সোমবার, ২১ আগ ২০১৭ ০১:০৮ ঘণ্টা

বন্যা কবলিত বাংলাদেশ

Share Button

বন্যা কবলিত বাংলাদেশ

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :: ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বাংলাদেশ একটি দুর্যোগপূর্ণ দেশ। বিভিন্ন কারণে দুর্যোগ আমাদের নিত্যসঙ্গী। বন্যা, ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস, খরা, ভূমিকম্প প্রভৃতি দুর্যোগের সাথে লড়াই করে আমাদের টিকে থাকতে হয়। দুর্যোগকে বন্ধ করা সম্ভবপর নয় কিন্তু পূর্ব প্রস্তুতির মাধ্যমে এর ঝুঁকি অনেকাংশেই কমিয়ে আনা সম্ভব। এটি সম্ভব হলে সম্পদ, প্রাণহানি ও আর্থ-সামাজিক ক্ষয়ক্ষতিও কমে আসতে পারে। নদী মাতৃক বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সময়ের মধ্যে সবচেয়ে বড় বন্যা হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বন্যার পূর্বাভাসবিষয়ক দুটি আন্তর্জাতিক সংস্থা। ইতোমধ্যে দক্ষিণ এশিয়ায় বন্যায় অন্তত পাঁচ শ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এক কোটি ৬০ লাখেরও বেশি মানুষ। এই বন্যায় কয়েক বছরের মধ্যে এই অঞ্চলের সবচেয়ে মারাত্মক মানবিক সংকট সৃষ্টি করতে পারে বলে আশঙ্কা করছে আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলো। বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, এবারের বন্যায় এখনো পর্যন্ত বাংলাদেশ, নেপাল ও ভারতে প্রায় ৫০০ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। সামগ্রিক পরিস্থিতি আরও খারাপ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এই প্রতিবেদন তৈরি পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্যমতে, সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোণা,রংপুর, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, নীলফামারী, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটিসহ ২০ জেলার ৩৫৬টি উপজেলার ৩৫৮টি ইউনিয়ন দ্বিতীয় দফার এই বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। এ পর্যন্ত প্রায় লাখ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মারাগেছে অর্ধশতের উপরে। বানের পানি ভেঙে প্রায় ৮০০ ভারতীয় নারী-পুরুষ-শিশু বাংলাদেশের লালমনিরহাটের দুই গ্রামে আশ্রয় নিয়েছে!

বাংলাদেশে এবার উজানের ব্রহ্মপুত্র, গঙ্গা ও তিস্তা অববাহিকায় পানির উচ্চতা ৭৫ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে। এদিকে ১৯ আগস্টের মধ্যে ওই পানি বাংলাদেশের নদ-নদীগুলো দিয়ে প্রবেশ করতে পারে বলে আশংকা করা যাচ্ছে। ফলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এ বছর দেশের সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ ১৯৮৮ সালের বন্যাকেও ছাপিয়ে যেতে পারে। জুলাই মাসে একদফা বন্যার পর আগস্ট মাসের শেষে যে আবার বন্যা হতে পারে সে ধরনের আশঙ্কা ছিল।

জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কের কার্যালয় (ইউএনআরসিও) ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের যৌথ গবেষণাকেন্দ্র (জেআরসি) বৈশ্বিক বন্যা পরিস্থিতিবিষয়ক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ১০ আগস্ট সংস্থাটির পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ, ভারত, চীন, ভুটান ও নেপালের বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। ব্রহ্মপুত্র অববাহিকার অঞ্চলগুলোতে গত শুক্রবার থেকে পানি বাড়ছে এবং ১৯ আগস্ট পর্যন্ত এই পানি ভাটির দিকে প্রবাহিত হতে পারে। ২০০ বছরের বেশি সময়ের ইতিহাসে ব্রহ্মপুত্রের অববাহিকার উজানে বন্যার মাত্রা সবচেয়ে ভয়াবহ হতে পারে। আবার দ্য ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর মিডিয়াম-রেঞ্জ ওয়েদার ফোরকাস্টসের (ইসিএমডব্লিউএফ) পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আগামী ১০ দিনের মধ্যে হিমালয়ের দক্ষিণাঞ্চলে ২০০ মিলিমিটারের বেশি বৃষ্টিপাত হতে পারে। এতে করে ব্রহ্মপুত্রের ভারত ও বাংলাদেশ অংশে পানি বাড়বে। ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক আইনুন নিশাত বলেন, এ বছর ইতিহাসের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাতের কবলে পড়ে চীন ও ভারতে ইতিমধ্যে ভয়াবহ বন্যা শুরু হয়ে গেছে। ওই দুই দেশের ভেতর দিয়ে আসা ব্রহ্মপুত্র ও গঙ্গা নদীর পানি স্মরণাতীত কালের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে। এই ধারা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশে ১৯৮৮ সালের চেয়ে বড় ও ভয়াবহ বন্যা হতে পারে। এ জন্য তিনি সরকারি-বেসরকারি সব সংস্থাকে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিতে পরামর্শ দেন।

এবারের বন্যা প্রথমেই হাওর এলাকাকে আক্রান্ত করে। হাওর এলাকা বর্ষাকালে এমনিতেই পানিতে ভাসে। হাওর এলাকায় বন্যার ধরন ও বৈশিষ্ট্য অন্যান্য এলাকার তুলনায় অনেকাংশে ভিন্নতর। আঞ্চলিক ভাষায় হাওর এলাকাকে বলা হয় ভাটি অঞ্চল। এলাকায় মাছসহ ধানও যথেষ্ট হয়। অতীতের বন্যায় মাছের ক্ষতির বিষয়টি শোনা যায়নি। বরাবরের মতো আকস্মিক বন্যায় বোরো ধানের ক্ষতির কথা শোনা গেছে। বোরো ধান রক্ষার লক্ষ্যে পানি উন্নয়ন বোর্ড ডুবন্ত বাঁধও অতীতে নির্মাণ করেছিল। এলাকার কৃষকরা এতে খুশিও হয়েছিল। কিন্তু এবার অনেক জায়গায় বাঁধ নিম্নমানের হওয়ায় ভেঙে পড়েছে। এর ফলে বোরো ধানের ক্ষতি হয়। এর সঙ্গে প্রথমবারের মতো মরা মাছের খবরও সংবাদমাধ্যমে প্রচার করা হয়। কারণের বিষয়ে শোনা গিয়েছিল কোনো রাসায়নিক বিষক্রিয়ার ফলেই অনেক মাছ মারা গেছে। কিন্তু এরপর রাসায়নিক বিষকে শনাক্ত করার কোনো খবর পাওয়া যায়নি। ভবিষ্যতে প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা কী হবে সে বিষয়টিও জানা যায়নি। এ বিষয়টি দুঃখজনক। বরাবরের মতো এবারও বন্যাদুর্গত এলাকাবাসীর ত্রাণের অপ্রতুলতা নিয়ে ক্ষোভের কথা শোনা গেছে। বাস্তবতা হলো, বন্যার পানি না কমা পর্যন্ত স্থানীয় প্রশাসন ও স্থানীয় সরকার প্রতিনিধিদের পক্ষে সব জায়গায় যাওয়া সম্ভব হয় না। কারণ প্রয়োজনীয় জলযান নেই।দেশ ব্যাপি বন্যায় সবচেয়ে অনিরাপদ অবস্থায় রয়েছে শিশু নারী ও বয়স্করা।

বিগত ১৮ আগষ্ট সুনামএঞ্জর জামালগঞ্জ,ধর্মপাশা,নেত্রকোনার হাওর জনপদ (সিলেট রিপোর্ট প্রতিনিধি টিম) সরেজমিন ঘুরে যা প্রতিয়মান হয়েছে তা উদ্বেগ জনক।বলা যায়,‘বিগত বহু বছরের মধ্যে এটি অন্যতম মানবিক সংকটে পরিণত হতে চলেছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত লাখ লাখ মানুষের প্রতিদিনের চাহিদা পূরণে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। নেপাল, বাংলাদেশ ও ভারতের লাখ লাখ মানুষ বন্যার কারণে প্রচণ্ড খাদ্য সংকটের মুখোমুখি হচ্ছে এবং দূষিত পানির কারণে রোগে আক্রান্ত হতে যাচ্ছে।’

সুনামগঞ্জের হাওর এলাকার কিছু পরেই সিলেট ও মৌলভীবাজারের বন্যার খবর জানা যায়। এর কিছু পরেই রাজশাহী ও রংপুর বিভাগসহ ময়মনসিংহ বিভাগের জনমানুষও বন্যায় আক্রান্ত হয়। এ পর্যন্ত বন্যার ক্ষয়ক্ষতির সামগ্রিক চিত্র পাওয়া যায়নি, যা পাওয়া গেছে তা এলাকাভিত্তিক। ১৭ আগস্ট একটি পত্রিকার সমন্বিত হিসাব অনুযায়ী ২৬ জেলার বন্যায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণার সংখ্যা দুই হাজার ৬৪০। জলমগ্ন ফসলি জমি দুই লাখ ৮৫ হাজার ৮৪৭ হেক্টর, যা আপাতদৃষ্টিতে মোট ফসলি জমির তুলনায় অতিশয় আশঙ্কাজনক নয়। তবে আক্রান্ত কৃষকদের জন্য মর্মান্তিক। জলমগ্ন ধানের ক্ষতির বিষয় এখনই জানা সম্ভব নয়। এ ছাড়া রয়েছে মৌসুমভিত্তিক ধান চাষের নিরন্তর চিত্র। এ মৌসুমে বন্যায় মৃত ব্যক্তির সংখ্যা ১৮ আগস্ট পর্যন্ত ৭১ জন। এ সংখ্যা সরকারি হিসাবের তুলনায় কম। বরাবর তা-ই হয়। সরকারি হিসাব ও পত্রিকার হিসাবে কিছু গরমিল থাকে। কোনটা ভুল কোনটা নির্ভুল তা জানার উপায় নেই। ১৯৮৭, ১৯৮৮ ও ১৯৯৮ সালে বন্যার প্রকোপ ছিল ব্যাপক। ১৯৮৮ সালের বন্যায় রাজধানীর অনেক এলাকাই জলমগ্ন ছিল। এমনকি গুলশানও। এ এলাকায় নৌকার ব্যবহার তখন দৃশ্যমান ছিল। এবার এখনো তা হয়নি। তবে একেবারেই যে হবে না তা নিশ্চিতভাবে বলা যায় না। কারণ এ বছর মৌসুমি বায়ুর ধরন ও বৈশিষ্ট্য অতীতের বন্যার বছরের সমরূপ। আবহাওয়াবিদরা বড় ধরনের বন্যার পূর্বাভাস দিয়েছেন। কাজেই আশঙ্কা এখনো কাটেনি।

সিলেট, রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের বন্যার কারণ হিসেবে ভারতের আসাম, ফারাক্কা এলাকা ও তিস্তা এলাকার কথা উল্লেখ করা হয়। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। তবে এবারে রংপুর, নীলফামারী ও লালমনিরহাটের কিছু জনমানুষ ভারতের তিস্তা ব্যারাজের ‘কপাট’ খুলে দেওয়ার বিষয় উল্লেখ করেছেন। অন্যদিকে আমাদের তিস্তা ব্যারাজের সুরক্ষার দায়িত্বরত এক প্রকৌশলী বলেছেন, উজান থেকে আসা পানির গতি এতই তীব্র যে ব্যারাজ রক্ষার জন্য এ গতি প্রশমিত না হলে আমাদের ব্যারাজের ‘কপাট’ও খুলে দিতে হবে। অন্যথায় ব্যারাজ রক্ষা করা সম্ভব না-ও হতে পারে। ১৭ আগস্ট পর্যন্ত এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে কি না তা জানা যায়নি। এ সম্পর্কে যে সংবাদ পাওয়া গেছে তা আশাব্যঞ্জক। দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, নীলফামারী, রংপুরে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। এ তালিকায় সুনামগঞ্জ, সিলেট, নেত্রকোনা, ময়মনসিংহ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়াও রয়েছে। সার্বিকভাবে ১৬ জেলায় নতুন করে বন্যা ও ১১ জেলায় পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। সুদূর অতীতে অর্থাৎ ১৯৬৮ সালের এক বন্যায় দিনাজপুর শহর জলমগ্ন হয়। এবারও তাই হয়েছে।
পানির নিচে ফসলি জমির পরিমাণ দুই লাখ ৮৫ হাজার ৮৪৭ হেক্টর বলে গণমাধ্যমে দেখা গেছে। এটাও জানা গেছে যে খাদ্য মন্ত্রণালয় বন্যাজনিত কারণে খাদ্যশস্য উৎপাদনের ঘাটতি পুষিয়ে নেওয়ার জন্য ২০ লাখ টন খাদ্য আমদানি করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। ক্ষতির কারণ বন্যা ছাড়াও ১৯ জেলায় বোরো ধানে ব্লাস্টের আক্রমণ উল্লেখ করা হয়। তবে এখন পর্যন্ত আমনের সম্ভাব্য ক্ষতি নিরূপণ করা সম্ভব হয়নি। যা জানা গেছে তা হলো, এ বছর ৫৬ লাখ হেক্টর জমিতে আমন চাষ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। গত ১৩ আগস্ট পর্যন্ত রোপা আমনের পরিমাণ ৩২ লাখ হেক্টর মর্মে জানা গেছে। এর মধ্যে বন্যাকবলিত এলাকায় রোপা আমন করা হয়েছে কত হেক্টরে, তা এখনো জানা সম্ভব হয়নি। পানি সরার পরই তা জানা যাবে। সাধারণভাবে এখন যা বলা সম্ভব তা হলো, অধিক সময় জলমগ্ন না থাকলে ক্ষতির পরিমাণ আশঙ্কাজনক না হওয়ারই কথা। অন্যদিকে অতীতের অভিজ্ঞতার আলোকে এ কথা বলা সম্ভব, যে পরিমাণ রোপা আমনের ক্ষতি হবে তা পুষিয়ে নেওয়ার জন্য ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা আবার অর্থাৎ দ্বিতীয়বার রোপা আমন চাষের উদ্যোগ গ্রহণ করবে। এর জন্য প্রয়োজন হবে বীজতলা থেকে বীজ অথবা বাজার থেকে চারা সংগ্রহ করা। অতীতে বন্যা পরবর্তী সময়ে এ মৌসুমে গ্রামবাংলার হাটবাজারে চারা বিক্রির ব্যবসা দৃশ্যমান ছিল। বেসরকারি খাতকে খাদ্যশস্য আমদানিতে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে ১৬ আগস্ট মন্ত্রী পর্যায়ের খাদ্যবিষয়ক কমিটি আমদানি শুল্ক ২ শতাংশ নির্ধারণ করেছে। এটা হলো দ্বিতীয় দফা হ্রাসকরণের সিদ্ধান্ত। অনেকের মতে, এর আগে যখন শুল্ক ২০ থেকে ৭ শতাংশ করা হয়েছিল, তখনই একবারেই এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলে বেসরকারি আমদানিকারকরা  উৎসাহিত হতো। অতীতে সব সময় খাদ্যশস্য শুল্কমুক্ত ছিল।

পত্রিকান্তরে জানা যায়, প্রথমবার শুল্কহার ২০ থেকে ৭ শতাংশ করার পরও বেসরকারি খাত অধিক আমদানিতে আশাব্যঞ্জক সাড়া দেয়নি। অন্যদিকে খাদ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেছেন যে আমদানি শুল্ক ২ শতাংশ করার পরও বাজারে দাম কমবে না। কেন কমবে না সে বিষয় উল্লেখ করা হয়নি। অতীতের অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে যে শুল্কহার কমালে আমদানির পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। কিন্তু দাম আশানুরূপ হ্রাস পায় না। এ ছাড়া রয়েছে অন্য একটি কারণ। অধিক হারে আমদানির সম্ভাব্যতা জানলেই রপ্তানিকারক দেশগুলো রপ্তানি মূল্য বৃদ্ধি করে। ২০০৭-০৮ সালের খাদ্য ঘাটতির সময় এ বিষয়টি দৃশ্যমান ছিল। সিডর-আইলার আঘাতের পর ভারতসহ কিছু রপ্তানিকারক দেশ প্রথমে খাদ্যশস্য রপ্তানি নিষিদ্ধ করেও পরে অধিক মূল্যে সীমিত পরিমাণ রপ্তানির সিদ্ধান্ত দেয়। ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় ওই সময় মন্ত্রী হিসেবে বাংলাদেশ সফরে এসে পাঁচ লাখ টন চাল রপ্তানির প্রতিশ্রুতি দেন। শেষ পর্যন্ত অনেক দর-কষাকষির পর রপ্তানির ন্যূনতম মূল্য টনপ্রতি ৫০০ মার্কিন ডলার দাবি করা হয়।

এদিকে, .পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেছেন, ‘এবারের বন্যা একটু ভিন্নরকম ও ভয়াবহ।’ তিনি আরো বলেন, ‘বন্যার্তদের জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য মজুদ আছে।’ সৈয়দপুরের পাটোয়ারীপাড়ায় খড়খড়িয়া নদীর ভেঙে যাওয়া বাঁধ পরিদর্শন করতে গিয়ে এসব কথা বলেন আনিসুল ইসলাম মাহমুদ।
 রোববার সৈয়দপুর শহর রক্ষা বাঁধ ধসে যাওয়ায় শহরের বিভিন্ন এলাকায় বন্যার পানি হু হু করে ঢুকছে। এরই মধ্যে শহরের মিস্ত্রিপাড়া, বাঁশবাড়ি, নতুন বাবুপাড়া, কুন্দল, কাজিরহাট ও পাটোয়ারীপাড়া এলাকা কোমর পানিতে তলিয়ে গেছে। এতে শহরের ওইসব এলাকায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ৩০ হাজার  মানুষ। এ ছাড়া সৈয়দপুর বিমান বন্দরের সীমানা প্রচীরের ৩০ থেকে ৪০ মিটার ধসে পড়েছে বলে জানা গেছে।

সোমবার সকালে সৈয়দপুর শহরের পাটোয়ারীপাড়ায় খড়খড়িয়া নদীর ভেঙে যাওয়া বাঁধ পরিদর্শন করেছেন পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। এ সময় তিনি বলেন, ‘দুর্গত মানুষের পাশে গিয়ে দাঁড়াতে মন্ত্রীদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। নদী থেকে পলি অপসারণ অব্যাহত রয়েছে। এ কারণে দেশে কয়েক বছর বন্যা হয়নি। তবে এবারের বন্যা একটু ভিন্নরকম ও ভয়াবহ। সরকার পূর্ব থেকে সতর্ক করছিল, চলতি মৌসুমে প্রচুর বৃষ্টিপাত হবে। ভারতেও প্রচুর বৃষ্টিপাত হচ্ছে। কাজেই ওই বর্ষণের কারণে ভয়াবহ রূপ নিয়েছে বন্যা।’সৈয়দপুর শহর রক্ষা বাঁধটি দ্রুত মেরামতের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডকে নির্দেশ দিয়েছেন পানিসম্পদমন্ত্রী। আনিসুল ইসলাম বলেন, ‘বিলীন হওয়া বাঁধ মেরামতে স্থানীয় জনগণকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করছে সেনাবাহিনী। ভবিষ্যতে বন্যা মোকাবিলায় সরকার স্থায়ী পরিকল্পনা গ্রহণ করছে।’

১৫ আগস্ট, ২০১৭ দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের সংবাদ শিরুনাম ছিলো- ”বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ, দুই দিনে ৫৮ জনের মৃত্যু”‘
।সংবাদে বলা হয়,  টানা বৃষ্টি ও পাহাড় থেকে নেমে আসা পানিতে তলিয়ে গেছে দেশের উত্তরাঞ্চলের ২০টি জেলা। গত দু’দিনে মারা গেছেন ৫৮ জন।
অন্যদিকে বন্যায় ভেঙে গেছে বেশ কয়েকটি নদী রক্ষার বাঁধ। পানির স্রোতের তীব্রতায় হুমকির মুখে পড়েছে তিস্তা ব্যারেজ এলাকা। সংশ্লিষ্ট এলাকায় রেড অ্যালার্ট জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। রেললাইন ও মহাসড়কের উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হওয়াসহ মহাসড়কের কয়েক জায়গায় ভেঙে যাওয়ায় লালমনিরহাটের সঙ্গে বন্ধ হয়ে গেছে রেল ও সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা। একই সঙ্গে উত্তরাঞ্চলের কয়েকটি জেলার অধিকাংশ এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহও বন্ধ রাখা হয়েছে।
অন্যদিকে বাংলাদেশে উজানের ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা ও গঙ্গা অববাহিকা থেকে প্রচুর পানি ধেয়ে আসার খবর দিয়েছে আন্তর্জাতিক দুটি সংস্থা। জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কের কার্যালয় (ইউএনআরসিও) ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের যৌথ গবেষণাকেন্দ্র (জেআরসি) তাদের রিপোর্টে জানিয়েছে, ব্রহ্মপুত্র অববাহিকার অঞ্চলগুলোতে গত শুক্রবার থেকে পানি বাড়ছে। আগামী ১৯শে আগস্ট পর্যন্ত এই পানি বাংলাদেশের ভাটির দিকে প্রবাহিত হবে। রিপোর্টে বলা হয় বিগত ১০০ বছরের মধ্যে তিব্বতের ব্রহ্মপুত্র অববাহিকায় সবচেয়ে বেশি পানি বেড়েছে চলতি বছর। ৯৮ বছরের মধ্যে চলতি বছর সব চেয়ে বেশি পানি বেড়েছে তিস্তা অববাহিকায়। এবং ৭৫ বছরের মধ্যে চলতি বছর সব চেয়ে বেশি পানি বেড়েছে গঙ্গা অববাহিকায়।
দিনাজপুর :  দিনাজপুরে বন্যা পরিস্থিতি আরও অবনতি হয়েছে। জেলার সবকটি নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। শহর রক্ষাবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে বিভিন্ন এলাকা। সকাল পর্যন্ত বন্যার পানিতে ডুবে আরও চারজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আগের দিন মারা যান ৯ জন। জেলার বিভিন্ন সড়কে বাস-ট্রাকসহ বড় যান চলাচল করলেও অন্যান্য জেলার সঙ্গে দিনাজপুরের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।
কুড়িগ্রাম : বৃষ্টিপাত থামলেও ধরলা ও ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি অব্যাহত আছে। বন্যার পানিতে ডুবে আরও ৪ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। রাজারহাটে তিস্তা-রমনা রেললাইনের ব্রিজের পিলার ভেঙে যাওয়ায় ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, ধরলা ও ব্রহ্মপুত্র নদের পানি অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। ধরলার পানি সেতু পয়েন্টে বিপদসীমার ১৩০ সেন্টিমিটার, চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ৬৭ সেন্টিমিটার, নুন খাওয়া পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ৫ সেন্টিমিটার এবং পাটেশ্বরী পয়েন্টে দুধকুমারের পানি বিপদসীমার ১৩৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন জেলার বিভিন্ন এলাকার প্রায় চার লাখ মানুষ। জেলার ৫৯১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনির্দিষ্টকালের জন্য পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ডুবে যাওয়ায় ৮৩টি কমিউনিটি ক্লিনিকের কার্যক্রমও বন্ধ হয়ে গেছে।
রংপুর : রংপুরে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত থাকায় বানভাসি মানুষ চরম দুর্ভোগে দিন কাটাচ্ছেন। রবিবার ভোরে গঙ্গাচড়ার গজঘণ্টায় তিস্তার ডানতীর রক্ষাবাঁধের ৮০ মিটার  এবং ছালাপাক উপ-বাঁধের ২০০ মিটার ভেঙে যাওয়া স্থান মেরামতে পানি উন্নয়ন বোর্ড দিনরাত কাজ করছে। বন্যাকবলিত এলাকায় ১ হাজার ৩১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা বাঁধ মেরামতে সার্বক্ষণিক তদারকি করছেন।
জামালপুর : বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে ৬০ বছরের বন্যার রেকর্ড ভেঙে যমুনার পানি বিপদসীমার ১২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের  নির্বাহী প্রকৌশলী নবকুমার চৌধুরী জানিয়েছেন, যমুনার পানি আরও বেড়ে বিপদসীমার ১৫০ ওপরে উঠে যেতে পারে। এদিকে যমুনা, ব্রহ্মপুত্রসহ শাখা নদীগুলোর পানি বাড়ছে হু হু করে। ইসলামপুর, দেওয়ানগঞ্জ ছাড়াও নতুন করে বন্যা প্লাবিত হয়েছে মেলান্দহ, মাদারগঞ্জ ও সরিষাবাড়ী উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকা। সব মিলিয়ে জেলার ৫  উপজেলার ৩০টি ইউনিয়নের দেড় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় বন্ধ হয়ে গেছে মেলান্দহ-মাহমুদপুর, ইসলামপুরের আমতলী-শিংভাঙ্গা, আমতলী-উলিয়া বাজার, মলমগঞ্জ-জারুলতলা, ইসলামপুর-গুঠাইল সড়ক যোগাযোগ। বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে জেলার ২০০টি  শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।
বগুড়া : সারিয়াকান্দি পয়েন্টে যমুনার পানি বিপদসীমার ৮৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে সারিয়াকান্দি, ধুনট ও সোনাতলা উপজেলার নদীতীরবর্তী এলাকার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। লোকজনের অনেকেই বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে আশ্রয় নিয়েছেন। জেলা প্রশাসন বলছে, বন্যায় সাড়ে ১৫ হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ময়মনসিংহ : সীমান্তবর্তী উপজেলা ধোবাউড়ায় নিতাই নদীর বাঁধ ভেঙে ৫টি ইউনিয়নের ৮০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দী হয়েছেন প্রায় ৮০ হাজার মানুষ। স্রোতে ভেসে গেছে কয়েকশ বাড়ি। নতুন করে তলিয়ে গেছে রাস্তাঘাট, ফসলি জমি। মানবেতর জীবনযাপন করছেন বন্যার্তরা।

টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলে যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ২৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে ভূঞাপুর উপজেলার গাবসারা, অর্জুনা, গোবিন্দাসী ও নিকরাইল ইউনিয়নের নদীতীরবর্তী কয়েকটি গ্রাম দ্বিতীয় দফায় বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে। এসব এলাকার মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছেন।

রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) : লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার কাটাখালী, জালিয়ার চর, চরলক্ষ্মী, কানিবগার চর, টুনুর চর ও ঘাষিয়ার চর এলাকা বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। মেঘনা নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে নিম্নাঞ্চল এলাকার নদী, সংযুক্ত খাল, বসতঘর, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও রাস্তাঘাট এখন হাঁটু এবং কোমর পানিতে ডুবে আছে।

রাজশাহী : শিব ও বারনই নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। মোহনপুরে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। বাগমারায় বেড়িবাঁধ ভেঙে তলিয়ে গেছে কয়েক হাজার হেক্টর জমির ফসল।

সদরপুর (ফরিদপুর) : সদরপুর ও চরভদ্রাসন উপজেলায় পদ্মা নদীর ভাঙনে প্রায় ৩০টি বাড়ি, ২৫ বিঘা ফসলি জমি ও বিভিন্ন প্রজাতির দুই শতাধিক গাছ বিলীন হয়ে গেছে।

নেত্রকোনা : অবিরাম বৃষ্টিতে স্বোমেশ্বরী, কংশ, মগড়াসহ বেশকটি নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। কংশ ও উদ্ধাখালী নদীসহ হাওর বিলের পানি বেড়ে বিভিন্ন সড়কে ওঠে পড়েছে।

নওগাঁ : আত্রাই নদীর পানি আরও বেড়েছে। বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ৮টি স্থান ভেঙে গেছে। এর মধ্যে মান্দায় ৬টি, আত্রাইয়ে ১টি ও পত্নীতলায় ১টি ভেঙেছে। মান্দায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের অন্তত ৩০টি পয়েন্ট ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

গাইবান্ধা : গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় (গতকাল পর্যন্ত) তিস্তামুখ ঘাট পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ৭৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। অন্যদিকে ঘাঘট নদীর পানি গাইবান্ধা শহর পয়েন্টে বিপদসীমার ৬৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। জেলার ১১২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জলমগ্ন হয়ে পড়ায় বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

জয়পুরহাট : জয়পুরহাটের তুলসীগঙ্গা নদীর কালিতলা এলাকায় গতকাল বিকালে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ২০ মিটার ভেঙে যাওয়ায় এবং ছোট যমুনার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সদর উপজেলার পাঁচবিবি, ক্ষেতলাল, আক্কেলপুর ও সদর উপজেলার কমপক্ষে ১০টি ইউনিয়নের ২৫ গ্রামে পানি প্রবেশ করেছে।

শেরপুর : শেরপুর পৌরসভার সীমানা বরাবর বয়ে যাওয়া পাহাড়ি মৃগী নদীতে ভাঙন শুরু হয়েছে। ফলে পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের কসবা ভাটিপাড়া মহল্লার বেশ কয়েকটি বসতভিটা নদীগর্ভে চলে গেছে। হুমকির মুখে রয়েছে পুরনো কবরস্থান ও একটি মসজিদ। উত্তরাঞ্চলে বন্যাদুর্গতদের  সাহায্যে আরও সেনা মোতায়েন : স্থানীয় প্রশাসনের অনুরোধে গাইবান্ধা সদরে বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় সেখানকার বাঁধ পুনর্নির্মাণে সেনাবাহিনীর ৩ প্লাটুন সদস্য ৫টি স্পিড বোট ও অন্য প্রয়োজনীয় উদ্ধার সামগ্রীসহ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়াও ১৯ পদাতিক ডিভিশন হতে একটি বিশেষ পর্যবেক্ষক দল গতকাল সিরাজগঞ্জের বন্যাদুর্গত এলাকা কাজিরপুরের বাহুকায় গিয়ে দুর্গত এলাকা পর্যবেক্ষণ করে।এক সপ্তাহের মধ্যে তলিয়ে যেতে পারে ঢাকার নিম্নাঞ্চল : আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ঢাকার পূর্বাঞ্চলসহ নিম্নাঞ্চল বন্যার পানিতে তলিয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। গতকাল মতিঝিলে পাউবোর প্রধান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ আশঙ্কার কথা জানানো হয়। পাউবোর বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম জানান, রাজধানীর নিম্নাঞ্চল পাঁচ-ছয় দিনের মধ্যে প্লাবিত হতে পারে। ঢাকার আশপাশের নদীর পানি বাড়ার কারণে পূর্বাঞ্চলীয় এলাকা ত্রিমোহিনী, দাসেরকান্দি, ফকিরখালী, বেরাইদসহ আশপাশের এলাকার নিম্নাঞ্চল তলিয়ে যাবে। এসব এলাকা সিটি করপোরেশন এবং ঢাকা ওয়াসার ড্রেনেজ ব্যবস্থার বাইরে।
বর্ষাকালে প্রতিবছরই এসব এলাকা জলাবদ্ধ থাকে। এর বাইরে ডেমরার আমুলিয়া, পাইটিসহ আশপাশের এলাকা এবং বাসাবো, মাদারটেক, নন্দীপাড়া এলাকা বন্যার কবলে পড়তে পারে।বিশেষজ্ঞদের মতে, এবারের বন্যা পরিস্থিতি আগের তুলনায় ভয়াবহ রূপ নেওয়ায় রাজধানীর নিম্নাঞ্চলের ৪০ লাখ মানুষ চরম দুর্ভোগের শিকার হবে।
পাউবোর তথ্যমতে, ব্রহ্মপুত্র অববাহিকার সবগুলো নদীর পানি অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে। এই পানি পুরাতন ব্রহ্মপুত্র ও ধলেশ্বরী নদীপথে ঢাকা এবং চারপাশের নদীগুলোয় ঢুকবে। নদীগুলোর পানি এখন পর্যন্ত বিপদসীমার নিচে রয়েছে। তবে দ্রুত বিপদসীমার ওপরে উঠে যেতে পারে।’

সামনের দিনগুলোতে দক্ষিণ এশিয়ায় ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস আছে। এতে করে এরই মধ্যে বন্যা কবলিত অঞ্চলগুলোর পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। সেভ দ্য চিলড্রেনের ভারতীয় শাখার ব্যবস্থাপক মুরালি কুন্দুরু বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, প্রতি বছর বৃষ্টিপাত হয়। তবে এবার তা ভয়ংকর রূপ নিয়েছে। সূত্র : বিবিসি

বন্যার ইতিহাস :

এ দেশে বন্যার ইতিহাস যুগ যুগের ইতিহাস। কবে থেকে এ অঞ্চলে বন্যা শুরু হয়েছিল তার সঠিক তথ্য পাওয়া যায় না। অতীতের রেকর্ড থেকে দেখা যায়, ১৭৬৭ সালে এ দেশে একটি ভয়াবহ বন্যা হয়েছিল। এ সময় এ অঞ্চলে ভূমিকম্পও হয়। এরপর ১৯১৭ সালে একটি বড় বন্যা হয়েছিল। ১৯৪৩ সালেও একটি বড় বন্যার উল্লেখ রয়েছে। মূলত: ১৯৫৪ সাল থেকে বন্যার দাপট শুরু হয়।তখন থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত প্রায় ৩২টি বড় ধরনের বন্যা হয়েছে। এর মধ্যে ১৭টিকে মহাপ্রলয়ঙ্করী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। ১৯৫৪, ৫৫, ৫৬, ৬২, ৬৮, ৭০, ৭১, ৭৩, ৭৪, ৭৫, ৭৬, ৮০, ৮৪, ৮৭, ৮৮ এবং ৯৮-এর বন্যাগুলো মহাপ্রলয়ঙ্করী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।এ বিষয়ে লক্ষ্য করলে দেখা যায়, ১৯৬০ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত ৯টি বন্যা হয়েছে। দেশটি জন্মও নিয়েছে প্রলয়ঙ্করী বন্যার বোঝা মাথায় নিয়ে। একদিকে যুদ্ধের সময় পাকিস্তান বাহিনীর তান্ডব, অন্যদিকে কড়ালগ্রাসী বন্যার ছোবল দেশটির অর্থনীতিকে প্রায় ধ্বংস করে দেয় ।১৯৭০ সালের মহাপ্রলয়ঙ্করী বন্যা ও জলোচ্ছ্বাসে শুধু লোকই মারা যায় সরকারি হিসাবে ৫ লাখ। এ বন্যায় উপকূলের ১৬ হাজার র্বগমাইল এলাকা প্লাবিত হয় এবং ১২ লাখ ৯৮ হাজার টন খাদ্যশস্য  নষ্ট হয়। ১৯৭১ সালে আরও একটি মহাপ্রলয়ঙ্করী বন্যা হয়।এ বন্যায় ১৪ হাজার র্বগমাইল এলাকা প্লাবিত হয় এবং ১২ লাখ টন ফসল নষ্ট হয়। এ বছর মানুষ মারা যায় ১২০ জন। ২ লাখ ১৯ হাজার ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ নষ্ট এবং ২ হাজার গবাদি পশুর মৃত্যু হয়। এভাবে ৭২, ৭৩ ও ৭৪ সালে বন্যায় বিপুল ক্ষতি হয়।১৯৮৮ সালের মহাপ্লাবনে ক্ষয়ক্ষতির পাশাপাশি দেশের প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ অর্থাৎ প্রায় ৩০ হাজার র্বগমাইল তলিয়ে যায়। বন্যার করাল গ্রাসে সরকারি হিসাব অনুযায়ী লোক মারা যায় ৩৩৩ জন। আর বেসরাকরি হিসাবে এ সংখ্যা ৬০০-এর বেশি। 

দেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে ৪৭টিতে বন্যায় প্লাবিত হয়েছিল। ৪৬৮টি উপজেলার ২৯৩টি সম্পূর্ণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। এ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত  লোকের সংখ্যা সরকারি হিসাবে ২ কোটি ১০ লাখ। বেসরকারি হিসাবে প্রায় ৩ কোটি। বাস্তুহারা হয়  ৩০ লাখ মানুষ।  
বিগত ৩৫ বছরে বন্যা কবলিত হয়নি এমনসব উঁচু এলাকাও তলিয়ে গিয়েছিল ৮৮-এর মহাপ্লাবনে। এ বন্যায় দেশের প্রায় ৮০ লাখ ঘরবাড়ি সম্পূর্ণভাবে বিধ্বস্ত হয়েছিল। বন্যায় ১ কোটি কৃষক ব্যাপকভাবে ক্ষতির মুখে পতিত হয়েছিল। প্রায় ২০ লাখ একর জমির ফসল পুরোপুরি এবং ১৫ লাখ একর জমির ফসল আংশিকভাবে ভেসে যায়।  বন্যায় সরকারি হিসাবে ফসল ক্ষতি হয় ২০ লাখ টন শস্য। প্রলয়ঙ্করী বন্যার ছোবলে দেশের ৬ হাজার কিলোমিটার মহাসড়কের মধ্যে ১ হাজার ১৭৫ কিলোমিটার ধ্বংস হয়। এ ছাড়া সাড়ে ৫ হাজার কিলোমিটার সড়কের মধ্যে ১ হাজার ৪০০ কিলোমিটার সড়ক চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে।দেশের ২৪৬টি সেতু ও কালভার্ট বিধ্বস্ত এবং প্রায় আড়াই হাজার ফুট রেলপথ বন্যায় ভেসে যায়। সর্বোপরি গাছপালা ভেসে  যায় এবং পরিবেশের বিপুল ক্ষতি হয়। অন্যদিকে ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বরে বাংলাদেশের ওপর দিয়ে সিডর প্রবাহিত হয়। এর আঘাতের কবলে পড়ে দেশের ২২টি জেলা।সিডরে প্রায় ১৫ হাজার লোক মারা যায়। বিভিন্ন তথ্য থেকে জানা যায়, এটি ১৩১ বছরের ইতিহাসে বড় দশটি ঘূর্ণিঝড়ের মধ্যে অন্যতম।এদিকে পরিবেশ বিজ্ঞানীরা বলছেন, বাংলাদেশের মতো ভাটির দেশের জন্য আগামীতে রয়েছে বন্যার আরও অনেক অজানা শঙ্কা।

এই সংবাদটি 1,024 বার পড়া হয়েছে