বুধবার, ৩০ আগ ২০১৭ ১১:০৮ ঘণ্টা

বড়লেখায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্বাক্ষর জাল করে অর্থ উত্তোলনের অভিযোগ

Share Button

বড়লেখায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্বাক্ষর জাল করে অর্থ উত্তোলনের অভিযোগ

বড়লেখা প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের বড়লেখার দক্ষিণভাগ ইউপির গজভাগ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আপ্তাব আলীর বিরুদ্ধে স্কুল কমিটির সভাপতিসহ বিভিন্ন সদস্যের স্বাক্ষর জাল করে ব্যাংক থেকে টি.আর বরাদ্দের অর্থ উত্তোলনের অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া স্কুলের আর্থিক লেনদেন সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের যৌখ ব্যাংক হিসাবে করার নিয়ম থাকলেও এক্ষেত্রে তিনি ব্যক্তিগত হিসাব ব্যবহার করছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় সংসদ সদস্য ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টি.আর) বিশেষ কর্মসূচির দ্বিতীয় পর্যায়ের ৬১ নং প্রকল্পের মাধ্যমে গজভাগ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সংস্কারে গত ১৪ মে ১৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেন। প্রধান শিক্ষক আপ্তাব আলী ১৩ জুন সভাপতিসহ প্রকল্প কমিটির ৭ সদস্যের স্বাক্ষর জাল করে বরাদ্দের টাকা উত্তোলন করেন।      

স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের যৌথ একাউন্টে সরকারী বরাদ্দের টাকা লেনদেন করার নিয়ম থাকলেও তিনি তার ব্যক্তিগত একাউন্টই ব্যবহার করছেন। স্কুল লেভেল ইম্প্রুভমেন্ট পেনের (স্লিপ) জন্য গত ২৯ ডিসেম্বর ৪০ হাজার টাকা এবং প্রাক-প্রাথমিকের মালামাল ক্রয়ে বরাদ্দকৃত আরো ৫ হাজার টাকা প্রধান শিক্ষক আপ্তাব আলী স্কুল কমিটিকে অবহিত না করেই উত্তোলন করেন এবং ইচ্ছেমত ব্যয় করেন।

স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আফাজ উদ্দিন, বিদ্যুৎসাহী সদস্য পারভিন বেগম, শিক্ষক প্রতিনিধি মনোয়ারা বেগম জানান, টি.আর বরাদ্দ উত্তোলনের প্রকল্প কমিটিতে তারা স্বাক্ষর করেননি। প্রধান শিক্ষক তাদের স্বাক্ষর জাল করে টাকা উত্তোলন করেন। সরকারী অর্থ বরাদ্দের কিছুই তিনি কমিটিকে অবহিত না করে আত্মসাত করেন।

এসব অনিয়ম দুর্নীতির ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক আপ্তাব আলীর বিরুদ্ধে গত ১৩ আগষ্ট উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট অভিযোগ দিতে গেলে একজন সহকারী শিক্ষা অফিসারের সামনে তিনি স্কুলের ভুমি দাতা সদস্য হাজী আবুল কালাম ও অভিভাবক সদস্য নজরুল ইসলাম ডেলের সাথে চরম অসদাচরণ করেন।

প্রধান শিক্ষক আপ্তাব আলী তার বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ মিথ্যা দাবী করে জানান, এগুলো তার বিরুদ্ধে যড়যন্ত্র। শিক্ষা অফিসের সহকারী সমেরেশ বাবু ¯িপের টাকা নিজস্ব একাউন্টে জমা করতে বলায় তিনি নিজের একাউন্টে তা জমা করেন। বরাদ্ধকৃত সকল টাকা যথাযথভাবে ব্যয় করার প্রমাণ রয়েছে। বিদ্যালয়ের এক সদস্য ডেল চাঁদা চেয়েছেন। না দেয়ায় তিনি বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ দিয়েছেন। অফিস তদন্ত করছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন অভিযোগ প্রাপ্তির সত্যতা স্বীকার করে জানান, স্লিপের টাকা স্কুলের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের যৌথ একাউন্টে লেনদেন হওয়ার নিয়ম রয়েছে। একজন সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে অভিযোগ তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছেন। প্রতিবেদন হাতে পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে