দিন, হাফিজ মাওলানা জুনায়েদ শফী, মাও.নুরুল ইসলাম ও সিলেটের বিশিষ্ট হার্ডওয়্যার ব্যবসায়ী মোঃ সরোয়ার, হ্যাপী ক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ ইমদাদ, অর্থ সম্পাদক স্বপন, ইমরান, তানভির, আতিক, তৌকীর, সিদ্দিক, রাব্বি, শাকিব, নাহিদ, জাহিদ,আশরাফুল সহ পাঠানটুলার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
আয়োজিত ইফতার মাহফিলে বক্তারা বলেন, সিয়াম সাধনার পবিত্র এই মাস হল সমস্থ পাপাচার পরিশুদ্ধ করার অন্যতম মাস। তাই আমাদেরকে এই পূণ্যময় মাসেই সম্পুর্ণ গুনাহ মুক্ত করে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের সর্বোচ্চ চেস্টা চালিয়ে যেতে হবে। তারা আরও বলেন হ্যাপী ক্লাবের যুব সমাজ কর্তৃক আয়োজিত এইরকম মহৎ উদ্যোগ সত্যি খুবই প্রশংসনীয়। অনুষ্ঠান শেষে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে মুনাজাত করা হয়।

এই সংবাদটি 1,012 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন