Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | বঙ্গবন্ধু রাষ্ট্রের স্থপতি জাতির পিতা
মঙ্গলবার, ১৫ আগ ২০১৭ ০৪:০৮ ঘণ্টা

বঙ্গবন্ধু রাষ্ট্রের স্থপতি জাতির পিতা

Share Button

বঙ্গবন্ধু রাষ্ট্রের স্থপতি জাতির পিতা

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী : আজ ১৫ আগস্ট— জাতীয় শোক দিবস। ১৯৭৫ সালের এই দিনে আমরা হারিয়েছি বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে।

শুধু বঙ্গবন্ধুই নন, নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে তার পরিবারের অন্য সদস্যদেরও। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের স্বাধীনতার সূর্য উদিত হওয়ার পর থেকেই শুরু হয় ষড়যন্ত্র এবং চক্রান্তের রাজনীতি। ইতিহাসের অমর পুরুষ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে তা আরও বাড়তে থাকে। যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে পুনর্গঠন নিয়ে বার বার বাধার মুখে পড়েন বঙ্গবন্ধু। এই প্রক্রিয়ায় নিষ্ঠুর ও নৃশংসভাবে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট হত্যা করা হয় তাকে। বিশ্বের বুকে ‘বাংলাদেশ’ শব্দটি যিনি সৃষ্টি করেছেন, তাকেই বাঁচতে দিল না দেশি-বিদেশি চক্রান্তকারীরা। এখনো এ হত্যাকাণ্ডকে ঘিরে বেরিয়ে আসছে অনেক অজানা রহস্য। জাতীয় শোক দিবসে সেইসব রহস্য উন্মোচনে আমাদের বিশেষ আয়োজন ‘শোকাবহ ১৫ আগস্ট’। অন্নদাশঙ্কর রায়ের সেই কবিতার মতো আমরা বিশ্বাস করি, যতদিন রবে পদ্মা মেঘনা /গৌরী যমুনা বহমান/ততদিন রবে কীর্তি তোমার/শেখ মুজিবুর রহমান। দিকে দিকে আজও রক্ত গঙ্গা/অশ্রু গঙ্গা বহমান/তবু নাই ভয়, হবে হবেই জয়, জয় মুজিবুর রহমান!

 

পাত্রাধার, না পাত্র? একদল পণ্ডিত নাকি তর্কটা তুলেছিলেন। রবীন্দ্রনাথের ভাষায় এদের পরিচয় পণ্ডিতমূর্খ! বাংলাদেশেও দেখা যাচ্ছে এ ধরনের কিছু পণ্ডিতমূর্খের  আবির্ভাব ঘটেছে। এরা আবার রাজনীতি করেন। রাজনীতিতেও নানা কুতর্ক তুলে থাকেন। পাত্রাধার, না পাত্রের বিতর্কে নির্ধারিত হয়েছিল দুটিই  অভিন্ন বস্তু। তা নিয়ে পাণ্ডিত্য ফলানোই আসলে মূর্খতা। বর্তমানে তর্ক তোলা হয়েছে তিনি পিতা, না স্থপতি? ফাদার, না আর্কিটেক্ট? এক পণ্ডিতমূর্খ যুক্তি দেখিয়েছেন তিনি স্বাধীনতার স্থপতি। পিতা নন। কেন নন? আমরা যদি আধুনিক নেশন স্টেটের সংজ্ঞা মেনে নিই, তাহলে এই নেশন স্টেটের কারিগর বা আর্কিটেক্টকে পিতা বলতে আপত্তি কী?

বিতর্ক ও বিভ্রান্তি সৃষ্টির চেষ্টা চলছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে। এতকাল তাকে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি হিসেবেও স্বীকার করা হয়নি। ৪০ বছর ধরে চলেছে ইতিহাস থেকে তার নাম মুছে ফেলার চেষ্টা। চেষ্টা চলেছে পিতৃচরিত্র হননের এবং মিথ্যার কুয়াশায় ঢেকে দিতে একটি গৌরবোজ্জ্বল মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। সেই চেষ্টা সফল হয়নি। খান্নাছের সকল ওয়াছওয়াছা ভেদ করে জাতির মনে সত্যের সূর্য জ্বলে উঠেছে। মুক্তিদাতা, জাতির জনক ও রাষ্ট্রের স্থপতিকে চিনে নিতে দেশের সর্বস্তরের মানুষের কিছুমাত্র ভুল হয়নি। তাদের কাছে পিতা ও স্থপতির কথা দুটোর মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। যিনি নির্মাণ করেন তিনিই নির্মাতা বা পিতা। যিনি জন্ম দেন তিনিই জনক। এই সত্য মেনে নিতে ধর্মের কোনো নিষেধ নেই। বরং সমর্থন আছে।

বঙ্গবন্ধু নব্য বাঙালি জাতির জনক, বাঙালির স্বাধীন রাষ্ট্রের স্থপতি। আবার শৃঙ্খলিত জাতির শিকল ভাঙার যুদ্ধের তিনি সেনাপতি। তিনি মুক্তিদাতা। তাই দেশের মানুষ সশ্রদ্ধভাবে তার জন্মোৎসবে, শোকার্ত মৃত্যুদিবসেও অবনত মস্তকে জনক, স্থপতি ও মুক্তিদাতার উদ্দেশে শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলে— ‘মুক্তিদাতা, তোমারও ক্ষমা, তোমারও দয়া রবে চির পাথেয় চিরযাত্রায়। ’ কুতার্কিকরা কেউ কেউ বলেন, আরে বাঙালি জাতির ইতিহাস তো হাজার বছরের। আর মুজিব জন্মালেন এই সেদিন। তার আগেই বাঙালি জাতির জন্ম হয়েছিল। তিনি কী করে জাতির জনক হন? এদের কুতর্কের জবাবে বলতে হয়, তুর্কিরা তো আরও প্রাচীন জাতি। তাদের বিশাল সাম্রাজ্য ছিল। তাহলে এই সেদিন যে তুরস্ক নামক রাষ্ট্রের জন্ম তার জনক ও স্থপতি কী করে কামাল পাশা হন? তাকে কেন বলা হয় আতাতুর্ক বা তুর্কিদের পিতা? এ প্রশ্নের জবাব, তুরস্ক এককালে যত বড় সাম্রাজ্যই থাকুক, তা কালচক্রে বহুধাবিভক্ত হয়ে হারিয়ে গিয়েছিল। মোস্তফা কামাল পাশা একটি সশস্ত্র যুদ্ধের দ্বারা আধুনিক নেশন স্টেট হিসেবে তুরস্কের জন্ম দিয়েছিলেন, তুর্কি জাতির পরিচয় আবার প্রতিষ্ঠা করেছেন। তাই তিনি নব্য তুর্কির জনক আতাতুর্ক। শেখ মুজিবুর রহমানও আতাতুর্কের মতো নব্য বাংলার জনক। বাংলাদেশকেও বহুধাবিভক্ত করে বাংলাদেশ ও বাঙালি নামের পরিচয় মুছে ফেলা হয়েছিল। পাকিস্তান আমলে বাংলাদেশ ছিল পূর্ব পাকিস্তান। আমাদের একমাত্র পরিচয় ছিল পাকিস্তানি। আমাদের হাজার বছরের জাতিসত্তার নাম ও পরিচয় মুছে ফেলা হয়েছিল। টুঙ্গিপাড়ার শেখ মুজিব সেই নাম ও পরিচয় উদ্ধারের জন্য আবার যুদ্ধে নামেন। তিনিই ঢাকার পল্টন ময়দানের সভায় দাঁড়িয়ে ঘোষণা দেন— ‘আজ থেকে এই ভূখণ্ডের নাম আবার বাংলাদেশ। আমাদের বড় পরিচয় আমরা বাঙালি। ’ সেদিনের সাড়ে সাত কোটি মানুষের মনে এই ঘোষণা আবার আত্মপরিচয় ফিরিয়ে এনেছিল। বাঙালির স্বাধীন নেশন স্টেট প্রতিষ্ঠার যুদ্ধের সূচনা সেদিন ওই একটি ঘোষণাতেই— ‘এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম। ’

৪০ বছর হয়ে গেছে বাঙালি তার জনককে হারিয়েছে। কিন্তু রয়ে গেছে তার নির্মাণ-ভাস্কর্য স্বাধীন বাংলাদেশ।

এই বাংলাদেশের রক্তসূর্যখচিত পতাকা জনকের রক্তে রঞ্জিত। এই রক্তসূর্যের আলোকেই কুতর্ক ও বিভ্রান্তির সব কুয়াশা কেটে যাবে। যেমন কাটতে শুরু করেছে এখন। প্রতি বছর পনের আগস্ট তারিখে শোক থেকে যে শক্তি জেগে ওঠে বাঙালির মনে, তাই তার অস্তিত্ব ও স্বাধীনতার সবচেয়ে বড় রক্ষাকবচ। প্রতি বছর পনের আগস্ট তারিখে মনে হয়— বঙ্গবন্ধু তুমি নেই, কিন্তু ছড়িয়ে আছ বাংলাদেশজুড়ে। তুমি অমিতায়, তোমার মৃত্যু নেই।

এই সংবাদটি 1,015 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com