বুধবার, ১৯ জুলা ২০১৭ ১২:০৭ ঘণ্টা

একজন জননন্দিত ইউএনও এবং বাহুবল উপজেলার কথা

Share Button

একজন জননন্দিত ইউএনও এবং বাহুবল উপজেলার কথা

সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ,বিশেষ প্রতিনিধি-সিলেট রিপোর্ট: মাত্র দুমাস হয়েছে তিনি হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসাবে যোগ দিয়েছেন। কিন্তু এই কয়দিনেই বাহুবলের বড় ধরনের সমস্যাগুলো সমাধানে সফলতার সাক্ষর রেখেছেন। তার প্রসংশা এখন বাহুবলের সর্বত্র। সাধারন মানুষের মুখে মুখে তার সততা ও সাহসী পদক্ষেপের কথা। সাধারন মানুষ বলছেন, অনেকদিন পরে উন্নয়নমূখি, শিক্ষা ও জনবান্ধব একজন ইউএনও বাহুবলে এসেছেন। বলছিলাম বাহুবলের নবাগত ই্উএনও মো জসিম উদ্দীনের কথা।

প্রাথমিক বিদ্যালয় মনিটরিং:
গত ১১মে বাহুবলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসাবে যোগদান করেন তিনি। এসেই তিনি বাহুবলের শিক্ষা সংস্কৃতি ও জনদুর্ভোগ লাগবে কাজ করার ইচ্ছা ব্যক্ত করে বাহুবলবাসীর সহযোগীতা চান। সৎ কর্মট, উদ্দ্যোমি এই অফিসার একমাসের মধ্যে বাহুবলের প্রাথমিক শিক্ষার চিত্র বদলে দেন। এর আগে বাহুবলের অধিকাংশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক-শিক্ষিকাগন বেলা ১১ঘটিকায় পৌছতেন আর দুপুর ৩টায় বিদ্যালয় ছুটি হয়ে যত। ইউএনও জসিম উদ্দীন বাহুবলে যোগদানের পর থেকে সকাল বিকাল স্কুলগুলোতে ঝাটিকা সফরের কারনে সে চিত্র সম্পূর্ন্ন বদলে গেছে। সকাল ৯টা থেকে ৪টা পর্যন্ত স্কুলগুলো খোলা থাকে। বাচ্চাদের মিট ডে মিল শতভাগ নিশ্চিত করেছেন। বাহুবল উপজেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় মনিটরিং ফোল কমিটির একমাত্র সিভিল সোসাইটির সদস্য ইতিহাসবিদ তরফরত্ন সৈয়দ আবদুল্লাহ বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা করেও প্রশাসনিক সহযোগিতা না থাকায় যা পারিনি বর্তমান ইউএনও সাহেব একমাসেই তা শতভাগ বাস্তবায়ন করেছেন। একটি এলাকার উন্নায়নের প্রধান বিষয়টি হল তার শিক্ষার উন্নায়ন,ও শিশুদের শিক্ষার পরিবেশ উন্নতকরন। তিনি সে কাজটি করে প্রসংশিত হচ্ছেন সর্ব মহলে। আমরা আশা করব তা আগামিতেও অব্যাহত থাকবে।

পাবলিক লাইব্রেরী :
সাংবাদিক বান্ধব উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো জসিম উদ্দীন বাহুবলে যোগদানের পরেই সাংবাদিকরা বাহুবর পাবলিক লাইব্রেরী বন্ধ থাকার কথা তার সামনে তুলে ধরেন। দীর্ঘ সাত বছর ধরে উন্নয়ন বঞ্চিত ও ধ্বংসের ধারপ্রান্তে উপনীত হওয়া বাহুবল পাবলিক লাইব্রেরীর কথা শুনে তিনি এর পূর্ণ সংস্করন ও সম্পূন্ন আধুনিক লাইব্রেরী হিসাবে ঢেলে সাজানোর উদ্দ্যোগ গ্রহণ করেন। কমস্থলে যোগদানের একমাসের মাথায় তিনি লাইব্রেরীর মিটিং আহব্বান করে, উন্নায়ন কমিটি করে এর কাজ শুরু করেন। এব্যাপারে তিনি তার ফেসবুক আইডিতে লিখেন, “মৃতপ্রায় ঐতিহ্যবাহী বাহুবল পাবলিক লাইব্রেরীর প্রাণ ফিরিয়ে আনতে আজ ছুটির দিনে দীর্ঘক্ষণ কার্যনির্বাহি কমিটির সম্মানিত সদস্যদের নিয়ে সভা করলাম. শুনলাম এটি দীর্ঘ সময় পর অনুষ্ঠিত সভা. যাহোক সভাটি কার্যকর ও ফলফ্রসু হয়েছে. আশা করি আগামি 3-4 মাসের মধ্যেই পাবলিক লাইব্রেরি তার প্রাণ ফিরে পাবে.পাবলিক লাইব্রেরি বলতে যা বুঝায় মুল্যবান সংগৃহিত বই পড়ার পরিবেশ এবং জ্ঞানের পরিধি বৃদ্ধি,নির্মল ও সুন্দর মন গঠনের পাশাপাশি আনন্দ লাভ. সকলের সহযোগিতা নিয়ে ঐতিহ্যবাহি বাহুবল পাবলিক লাইব্রেরি পুনর্গঠন করার প্রত্যয় ব্যাক্ত করছি।” এব্যাপারে বাহুবল উপজেলা আওয়ামীলীগের সংগঠনিক সম্পাদক সুহেল আহমদ কুটি এই প্রতিবেদককে বলেন, ঐতিহ্যবাহী বাহুবল পাবলিক লাইব্রেরী দীর্ঘ দিন ধরে তালাবদ্ধ ছিল, লাইব্রেরীর বেহালধসা ও ধ্বংসপ্রায় অবস্থা নিয়ে অনেকদিন ধরে সাংবাদিকরা গনমাধ্যমে লেখালেখি করছিলেন। বিষয়টি আমাদের মাধ্যমে নবাগত ইউএনও সাহেব জানতে পেরে দ্রুত মিটিং ডেকে লাইব্রেরী উন্নায়নের ব্যবস্থা গ্রহন করেন। তার আন্তরিকতার ফলে এটি এখন জেলার সবচেয়ে আধুনিক লাইব্ররীতে রূপ নিতে যাচ্ছে। দুই মাসের ভিতরেই বাহুবলবাসী এই লাইবেরীর মাধ্যমে একজন সৃজনশীল শিক্ষা সাহিত্য বান্ধব উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সৃষ্টিশীলতা দেখতে পাবে। আমরা আশা করব তার এই চেতনা যেন আগামি দিনেও অব্যাহত থাকে।

মসজিদের উন্নয়ন:
বাহুবল উপজেলা কমপ্লেক্স জামে মসজিদ (কোর্ট মসজিদ) এর ইমাম মুয়াজ্জিনদের বেতন উপজেলা প্রসাশন ব্যবস্থা করে থাকে। কিন্তু দীর্ঘ দিন ধরে তারা বেতন ভাতা থেকে বঞ্চিত ছিলেন। নিয়মিত মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিষয়টি জানতে পারেন। তিনি শুনামাত্রই দ্রুত ইমাম মুয়াজ্জিনদের বকেয়া বেতন ভাতা ঈদের আগেই প্রদানের ব্যবস্থা করেন। এব্যাপারে উপজেলা মসজিদের মুয়াজ্জিন তাজুল ইসলাম সিলেট রিপোর্ট ডটকমকে বলেন, তিনি একজন মহৎ ন্যায়পরায়ন মানুষ।

ভেজাল বিরোধী অভিযান:
মো জসিম উদ্দীন বাহুবলে আসার পর থেকেই রমজানে দব্যমূল্য নিয়ন্ত্রন ও ভেজাল খাদ্যদব্য এবং ফরমালিন মিশ্রিত ফলের বিরোদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন। কার ভেজলা বিরোধী এমন অভিযানে জনগন ব্যাপক সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন। ফলে অসাধু ব্যবসায়ীরা নিত্য প্রযোজনীয় জিনিসের দাম বৃদ্ধি ও ভেজাল মিশ্রিনের সুযোগ পান নি।

যানজট নিরসন:
বাহুবলবাসীর দীর্ঘদিনের সবচেয়ে বড় সমস্যা ছিল, অপরিকল্পিত রাস্তায় সিএনজি-অটোরিস্কা স্ট্যন্ড ও যানজাট। বাহুবল বাজার পাড়ি দিতে ঘন্টার অধিক সময় ব্যায় হত। বাজার কমিটি বারবার চেষ্টা করেও শতভাগ জানজাট স্থায়ী সমাধান করতে পারছিলেন না। উপজেলা নির্বাহী মটর মালিক, শ্রমিক, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক ও জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠকে বসেন। তার আন্তরিক প্রচেষ্টার ফলে এক সপ্তাহের ব্যবধানে বাহুবল বাজার শতভাগ যানজট মুক্ত। তিনি প্রসাশনকে নিয়ে নিজে রাস্তায় নেমে কাজ করেছেন। জানজাট নিরসনে গড়ে তুলেছেন বিভিন্ন স্থানে একাধিক নতুন সিএনজি অটোরিকশা স্ট্যন্ড। এব্যাপারে বাহুবল বাজার ব্যাবসায়ী কমিটির নির্বাচিত সাধারন সম্পাদক মো কাজল মিয়া তালুকদার বলেন, আমি সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হবা পর থেকে বাজার কমিটিকে নিয়ে বারবার জানজট নিরসনের চেষ্টা করেছি। কিন্তু প্রসাশনের সহযোগীতা না পাওয়ায় তা শতভাগ আলোর মূখ দেখে নি। সম্প্রতি নবাগত উপজেলা নিবাহী অফিসার মো জসিম উদ্দীনের আন্তরিক প্রচেষ্টার ফলে বাহুবল বাজার জানজট মুস্ত। আমরা তার সকল ভালকাজে ব্যাবসায়ীদদের নিয়ে সাথে থাকব সবসময়। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ সহ তার সকল প্রসংশনীয় কাজ ব্যবসায়ীরা সহযোগীতে করে যাবে।

অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ:
বাহুবল উপজেলাবাসীর আরেকটি দীর্ঘদিনের সমস্যা ছিল রাস্তার পাশে অবৈধ স্থাপনা ও জায়গা দখল। মানুষের চলাচলের পথে ফুটফাত স্থাপন। নবাগত ইউজেলা নির্বাহী অফিসার গতকাল থেকে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে সেসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেন। গতকাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের বিভিন্ন আইডিতে লাইভ সসম্প্রচারিত হলে সর্ব মহলে প্রসংশা কুড়ায়। এসময় জুয়েল আহমদ নামে একজন মন্তব্য করেন, বাহুবলের নবাগত ইউএনও স্যারের এসব কাজ সর্ব মহলে প্রসংশনীয় হচ্ছে। তবে আশংকার কথা হল বাহুবলে ভাল অফিসাররা ব্যক্তিস্বার্থের রাজনীতির কুটচালের কারনে বেশি দিন ভাল থাকতে পারেন না। আমরা আশা করব জনগনকে সাথে নিয়ে তিনি যতোদিন বাহুবলে থাকেন যেন ভালভাবে থাকতে পারেন।

এব্যাপরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো জসিম উদ্দীন এই প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে জানান, আগামিতে তিনি বাহুবলে নারী শিক্ষা উন্নয়নে মহিলা কলেজ প্রতিষ্টার উদ্দ্যোগ গ্রহন করতে চান। এছাড়া বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কস্পলেক্সের চিকিৎসা সেবা শতভাগ নিশ্চিত ও জনবান্ধব করতে চান।
উপজেলা নির্বাহী অফিসারের এসব মহতি প্রসংশনীয় উদ্দ্যোগ সম্পর্কে ঐতিহ্যবাহী বাহুবল প্রেসক্লাবের সভাপতি,জাতীয় দৈনিক ইত্তেফাক প্রতিনিধি সাংবাদিক সৈয়দ আব্দুল মান্নান বলেন, বাহুবলবাসীর উচিত এমন সৎ ও সাহসী কমোদ্দমী নিবার্হী অফিসারের সকলকাজে সহযোগীতা করা। তখন আশা করা যায় তিনি ভাল কিছু দেখার মতো কাজ উপহার দিতে পারবেন। তার সেই ইচ্ছে, সাহস ও মনোবল রয়েছে।

এই সংবাদটি 1,086 বার পড়া হয়েছে