বুধবার, ০৬ সেপ্টে ২০১৭ ১১:০৯ ঘণ্টা

সাংবাদিক সালেহ চৌধুরী কাজী সিরাজ সঞ্জীব চৌধুরী আর নেই

Share Button

সাংবাদিক সালেহ চৌধুরী কাজী সিরাজ সঞ্জীব চৌধুরী আর নেই

ডেস্ক রিপোর্ট:  না ফেরার দেশে চলে গেছেন দেশের তিন কৃতী সাংবাদিক। প্রাগ্রসর চিন্তার ধারক এই তিন সাংবাদিকের দু’জন ছিলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের সম্মুখযোদ্ধা। তারা হলেন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও সিনিয়র সাংবাদিক সালেহ চৌধুরী এবং দৈনিক দিনকালের সাবেক সম্পাদক ও কলামনিস্ট কাজী সিরাজ। জাতীয় প্রেস ক্লাবের সদস্য প্রয়াত এ তিন সাংবাদিকদের অন্যজন হলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ডেইলি নিউনেশন পত্রিকার সহকারী সম্পাদক সঞ্জীব চৌধুরী। ৩১শে আগস্ট সন্ধ্যায় সঞ্জীব চৌধুরী, রাতে কাজী সিরাজ এবং পরদিন সালেহ চৌধুরী মৃত্যুবরণ করেন। সালেহ চৌধুরী ও কাজী সিরাজকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়েছে। অন্যদিকে রাজধানীর পোস্তগোলা শ্মশানে সম্পন্ন হয়েছে সঞ্জীব চৌধুরীর শেষকৃত্য।
সালেহ চৌধুরী ভাটিঅঞ্চল চষে বেড়ানো অনন্য এক সাহসী মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিকের নাম। ১লা সেপ্টেম্বর রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিকের নিজ বাসভবনে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার গইচ্চা গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে ১৯৩৬ সালে জন্ম নেয়া সালেহ চৌধুরীর শিক্ষা জীবনের একটা বড় অংশটিই কেটেছে সিলেটের এম সি কলেজে। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় টেকেরঘাট সাব-সেক্টরের অধীনে দিরাই, শাল্লা, জগন্নাথপুরসহ ভাটিঅঞ্চলে বেশ কিছু সম্মুখযুদ্ধে অংশ নিয়েছেন তিনি। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ঢাকা এসে যোগ দেন দৈনিক বাংলায়। তিনি এই পত্রিকার সিনিয়র সহকারী সম্পাদক ছিলেন। পত্রিকাটি বন্ধ হওয়া পর্যন্ত সেখানে কর্মরত ছিলেন। একাত্তরের রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা সালেহ চৌধুরী শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটিতে সক্রিয় ছিলেন। যুদ্ধাপরাধীদের প্রতীকী বিচারে ১৯৯২ সালে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যে গণআদালত বসেছিল, তার অন্যতম সাক্ষী ছিলেন তিনি। পরবর্তীতে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের মামলায়ও সাক্ষ্য দেন অকুতোভয় এ সাংবাদিক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সৈয়দ আবদুল্লাহ খালেদ নির্মিত ভাস্কর্য ‘অপরাজেয় বাংলা’র নামকরণও করেন সাংবাদিক সালেহ চৌধুরী। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে সুনামগঞ্জে নির্মিত শহীদ মিনারের নকশাকারও ছিলেন তিনি। জাতীয় প্রেস ক্লাবের স্থায়ী সদস্য সালেহ চৌধুরী কমনওয়েলথ জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের সভাপতি ও বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের কর্মকর্তা ছিলেন। সালেহ চৌধুরীর বয়স হয়েছিল ৮১ বছর। মৃত্যুকালে তিনি তিন সন্তান রেখে গেছেন। রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় প্রথম জানাজা ও জাতীয় প্রেস ক্লাবে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। প্রবীণ সাংবাদিক ও মুক্তিযোদ্ধা সালেহ চৌধুরীর প্রতি তার সহকর্মীসহ সকল পর্যায়ের সাংবাদিকরা শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। শনিবার বিকালে তার মরদেহ জাতীয় প্রেস ক্লাবে নেয়া হলে সেখানে তার সহকর্মী সাংবাদিক, সর্বস্তরের সংবাদকর্মী এবং ভক্ত-অনুরাগীরা শেষ শ্রদ্ধা জানান। সেখানে তার দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে সালেহ চৌধুরীর অবদানের জন্য পুলিশের একটি চৌকস দল তাকে গার্ড অব অনার দেন। এ সময় বিউগলে করুণ সুর বেজে ওঠে। পরে তার লাশ নেয়া হয় জন্মস্থান সুনামগঞ্জে। সেখানে রোববার দুপুরে গচিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মরহুমের তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার আগে বিভিন্ন সংগঠন ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে তার মরদেহে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হয়। পরে গার্ড অব অনার দিয়ে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার গচিয়া গ্রামে বীর মুক্তিযোদ্ধা সালেহ চৌধুরীর দাফন সম্পন্ন হয়।
বরেণ্য সাংবাদিক, কলামনিস্ট ও মুক্তিযোদ্ধা কাজী সিরাজ ৩১শে আগস্ট রাত ১০টায় মৃত্যুবরণ করেন। হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে রাজধানীর বনশ্রীর ফরাজী হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানেই তার মৃত্যু হয়। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার চিওড়ার বিখ্যাত কাজী পরিবারে জন্ম নেয়া কাজী সিরাজ ছাত্রজীবনে ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। ১৯৭০ সালের দুর্বার আন্দোলনের সময় তার নামে হুলিয়া জারি হয়। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি প্রত্যক্ষভাবে অংশ নেন। মুক্তিযুদ্ধের পর তিনি ভাসানী ন্যাপের রাজনীতিতে যুক্ত হন। পরবর্তীকালে জাতীয়তাবাদী দলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হলে স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়কের দায়িত্ব পান তিনি। টানা চার যুগ সাংবাদিকতায় নিবেদিত কাজী সিরাজ চট্টগ্রামের দৈনিক কিষানের ঢাকার ব্যুরো প্রধান ছিলেন। তার সম্পাদনায় প্রকাশিত হয় সাপ্তাহিক বিবর্তন। দৈনিক দিনকালের সাবেক এ সম্পাদক সর্বশেষ সাপ্তাহিক রোববার-এ উপদেষ্টা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। রাজনৈতিক ও সমসাময়িক বিষয় নিয়ে জাতীয় দৈনিকগুলোতে কলাম লেখার পাশাপাশি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে রাজনৈতিক সংবাদ বিশ্লেষণ ও মধ্যরাতের টিভি টকশোতে ছিল তার সরব উপস্থিতি। কয়েক বছর ধরে বিএনপির নানা পদক্ষেপের সমালোচনায় মুখর ছিলেন তিনি। কাজী সিরাজের বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক পুত্র, দুই কন্যা রেখে গেছেন। তিনি বাংলাদেশে খ্যাতনামা রাজনৈতিক ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত কাজী জাফর আহমেদের চাচাতো ভাই। তার স্ত্রী প্রফেসর শাহরিয়া আক্তার বুলু অষ্টম জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনের এমপি ছিলেন। শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে নেয়া হয় কাজী সিরাজের মরদেহ। সেখানে প্রথম দফা জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। চৌদ্দগ্রাম কাজী বাড়িতে দ্বিতীয় দফা জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মরহুমের দাফন সম্পন্ন হয়। এদিকে সাংবাদিক সালেহ চৌধুরী ও কাজী সিরাজের মৃত্যুতে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল ও মহাসচিব ওমর ফারুক এবং ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) সভাপতি শাবান মাহমুদ ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি মুহাম্মদ শফিকুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমীন। এছাড়া কাজী সিরাজের মৃত্যুতে দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পরিবারের পক্ষ থেকে শোক প্রকাশ করেন সম্পাদক নঈম নিজাম।  
প্রবীণ সাংবাদিক ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য সঞ্জীব চৌধুরী মৃত্যুবরণ করেন ৩১শে আগস্ট সন্ধ্যা ৭টায়। নিউ নেশন অফিসে কর্মরত অবস্থায় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে রাজধানীর আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত কারণে হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম নেয় সঞ্জীব চৌধুরী। দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার বার্তা সম্পাদক সঞ্জীব চৌধুরী সর্বশেষ ডেইলি নিউ নেশন পত্রিকায় সিনিয়র সাংবাদিক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি দৈনিক যুগান্তরসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে কাজ করেছেন। সঞ্জীব চৌধুরীর বয়স হয়েছিল ৬৮ বছর। ১লা সেপ্টেম্বর দুপুরে সঞ্জীব চৌধুরীর কফিন নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নেয়া হয়। এ সময় নেতারা তার কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। সঞ্জীব চৌধুরীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। শোকবার্তায় তিনি বলেন, সঞ্জীব চৌধুরী একজন প্রথিতযশা সাংবাদিক ছিলেন। তিনি দলের দুঃসময়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। সঞ্জীব চৌধুরীর পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন খালেদা জিয়া। এছাড়া বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, বিএফইউজে সভাপতি শওকত মাহমুদ, ডিইউজে সভাপতি আবদুল হাই শিকদার, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমেদ, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক মফিজুর রহমান আশিক, এনু মিয়া-আয়েশা খাতুন ফাউন্ডেশনের প্রধান সমন্বয়কারী শফিকুল ইসলাম রাহী শোক প্রকাশ করেছেন। শুক্রবার সকাল ১০টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে নেয়া হয় তার মরদেহ। পরে রাজধানীর পোস্তগোলা শ্মশানে তার শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হয়।

এই সংবাদটি 1,022 বার পড়া হয়েছে