শনিবার, ০৯ সেপ্টে ২০১৭ ০৮:০৯ ঘণ্টা

কুদরত উল্লাহ মসজিদের ইমামকে অব্যাহতি,মুসল্লীদের মধ্যে বির্তক

Share Button

কুদরত উল্লাহ মসজিদের ইমামকে অব্যাহতি,মুসল্লীদের মধ্যে বির্তক

সিলেট রিপোর্ট: সিলেট নগরীর প্রাণকেন্দ্র হাজী কুদরত উল্লাহ জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা আব্দুল মতিনকে স্বীয় পদ থেকে  ইমামতি থেকে মৌখিক ভাবে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। মসজিদ কমিটির মুতাওয়াল্লির এমন ঘোষণায় মুসল্লীদের মধ্যে বির্তক শুরু হয়েছে।
জানাগেছে,  মাওলানা মো: . আব্দুল মতিন দীর্ঘ ত্রিশ বছর ধরে কুদরত উল্লাহ জামে মসজিদে ইমামতি করছেন।
 দীর্ঘ ৩০ বছরের ইমামকে বিদায় দেওয়ায় মসজিদের সাধারণ মুসল্লিরা ক্ষোভে ফুঁসে উঠছেন। মুতাওয়াল্লি কর্তৃক ইমামকে মৌখিক অব্যাহতির ঘোষণার পর অব্যাহতির কারণ সাধারণ মুসল্লিদের কাছে প্রকাশ করার দাবিও জানানো হয়। কমিটির পক্ষ থেকে কোনো সদুত্তর না পাওয়ায় ইমাম নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা প্রকট রূপ ধারণ করছে।
গত ২২ আগস্ট মাগরিবের নামাজের পর মসজিদ কমিটির মুতাওয়াল্লি বদরুল ইসলাম ইমাম আব্দুল মতিনকে পরবর্তী নামায এশার নামাজ পড়িয়ে পরের দিন চলে যাওয়ার নির্দেশ দেন।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, নামাজের মধ্যে ‘আমিন’ জোরে বলা, মসজিদের ওযুর হাউজের উপর কক্ষ নির্মাণের ক্ষেত্রে মসজিদ সেক্রেটারী মুকতাবিস-উন-নূর এর স্বেচ্ছাচারিতা, নিয়ম-নীতিহীন অনেক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে ইমাম মাওলানা আব্দুন মতিন মসজিদ, মুসল্লি ও সার্বিক কল্যাণের দিক বিবেচনা করে স্পষ্ট কথা বলতেন। মসজিদ সেক্রেটারীর বিরুদ্ধে এমন বক্তব্য সাধারণ মুসল্লিদের। কিন্তু সাধারণ মুসল্লিরা কিছু বলার সাহস পাচ্ছেন না। মাওলানা আব্দুন মতিন অব্যাহতির প্রদানের পেছনে তারই হাত আছে বলে জানা গেছে। জানা গেছে, সম্প্রতি ইমাম অব্যাহতি নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা থাকা সত্ত্বেও নিয়োগহীন ইমাম দিয়ে ঈদুল আযহার জামাতে ইমামতি করান মসজিদ কমিটির সেক্রটারী মুকতাবিস-উন-নূর।
এদিকে এ বিষয়টি ইমাম মাওলানা আব্দুল মতিন মৌখিকভাবে না জানিয়ে লিখিতভাবে জানানোর অনুরোধ করেন। এবং বিষয়টি বাংলাদেশ সরকারের ২০১৬ সালের ধর্মমন্ত্রণালয় কর্তৃক জারিকৃত গেজেট অনুযায়ী তাকে বিদায় দেয়ার অনুরোধ করেন। কিন্তু মসজিদের মোতাওয়াল্লি বদরুল ইসলাম ইমামকে বলেন লিখিত কোন কিছুই দেয়া হবে না। অতীতেও লিখিত কোন নোটিশ দেয়া হয়নি। এসময় ইমাম আব্দুল মতিন এর জবাবে লিখিত না দেয়া পর্যন্ত কুদরত উল্লাহ মসজিদের বৈধ ইমাম হিসেবে রয়েছেন বলে দাবি করেছেন। এমন অবস্থার প্রেক্ষিতে মসজিদ কমিটি এবং সাধারণ মুসল্লিরা মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছেন।
মসজিদের মুসল্লি ও সিসিক’র সাবেক কাউন্সিলর মুজিবুর রহমান শওকত বলেন, বিদায় দেওয়া, নিয়োগ দেওয়া এটা একান্ত কমিটির ব্যাপার। তবে সবকিছুর তো একটা নিয়মনীতী অনুস্মরণ করে চলে। এভাবে প্রবিণ আলেম, দীর্ঘদিনের ইমামকে মৌখিক বিদায়ের খবর সত্যিই মর্মাহত করেছে আমাদের। আমরা চাই তিনি যাতে আমৃত্যু এই মসজিদের ইমাম হিসেবে থাকেন।
এছাড়া আমির হোসেন, ফিরুজ উদ্দিন, মাওলানা মখছুছুল করিম, এনাম আহমদ, মাসুদ আহমদ, ছালেহ আহমদ ও মাওলানা আব্দুল জলিল প্রমুখ মসল্লিদের সাথে আলাপকালে সবার একটাই বক্তব্য মসজিদের ইমামকে এভাবে অব্যাহতি কোনো ভাবে মেনে নেওয়ার নয়। মুতাওয়াল্লি কর্তৃক যে ভাষায় ইমামকে চলে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে তা মসজিদের দায়িত্বশীল ব্যক্তির মুখে শুভা পায় না।
মসজিদের মুসল্লি ও শাহজালাল জামেয়ার শিক্ষক মাওলানা আব্দুল জলিল বলেন, মাওলানা আব্দুল মতিন একজন বিজ্ঞ আলেম, তিনি স্পষ্টভাষী বক্তা, নিরপেক্ষ-নিরদলীয় এই ইমাম আজ মহান পেশা ইমামতির দায়িত্ব পালনে রাজনীতির শিকার হচ্ছেন। আমরা সাধারণ মুসল্লিদের দাবি অবিলম্বে এই অব্যাহতি প্রত্যাখ্যান করা হোক, ইমাম আব্দুল মতিনতে পূণরায় বহাল রাখা হোক।
ইমাম মাওলানা আব্দুল মতিনের অব্যাহতির ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে হাজী কুদরত উল্লাহ জামে মসজিদের আরেক ইমাম মাওলানা জমির উদ্দিন বলেন, ‘আমি নির্বাক, আমি হতবাক, আমি বিস্মিত’।
মসজিদ কমিটির সেক্রেটারী মুকতাবিস-উন-নূর বলেন, মাওলানা আব্দুল মতিন বার্ধক্য জনিত রোগে আক্রান্ত তিনি নামাজের ইমামতি অত্যন্ত ধীর গতিতে করেন, ফলে মুসল্লিরা তার আগে সেজদা থেকে উঠে দাঁড়ান। তাই তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। মৌখিক অব্যাহতি প্রদান এটা কোনো নিয়মের ভিত্তিতে জানতে চাইলে মুকতাবিস উন নূর বলেন, এটা মুতাওয়াল্লির একান্ত ক্ষমতার বলে। আপনি মুতাওয়াল্লির সাথে কথা বলুন।
ওয়াকফ্ এস্টেট সিলেটের ইন্সপেক্টর আনওয়ার হোসেন  বলেন, উপযুক্ত কারণ ছাড়া এভাবে অব্যাহতি প্রদান অনুচিত। তিনি আরও বলেন মসজিদের ইমাম যদি অব্যাহতি প্রদানকে নীয়ম-নীতী বর্হিভূত মনে করেন, তাহলে তিনি বাংলাদেশ ওয়াকফ এস্টেট প্রশাসনের প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিতে পারেন।
অব্যাহতির ব্যাপারে ইমাম মাওলানা আব্দুল মতিন বলেন, অব্যাহতির উপযুক্ত কারণ দেখিয়ে ধর্মমন্ত্রণালয়ের ২০০৬ সালের গেজেট অনুসারে আমাকে বিদায় দেয়া হোক এটা আমার দাবি। অদৃশ্য কারণে অব্যাহতি দিয়ে কমিটি আইনের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

প্রবিণ আলেম, সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব, কোনো কারণ ছাড়াই দীর্ঘদিনের প্রিয় ইমামের অব্যাহতির কথা জানাজানি হলে মসজিদের সাধারণ মুসল্লিদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। ইমাম মাওলানা আব্দুল মতিনকে এমন ভাষায় অব্যাহতির কথা মহান পেশার প্রতি অশ্রদ্ধা ও রূঢ় আচরণের শামিল বলে মনে করেন সাধারণ মুসল্লিরা।
সুত্র-শ্যামল সিলেট

এই সংবাদটি 1,031 বার পড়া হয়েছে