মঙ্গলবার, ২০ জুন ২০১৭ ০২:০৬ ঘণ্টা

সৈয়দপুরে মুহিউদ্দীন খান স্মরণে ছাত্র জমিয়তের আলোচনা সভা

Share Button

সৈয়দপুরে মুহিউদ্দীন খান স্মরণে ছাত্র জমিয়তের আলোচনা সভা

সিলেট রিপোর্ট: ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ জগন্নাথপুরের সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়ন শাখার উদ্দোগে রোববার জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র কেন্দ্রিয় সাবেক নির্বাহী সভাপতি মাওলানা মুহি উদ্দীন খান (রহ.)’র স্বরণে আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত হয়।ইউনিয়ন শাখার সভাপতি মাও.আমিনুল ইসলাম’র সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারি নাছির আহমদ তালুকদার ও যুগ্ম-সম্পাদক হাফিজ নাহিদ আহমদ’র যৌথ পরিচায়নায় শুরুতে স্বগত বক্তব্য রাখেন ১নং ওয়ার্ড ছাত্র জমিয়তের সাংগঠনিক সম্পাদক হাসান মাহির।প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়ন জমিয়তের সভাপতি মাও.সিদ্দিক আহমদ হাসনু। প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন সিলেট মহানগর জমিয়তের প্রচার সম্পাদক,সদ্য জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস-চেয়ারম্যান প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী হাফিজ সৈয়দ ছালিম আহমদ কাসিমী। প্রধান মেহমানের বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস জগন্নাথপুর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হাফিজ সৈয়দ জয়নুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়ন জমিয়তের সহ-সভাপতি মাও.সৈয়দ ফয়জুল হক।
সহ-সভাপতি মাও.সৈয়দ আশফাক।
যুগ্ম-সম্পাদক মাও.সৈয়দ রশিদ আহমদ।
সহ-সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আমিরুল ইসলাম।
সাংগঠনিক সম্পাদক মাও.সৈয়দ নঈম আহমদ।
সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাও.সৈয়দ.মুছান্না আহমদ।
প্রচার সম্পাদক মাও.সৈয়দ মারজান ফিদাউর।
সহ-প্রচার সম্পাদক মাও.সৈয়দ সাজিদ আলী।
অফিস সম্পাদক সৈয়দ আনাছ মিয়া।
জগন্নাথপুর উপজেলা ছাত্র জমিয়তের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাফিজ মাও.সাঈদ আহমদ।
সাধারণ সম্পাদক শেখ সামছুল ইসলাম।
ডা:মারজান আহমদ।
ইউনিয়ন যুব জমিয়তের সহ-সভাপতি মাও.সৈয়দ আবিদ সরদার।
সাধারণ সম্পাদক মো.তামীম আহমদ।
সাংগঠনিক সম্পাদক মাও.বিলাল আহমদ।
সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজ মাও.সৈয়দ জাকির আলী।
সাহিত্যিক সম্পাদক মাও.আবু তাহে,হাফিজ সৈয়দ মাহবুব আহমদ,মাও.আব্দুর রাজ্জাক,অফিস সম্পাদক লাদেন বেগ।
ইউনিয়ন ছাত্র জমিয়তের সহ-সভাপতি মাও.দ্বিনুল ইসলাম কামালী।
সহ-সভাপতি কারী সৈয়দ মুশাররফ আল আকতার।
সহ-সাধারণ সম্পাদক মল্লিক নাছির আহমদ।
সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ নাছির আহমদ।
সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জুনাইদুল হক।
অর্থ সম্পাদক সৈয়দ আশফাক আহমদ।
সাংস্কৃতিক সম্পাদক ইয়াকুব আহমদ।
তথ্য ও প্র.সম্পাদক আরিফুল ইসলাম।
সহ-তথ্য ও প্র.সম্পাদক সৈয়দ সুহেল আহমদ।
স্কুল বিষয়ক সম্পাদক সাদ্দাম কামালী। সদস্য আতিকুর রহমান কামালী,আব্দুল মান্নান,সৈয়দ খুবাইব আহমদ,মুহা.মুর্শেদ আহমদ,সৈয়দ ইয়াহিয়া,সৈয়দ মুফাজ্জল আহমদ সহ প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।

এই সংবাদটি 1,013 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন