বৃহস্পতিবার, ১৪ সেপ্টে ২০১৭ ০৪:০৯ ঘণ্টা

মিয়ানমার অভিমুখে রোডমার্চ সফল করতে ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন

Share Button

মিয়ানমার অভিমুখে রোডমার্চ সফল করতে ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন

সিলেট রিপোর্ট: সাম্প্রতিককালে নজিরবিহীন গণহত্যা ও নিপীড়নের শিকার রোহিঙ্গাদের পক্ষে অধিক জনমত তৈরীর জন্য ‘হিউম্যানিটি ফর রোহিঙ্গা, বাংলাদেশ’ নামক সংগঠনের পক্ষ থেকে সিলেট টু টেকনাফ অভিমুখে রোডমার্চ কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ঢাকা ডিআরইউ মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে ‘হিউম্যানিটি ফর রোহিঙ্গা’ নামক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এই কর্মসূচীর ঘোষণা দেন। তারা মনে করেন এই কর্মসূচীর মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারের বিশ^বিবেকের দৃষ্টি আকর্ষণের কাজে সহায়তা হবে। সংগঠনের চেয়ারম্যান সাবেক এমপি এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী সংবাদ সম্মেলনে রোডমার্চ কর্মসূচীর বিবরণ দিয়ে বলেন, আগামী ২১ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় সিলেট হুমায়ূন রশিদ চত্বর থেকে রোডমার্চ কাফেলা রওয়ানা হয়ে হবিগঞ্জ, বি-বাড়ীয়া, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের একাধিক স্থানে পথসভা করে ২২ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকাল ৩টায় টেকনাফে গিয়ে মহাসমাবেশে মিলিত হবে। তিনি মজলুম রোহিঙ্গাদের রক্ষায় এই মানবিক কর্মসূচী সফলে দেশবাসীর সমর্থন, সহযোগিতা ও রোডমার্চে অংশীদার হওয়ার জন্য আহবান জানান। শাহীনূর পাশা আরো বলেন, আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই যে, তিনি বিলম্বে হলেও শরণার্থীদের পাশে দাড়িয়েছেন, রোহিঙ্গাদেরকে তাদের স্ব-ভূমি তথা রাখাইনে ফিরিয়ে নিতে মায়ানমারকে আহবান জানিয়েছেন, সংসদে এবং উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের পক্ষে জোরালো বক্তব্য রেখেছেন এবং যতোদিন তারা বাংলাদেশে থাকবে তাদের পাশে থাকার অঙ্গিকার করেছেন।

সংগঠনের উপদেষ্টা, সাবেক মন্ত্রী মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস বলেন, আমরা গভীর উদ্বেগের সাথে লক্ষ করছি যে, দীর্ঘদিন যাবৎ বার্মায় রোহিঙ্গা মুসলিমসহ ভিন্নধর্মী লোকদের উপর নির্যাতন, নিপীড়ন চলছে। নারী শিশুদের ধর্ষণ করে টুকরোটুকরো করে কেটে ফেলা হচ্ছে। জীবন্ত বনিআদমকে ব্রাশফায়ারে ঝাঁঝরা করার পর তেল ঢেলে পোড়ানো হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে কোন বিবেকবান মানুষ নিশ্চুপ থাকতে পারে না। মায়ানমারে সরকারী নির্দেশনায় বিভিন্ন বাহিনীর পাশাপাশি উগ্র রাখাইন কর্র্তৃক গণহত্যা বন্ধে সবাইকে সোচ্চার হয়ে কার্যকরী প্রতিবাদ গড়ে তোলা প্রতিটি বিবেকবান মানুষের নৈতিক দায়িত্ব। তিনি আরো বলেন, প্রতিবেশী দেশে সংঘটিত এই সংকটের বড় ধাক্কা পোহাতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। এই সমস্যা উত্তরণে জাতীয় ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই। ইতোমধ্যেই মায়ানমারের সেনাবাহিনী ১৭বার আমাদের আকাশ সীমা লংঘনের দুঃসাহস দেখালেও বাংলাদেশের দিক থেকে দুর্বল মৌখিক প্রতিবাদ ছাড়া আর কোনো নড়াচড়া আমরা দেখতে পাইনি। আশার কথা হলো, দেশের সর্বস্তরের জনগণ দলমতের ঊর্ধ্বে উঠে ঐক্যবদ্ধ হয়ে গেছেন। সরকারের পদক্ষেপের দিকে না তাকিয়ে তারা ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিপন্ন রোহিঙ্গাদের সাহায্যে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন। এই বিপুল জনমতকে পুঁজি করে সরকার আন্তর্জাতিকভাবে মায়ানমারের উপর গণহত্যা বন্ধে চাপ সৃষ্টি এবং রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠিকে তাদের দেশে ফিরিয়ে নেয়া এবং পুনর্বাসনের জন্য সরকারকে সক্রিয় ভূমিকা পালন করার উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন রোডমার্চ বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য মাওলানা গোলাম মুহিউদ্দীন ইকরাম, মুফতী রেজাউল করীম, মাওলানা ওয়ালী উল্লাহ আরমান, মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী, মাওলানা আলীনূর, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী, মাওলানা হাম্মাদ গাজিনগরী, মুফতী আব্দুল্লাহ ইয়াহইয়া, মুফতী তোফায়েল গাজালী, মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী, মুফতী আবু সাঈদ, মাওলানা আলিমুদ্দিন, মুফতী আতাউর রহমান খান, মাওলানা তোফায়েল আহমদ ওসমানী,মাওলানা কায়সান মাহমুদ আকবরী প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,057 বার পড়া হয়েছে