শনিবার, ০৯ সেপ্টে ২০১৭ ০৬:০৯ ঘণ্টা

২০২৪ এর পর দেশে দারিদ্রতা থাকবে না : অর্থমন্ত্রী

Share Button

২০২৪ এর পর দেশে দারিদ্রতা থাকবে না : অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, আগামী ২০৩০ সালের মধ্যেই সরকার দেশ থেকে দারিদ্রতা দূর করতে চায়। তবে ২০৩০ সালের আগেই এ লক্ষ্য পূরণ হবে বলে আমরা আশাবাদী। ২০২৪ এর পর দেশে দারিদ্রতা থাকবে না। তিনি আরোও বলেন, এখন শহর ও গ্রামে সর্বত্রই উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। দেশের ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ এলাকা এখন উন্নত। একে ১০০ শতাংশে উন্নীত করা খুব কঠিন নয়।

শনিবার দুপুরে নগরীর মেন্দিবাগে বেসরকারি উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা সীমান্তিক’র ৪০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এসব কথা বলেন।

২০১৮ সালের মধ্যে দেশে শতভাগ বিদ্যুতায়ন সম্ভব হবে আশা করে তিনি বলেন, যদিও ২০২০ সালে দেশের প্রতিটি ঘরে বিদ্যুতায়নের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে সরকার। দু’বছর আগেই এ লক্ষ্য পূরণ করতে আমরা সক্ষম হবো।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর সাবেক স্বাস্থ্য, পরিবার ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক উপদেষ্টা, বিএমআরসি’র চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. সৈয়দ মুদাচ্ছের আলী। বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী, জাতিসংঘস্থ বাংলাদেশ মিশনের সাবেক রাষ্ট্রদূত ড. একে আব্দুল মোমেন, সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আজিজ আহমদ সেলিম, সাংবাদিক ইকরামুল কবির, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মুর্শেদ আহমদ চৌধুরী, যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক আতিক।

সীমান্তিকের চল্লিশ বছরের ইতিহাস ও কার্যক্রম তুলে ধরেন প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান পৃষ্ঠপোষক, রূপালী ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. আহমদ আল কবির। সীমান্তিকের চেয়ারপার্সন অধ্যক্ষ মাজেদ আহমেদ চঞ্চলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সিলেটের স্বাস্থ্য ও শিক্ষাখাতের উন্নয়ন ও সম্ভাবনা বিষয়ে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন সীমান্তিকের নির্বাহী পরিচালক ড. আহমদ আল সাবির। সীমান্তিকের নির্বাহী পরিচালক কাজী মোকসেদুর রহমান স্বাগত বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে মানবসম্পদ উন্নয়নে অবদানের জন্য সাবেক সংসদ সদস্য শিক্ষাবিদ হাফিজ আহমদ মজুমদারকে এবং মুক্তিযুদ্ধ ও শিক্ষায় অবদানের জন্য ভাষাসৈনিক প্রবীণ শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মো. আব্দুল আজিজকে সীমান্তিক পদক প্রদান করা হয়। হাফিজ মজুমদারের পক্ষে পদক গ্রহণ করেন বড় মেয়ে রানা লায়লা হাফিজ।

সীমান্তিক টিচার্স ট্রেনিং কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রউফ তাপাদারের সঞ্চালনায় এতে আরও বক্তব্য দেন সিলেট জেলা পরিষদের সদস্য ও সীমান্তিকের সেক্রেটারি শামীম আহমদ, নারী সদস্য সাজনা সুলতানা হক চৌধুরী। প্রধান অতিথি সীমান্তিকের চল্লিশ বছরে পদার্পন স্মারক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. আহমদ আল কবির সীমান্তিক কমপ্লেক্স ভবনের উদ্বোধন করেন।

এর আগে, সকাল ১০টায় ধোপাদিঘীরপাড়স্থ বিনোদিনী হাসপাতাল থেকে মাছিমপুরস্থ সংস্থার কমপ্লেক্স পর্যন্ত র‌্যালির মাধ্যমে শুরু হয় দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার। বিকেলে একই স্থানে বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এই সংবাদটি 1,083 বার পড়া হয়েছে