মঙ্গলবার, ২৯ আগ ২০১৭ ০৯:০৮ ঘণ্টা

ইরতিদাদী ফেতনা: হুঁশিয়ার উম্মাহর কান্ডারীগণ

Share Button

ইরতিদাদী ফেতনা: হুঁশিয়ার উম্মাহর কান্ডারীগণ

শাহিদ হাতিমী :: ইরতিদাদ একটি ভয়াবহ বিষয় | বর্তমান বিশ্বে এটি চরম আকার ধারণ করেছে | ইরতিদাদী ফিরক্বার বাংলা হচ্ছে “ধর্মান্তরিত আগ্রাসন” বা “ধর্মাত্যাগী ফেতনা” | আগ্রাসনটি সহজে বুঝার জন্য একটি উদাহরণ লক্ষ করি | ‘দেশজুড়ে ‘অমুক’ ইস্যু নিয়ে মাঠ গরম হয়ে গেছে | আপনার বন্ধুরা কিংবা এলাকার বড় ভাইয়েরা দলে দলে যোগ দিচ্ছেন ‘তমুক চত্বরে’| আপনিও ভাবছেন – আমিও ওদের সাথে যাবো নাকি? আবার ভাবছেন –এদের সাথে গেলে তো আমার অন্য সার্কেলের বন্ধুরা আমাকে খারাপ বলবে। কী করি, কি যে করি? ফেইসবুকে একটা রক্তগরম স্ট্যাটাস দিয়ে দিবো নাকি? কিছুতেই আপনি বুঝে উঠতে পারছেন না কি করবেন’! এই যে, আপনি দ্বিধায় পড়ে গেলেন, দিকভ্রান্তের গ্যাড়াকলে আক্রান্ত হলেন, এ ভাবেই সরলমনা মুসলমানদেরকে দ্বিধাগ্রস্ত করে ইরতিদাদী ফেতনায় আক্রান্ত করছে | প্রতিটা মুহুর্তই বেঈমানেরা নানান ছলচাতুরী নকশায় শয়তানী কালচারে জড়িয়ে ধ্বংস করে দিচ্ছে মুমিনদের দৌলতে ঈমান | নিঃসন্ধেহে এটি একটি আগ্রাসন | মাসখানিক থেকে ভার্চুয়ালের (ফেসবুক, ইউটিউব) ওয়ালগুলোতে যে কাহিনিটি অবিরত ভেসে বেড়াচ্ছে সেটা তেমনী এক চক্রান্ত ৷ বাংলাদেশে জন্ম নেয়া একজন হাফেজ মাওলানা মুফতি দীর্ঘদিন মসজিদে ইমামতি করা সত্তেও মুরতাদ হয়ে গেল! সংবাদের সত্যতা যাই হোক, কিন্তু বিষয়টা কি ঈমানদার হৃদয়কে শংকিত করে তোলছে না?
:
আজ আগ্রাসী শক্তির আগ্রাসনের শিকার গোটা মুসলিম বিশ্ব ৷ ইউরোপের রাজনৈতিক বা পশ্চিমাদের সাংস্কৃতিক আগ্রাসনের আবরণে মারাত্মকরূপে ইরতিদাদী ফেতনা অনুপ্রবেশ করছে মুসলিম বিশ্বে ৷ এটি ধেয়ে আসছে আমাদের বাংলাদেশেও | বিশ্বনবী সা. এর ইন্তেকালের পর আরবের সীমান্তবর্তি গোত্রগুলোতে যে ইরতিদাদী ফেতনার আত্মপ্রকাশ ঘটেছিল, ‘স্পেন’ থেকে বিতাড়ীত মুসলমানদের মাঝে মহামারীরূপে যে ইরতিদাদী ফেতনার অনুপ্রবেশ ঘটেছিল, এর চে- বর্তমান ইরতিদাদী ফেতনা আরো কঠিন, আরো ভয়ানক | এর বিষক্রিয়া মুহুর্তেই ছড়িয়ে পড়েছে মুসলিম বিশ্বের আনাচে কানাছে, প্রতিটি জনপদে | ইরতিদাদ মানে ধর্মত্যাগ করা | পরিভাষায় রাসুল সা. এর শিক্ষা, আদর্শ যা বর্ণনা ধারায় অকাট্যভাবে প্রমানিত বা ইসলামের কোনো কিছু যা কুরআন ও হাদিস দ্বারা নিশ্চিতরূপে ছাবিত তা অস্বীকার করা! আর অস্বীকার এবং অবিশ্বাসকারী ব্যক্তিকে কাফের বা মুরতাদ বলে|
:
মহাগ্রন্থ আল কুরআন বলছে- “ফেতনা হত্যার চেয়েও কঠিন অপরাধ”| (সূরা-আল-বাকারা, ১৯১) “আর তোমরা তাদের সাথে লড়াই কর সো পর্যন্ত, যে পর্যন্ত না ফেতনার অবসান হয় এবং আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠিত হয়!” (সূরা-আল-বাকারা, ১৯৩)
উল্লেখিত আয়াতে ফেতনা শব্দটির দ্বারা কুফর, শিরক বুঝানো হয়েছে | হাদিসে বর্ণিত হয়েছে- আল্লাহর নাফরমানী, পাপাচার, অবাধ্যতাই হলো ফেতনা। এসব বন্ধ করে হক্বদ্বীন প্রতিষ্ঠা করার প্রচেষ্টা কখনই ফেতনা নয়। বলাবাহুল্য- কেউ কেউ খোঁড়া যুক্তি উপস্থাপন করে বলেন এসব নিয়ে কথা না বলাই ভালো! এগুলোর প্রতিবাদ করাটাও একরকম ফেতনা | দুর্বল ঈমানদার সেই লোকদের উদ্যেশ্যে বলতে চাই- ইমাম হোসাইন (রাযিঃ) ঐক্য নষ্ট করে ফেতনা করেননি বরং ইয়াযীদ সালতানাত ঐক্যের মাধ্যমে যে ফেতনা সৃষ্টি করেছিল তারই মোকাবেলা করে হক্বকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ঐক্য সংহতির ধূম্রজাল সৃষ্টি করে ইয়াযীদ সমগ্র মুসলিম সালতানাতে কী অপকর্মই না করেছে! তার প্রেরিত বাহিনী পবিত্র মদীনা শহরকে ধ্বংস স্তুপে পরিণত করেছে। সর্বহারা ঘটনা হিসেবে তা ইতিহাসে প্রসিদ্ধ। ইমাম হুসাইন (রাযিঃ) কি তার বিরোদ্ধে লড়াই করে ফেতনা করেছেন? বরং তিনি শাহাদাতের অমিয় সুধা পান করে তিনি ইয়াযীদের ফিতনা দমন করেছেন। কিয়ামত পর্যন্ত তাঁর শাহাদাতের রক্ত এ উম্মতকে সঠিক পথ নির্দেশ দিতে থাকবে। তিনি শহীদ হয়ে চির বিজয়ী বীর হয়ে আছেন, কিন্তু কারবালায় ফাসেক, জালেম ইয়াযীদ তার সমুদয় কুকীর্তিসহ চিরদিনের জন্য পরাজিত হয়ে গেছে। কারবালার প্রান্তর যেমন ইমাম হোসাইনের শাহাদাতগাহ্, তেমনি ইয়াযিদী ফেতনারও দাফনগাহ্। হাজ্জাজের বিরোদ্ধে সাঈদ বিন যোবায়ের (রাযিঃ) কি ফিতনা করেছেন? হাজ্জাজ বলেছিল, “আমি আমীরের সঙ্গে আছি আর তুমি বিদ্রোহীদের সাথে আছো।”
সাঈদ বিন যোবায়ের (রাযিঃ) উত্তরে বলেন, “আমি জামাত হতে পৃথক নই আর বিবাদও আমি পছন্দ করি না। আল্লাহর ব্যাপারে তোমার দুঃসাহস দেখে আমার হাসি পাচ্ছে।”নবী নূহ (আঃ), নবী ইব্রাহীম (আঃ), নবী মুসা (আঃ), সালেহ্ (আঃ), নবী শোয়াইব (আঃ) নবী লুত (আঃ) তথা সমস্ত নবী-রাসূলগণ তাঁদের কওমের শিরক কুফর, পাপাচার অনাচারের বিরোদ্ধে দাঁড়িয়েছেন, যদ্বারা আল্লাহর কালেমা বুলন্দ হয়েছে। এইসব ফেতনা এবং তা দমনের নবুয়্যাতী কর্মধারাই সমগ্র মানব ইতিহাসের সার সংক্ষেপ।
:
নিম্নের কথাগুলোতে ফেতনার চমৎকার অর্থ ব্যাখ্যা করা হচ্ছে- হযরত মাওলানা কাসেম নানুতুবী (রহ.) এর সুত্রে ক্বারী তৈয়ব সাহেব (রহ.) বলেন- “বুনিয়াদী ফিতনা তিন প্রকার। প্রথমতঃ ‘বু’অদ আনিল্লাহ’ অর্থাৎ-
আল্লাহ হতে দুরত্ব। দ্বীনের ব্যাপারে ইহা একটি গোপন ও বুনিয়াদী ব্যাধি।
মানুষের মধ্যে যখন এই ব্যাধি দানা বাঁধে তখন সে দ্বীন হারাতে আরম্ভ করে। দ্বিতীয়ঃ ‘জুউফে হিম্মত’ বা দুর্বল চিত্ত ও সাহসহীনতা। ইহার ফলে দ্বীনের মর্যাদা অক্ষুন্ন থাকে না। তৃতীয়ঃ ‘যায়গে কলব’ বা দিলের বক্রতা। ইহার
কারণে দ্বীন নিরাপত্তাহীন ও দৃঢ়তাশূন্য হয়ে পড়ে। দ্বীনের মধ্যে ইস্তেকামাত বা মজবুতী আসতে পারে না।
হযরত আলী (রাযি.) এর খেলাফতকালে মুসলিম উম্মাহর পুরো সময়টাই যুদ্ধ বিগ্রহের মধ্যে কেটেছে। হাজার হাজার মুসলমান উভয় পক্ষে শাহাদাতবরণ করেন। খারিজীদের ফিতনা বড় ভয়াবহ ছিল। তাদের নামাজ, কুরআনে পাকের তেলাওয়াত, তাহাজ্জুদ সাহাবাদেরকেও অভিভুত করত। আল্লাহর কালাম পড়তে
পড়তে তারা যুদ্ধ করত, তলোয়ার চালাতো শাহাদাতের আকাংখায় এবং জান্নাতের আশায়। অথচ তারা ছিল ফেতনাবাজ, বাতিল ও জাহান্নামী। হযরত আলী (রাযি.) এই ফেতনা দমন করতে গিয়ে তাদের প্রায় চার লক্ষকে কতল করেন। ইমাম বুখারী (রহ.) স্বীয়
কিতাবে এ সম্পর্কে আলাদা বাব (অধ্যায়) “কিতাবুল মুয়ানিদীনা ওয়া মুরতাদদীনা ওয়া কিতালুহুম” রচনা করেন। খোলাফায়ে রাশেদ আলী (রাযি.)
আশারায়ে মোবাশ্শারা সাহাবী যোবায়ের (রাযি.) এবং তালহা (রাযি.), উম্মুল মুমিনীন
আয়শা (রাযি.), কাতেবে ওহী মুয়াবিয়া (রাযি.), সবাই কি ফেতনা করেছেন? অথচ সমগ্র আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের সর্বাদি সম্মত আকিদা তাঁরা হেদায়েত
প্রাপ্ত এবং হেদায়েতের পথ প্রদর্শনকারী। নবী-রাসূল, সাহাবা-তাবেয়ী তথা পূর্বসুরী সমস্ত আল্লাহওয়ালাদের অনুসৃত জীবনধারা প্রকাশ্য দিবালোকের মত সামনে থাকার পরেও যদি আমরা না বুঝার ভান করি তবে ক্ষতি আমাদেরই! আমরা নিজেদের পায়ে নিজেরাই কুঠারাঘাত করছি। মহান আল্লাহ তাঁর কালেমাকে অবশ্যই জয়ী করবেন। প্রচেষ্টাকারীরা বিনিময় পাবে, পশ্চাদ পসরণকারীরা ধ্বংস হবে। “এবং তারা বলবে, আমরা যদি শুনতাম অথবা বুঝতাম তবে আজ জাহান্নামীদের মধ্যে
থাকতাম না।” (সূরাঃ আল-মূলক, আয়াত-১০) সকল ধর্মের একেকটা প্রতীক রয়েছে ৷ রয়েছে ইবাদতগাহও ৷ খৃস্টানরা গীর্জায় যায়, সনাতন বা হিন্দুরা মন্দিরে যায়, কোন কোনো ধর্মের লোকেরা অগ্নিমন্ডপে যায়! কিন্তু যারা মুরতাদ হয়, যারা ইসলাম ধর্মত্যাগ করে, তারা কোথায় যায়? শংকার খবর হলো- সকল ধর্ম চেনা জানার বিভিন্ন প্রতীক বা ইবাদতগাহ থাকলেও “ইরতিদাদী বা মুরতাদ” ধর্মের কোন প্রতীক নেই! হেতু এই আগ্রাসনের গতি, প্রকৃতি, রূপ, রঙ সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করা খুবই জরুরী বিষয় | মোদ্দাকথা, রাসুল স. এর আদর্শ বিরোধী, ইসলামের প্রামাণিক বিধিবিধানের পরিপন্থি, বস্তুবাদী ধ্যান ধারণা ও পাশ্চাত্য জীবন দর্শন তথা ধর্মনিরপেক্ষবাদী আকীদা বিশ্বাস পোষণকারী মানুষ নিঃসন্ধেহে আল্লাহ তায়ালা মনোনীত ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করেছে | কিন্তু এরপরও তারা নির্বিঘ্নে ইসলামী সমাজে বসবাস করছে, সামাজিক সুবিদা ভোগ করছে, এমনকি সমাজের নেতৃত্বদানেরও সুযোগ পাচ্ছে বেঈমানরা | কারণ, ইরতিদাদী ফেতনা বা কুফুরী মতবাদ বুঝার মতো তাদের কোন প্রতীক নেই, মুরতাদদের কোনো গীর্জা নেই, মন্দির নেই, মসজিদ তো নেই-ই | সুতরাং উম্মাহর হে কর্ণদার হযরাত উলামায়ে কেরাম, হুঁশিয়ার হোন ৷ ফেতনায়ে ইরতিদাদ মোকাবেলায় গতিশীল কর্মসুচি হাতে নিন ৷ নিশ্চয় ইসলাম আল্লাহর একমাত্র মনোনীত জীবন ব্যবস্থা ৷
*                                  লেখক, কলামিস্ট, শিক্ষক দারুল আজহার মডেল মাদরাসা, সিলেট ক্যাম্পাস ৷

এই সংবাদটি 1,013 বার পড়া হয়েছে