শুক্রবার, ০৮ সেপ্টে ২০১৭ ১২:০৯ ঘণ্টা

রোহিঙ্গা উৎখাতে প্রশিক্ষণ ও অস্ত্র দিচ্ছে ইসরায়েল

Share Button

রোহিঙ্গা উৎখাতে প্রশিক্ষণ ও অস্ত্র দিচ্ছে ইসরায়েল

 ডেস্ক রিপোর্ট: মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে অস্ত্র সরবরাহ করছে ইসরায়েল। আর এসব অস্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে রোহিঙ্গাদের দমন-পীড়ন ও উৎখাতে। শুধু তাই নয়, বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্রটির সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণও দিচ্ছে ইহুদি রাষ্ট্রটি। তাই রোহিঙ্গাদের ওপর চলমান অমানবিক বর্বরতার জন্য ইসরায়েলও দায়ী। ইসরায়েলের আইনজীবী ও মানবাধিকারকর্মীরা সে দেশের সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন মিয়ানমারে অস্ত্র সরবরাহ বন্ধ করার। কিন্তু তা নাকচ করে দিয়েছে ইসরায়েল। অথচ দেশটির অন্যতম বন্ধু যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা রয়েছে মিয়ানমারের ওপর। অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা রয়েছে ইউরোপের ২৮টি দেশ মিলে গঠিত শক্তিশালী মোর্চা ইউরোপীয় ইউনিয়নেরও (ইইউ)। মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, ইসরায়েলের পাঠানো এসব অস্ত্র রোহিঙ্গা মুসলমানদের জাতিগতভাবে উৎখাতে ব্যবহার করা হচ্ছে। পাশাপাশি ইসরায়েলের অস্ত্র তৈরির প্রতিষ্ঠানগুলো মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের বিশেষ বাহিনীকে প্রশিক্ষণও দিচ্ছে। মিয়ানমার সরকারের মদতে এ রাজ্যেই রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা চালানো হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। মিডল ইস্ট আই (এমইই) নামের একটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে এমন অভিযোগ তুলে ধরে বলা হয়েছে, এটি ইসরায়েলের কূটনৈতিক চাল।
দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়ার গতকাল বৃহস্পতিবারের অনলাইন সংস্করণে ‘হাউ ইসরায়েল ইজ হেল্পিং মিয়ানমার আর্মি অ্যাগেইনস্ট রোহিঙ্গা’ (যেভাবে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে সাহায্য করছে ইসরায়েল) শীর্ষক একটি প্রতিবেদন তুলে ধরা হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এসব চাঞ্চল্যকর তথ্য।
প্রতিবেদনে মানবাধিকার গ্রুপ ও মিয়ানমারের সরকারি কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের কাছে ইসরায়েল শতাধিক ট্যাংকসহ অস্ত্র ও নৌযান বিক্রি করেছে। এগুলো ব্যবহার করছে মিয়ানমারের সীমান্ত পুলিশ।
লক্ষণীয় যে, মিয়ানমারের ওপর যুক্তরাষ্ট্র ও ইইউর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এ নিষেধাজ্ঞার কারণ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র উল্লেখ করেছে ইন্টারন্যাশনাল রিলিজিয়াস ফ্রিডম অ্যাক্টের (আন্তর্জাতিক ধর্মগত স্বাধীনতা আইন) কথা। যে আইনটি সে সব দেশের ওপর প্রযোজ্য, যে সব দেশ ধর্মগত স্বাধীনতার বিরুদ্ধে সহিংসতায় লিপ্ত। আর ইইউ আরোপিত নিষেধাজ্ঞার কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, একটি দেশে সে সব উপকরণ বিক্রি নিষিদ্ধ যা সে দেশটিতে অভ্যন্তরীণ দমন-পীড়নে ব্যবহার করা হতে পারে।
গত ডিসেম্বরে ইসরায়েলের আইনজীবী ও মানবাধিকারকর্মীরা দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রীর কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন যেন মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর আদেশকৃত একটি সামরিক চালান স্থগিত করা হয়। যুক্তি হিসেবে তারা বলেছিলেন, মিয়ানমার এখনো সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটাচ্ছে। ইরাবতী নামের একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনের বরাতে তারা এ তথ্য তুলে ধরেছিলেন। প্রসঙ্গত, ইরাবতী ওয়েবসাইটটি আগে মিয়ানমার থেকে পরিচালনা করা হতো, যা এখন থাইল্যান্ডে নির্বাসিত।
ওই আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছিল, ইসরায়েল ইরানের বিরুদ্ধে অবরোধ অব্যাহত রাখার জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। অথচ ভয়াবহ অপরাধকারী মিয়ানমারের ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র ও ইইউর অবরোধ উপেক্ষা করতে ইসরায়েলের বিবেকের দংশন নেই। এটি খুবই বিস্ময়কর বিষয়।
চলতি বছরের জানুয়ারিতেও ইসরায়েল ও মিয়ানমারের কর্মকর্তারা পরস্পরের দেশে সফর করেছেন এবং অস্ত্রের চুক্তি নিয়ে আলোচনা করেছেন। ইসরায়েলের মানবাধিকারকর্মীরা দেশটির আদালতে একটি পিটিশন করেছেন। তাতে তারা আর্জি জানিয়েছেন, মিয়ানমারে ইসরায়েলের অস্ত্র রপ্তানি বন্ধ করার। চলতি মাসেই এ নিয়ে আদালতে শুনানি হওয়ার কথা। কিন্তু গত মার্চে ইসরায়েলের পার্লামেন্টে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেছেন, এ ইস্যুতে নাক গলানোর আইনগত কোনো অধিকার নেই আদালতের। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের ভাষ্য, মিয়ানমারের কাছে অস্ত্র সরবরাহ ‘পরিষ্কারভাবেই কূটনৈতিক।’
বিষয়টি নিয়ে সোচ্চার ইসরায়েলি মানবাধিকারকর্মী নেইম্যান বলেন, ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে ইসরায়েল যে আগ্রাসন চালাচ্ছে, মিয়ানমারে দেশটির অস্ত্র সরবরাহের সঙ্গে এরও দৃষ্টিভঙ্গিগত যোগ রয়েছে।
লন্ডনের কুইন মেরি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারন্যাশনাল স্টেট ক্রাইম ইনিশিয়েটিভের পরিচালক পেনি গ্রিন এমইইতে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, মিয়ানমার সরকার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর গণহত্যা চালানোর পরও ইসরায়েল সে দেশে অস্ত্র সরবরাহ বন্ধ করবে না- এতে বিস্মিত হওয়ার কিছু নেই। ইসরায়েলের নিজের রেকর্ডেই পরিষ্কার দেশটির চরিত্র। জাতিগত ভিন্নতার কারণে ফিলিস্তিনে ব্যাপক সহিংসতা ও সন্ত্রাস চালাচ্ছে ইসরায়েল।

এই সংবাদটি 1,236 বার পড়া হয়েছে