শুক্রবার, ০৮ সেপ্টে ২০১৭ ০৭:০৯ ঘণ্টা

রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধের দাবিতে বিভিন্ন সংগঠনের বিক্ষোভ

Share Button

রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধের দাবিতে বিভিন্ন সংগঠনের বিক্ষোভ

 
কামরুল ইসলাম মাহি. জগন্নাথপুর :: রোহিঙ্গাদের উপর ইতিহাসের জঘন্য বর্বরতা ও গণহত্যা চলছে। নারী শিশুদের ধর্ষণ করে টুকরোটুকরো করে কেটে ফেলা হচ্ছে। এমনি পরিস্থিতিতে কোন বিবেকবান মানুষ নিশ্চুপ থাকতে পারেনা। দ্রুত কোন কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহন না করা হলে বিক্ষোভের রাষ্ট হিসাবে বাংলাদেশ পরিনত হবে। বক্তারা এসময় দ্রুত মুসলিম গণহত্যা বন্ধে জাতিসংঘের দৃষ্টি কামনা করেন। ৮ সেপ্টেম্বর শুকবার বাদ জুমা স্থানীয় পৌর পয়েন্টে জগন্নাথপুরে ভিবিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে মিয়ানমারের রাখাইনে মুসলিম রোহিঙ্গা গণহত্যা ও নির্যাতন বন্ধের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনে বক্তারা এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহ জগন্নাথপুর উপজেলা শাখা ও সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ আনজুমানে তালামীযে ইসলামিয়া, লতিফিয়া ক্বারী সোসাইটি, স্টুডেন্ট’স কেয়ারসহ বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে ৮ সেপ্টেম্বর স্থানীয় পৌরপয়েন্টে মানববন্ধন কর্মসুচী অনুষ্ঠিত হয়েছে। আল-ইসলাহ জগন্নাথপুর উপজেলার শাখার সভাপতি মাওলানা আজমল হোসেন জামীর সভাপতিত্বে ও স্টুডেন্ট’র কেয়ারের প্রধান পরিচালক মিজানুর রহমান রাসেল ও শামিম আহমদের যৌথ পরিচালনায় প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন প্রবীণ আলেম মাওলানা মুফতি গিয়াস উদ্দিন, কেন্দ্রীয় আল-ইসলাহর সদস্য মাওলানা তাজুল ইসলাম আলফাজ, উপজেলা আল ইসলাহ নেতা আবু আইয়ুব আনসারী, লতিফিয়া ক্বারী সোসাইটি জগন্নাথপুর উপজেলা শাখার যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক মাওলানা তাজুল ইসলাম, বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী ইমরান আহমদ, হাজী ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া, পৌর কাউন্সিলর আবাব মিয়া, প্রেসক্লাব’র সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার হাসান সুনু, সাবেক পৌর কাউন্সিলর কামাল উদ্দিন, আওয়ামীলীগ নেতা ফিরোজ আলী, উপজেলা জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল হাফিজ, উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম লাল মিয়া, জগন্নাথপুরে ডাকের সম্পাদক এম এ আসাদ চৌধুরী,জামাল উদ্দীন বেলাল,আকবর আলী, জেলা তালামীয সদস্য হাফিজ সৈয়দ জাবের হোসাইন, উপজেলা তালামীয সভাপতি হাফিজ জালাল উদ্দিন, উপজেলা তালামীয নেতা মুহা.ফারুক আহমদ, শিবির নেতা রেজাউল করিম রিপন, মাসুদ খান,আনোয়ার হোসাইন,উজ্জল আহমদ,ইমরান আহমদ সুমন প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,023 বার পড়া হয়েছে