রবিবার, ১৫ অক্টো ২০১৭ ০২:১০ ঘণ্টা

সৃজনঘরের লেখালেখি কর্মশালা অনুষ্ঠিত

Share Button

সৃজনঘরের লেখালেখি কর্মশালা অনুষ্ঠিত

জায়েদ আল হাফিজ: ‘সৃজনঘর সাহিত্য ফোরাম’ এর উদ্যোগে ১৩ অক্টোবর মৌলভীবাজারে দিনব্যাপী ‘লেখালেখি কর্মশালা’ অনুষ্ঠিত হয়। শ্রীমঙ্গল নাজাত ইসলামী মারকায কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত হওয়া কর্মশালায় প্রশিক্ষকরা বলেন, নিজেকে লেখক, সাংবাদিক, কলামিস্ট, সাহিত্যিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে প্রথমেই নিজের পাটাতন মজবুত করতে হবে। ব্যাপক পড়াশুনা করা ছাড়া এই পথে আগানো প্রায় অসম্ভব। জাতীয় কবি নজরুল এবং বর্তমানের আল মাহমুদকে পড়াশোনার ক্ষেত্রে আইডল বানালে ভুল হবে। ক্লাসিক্যাল পড়াশোনা কম থাকা সত্ত্বেও বাঙলা সাহিত্যে তারা যে অবদান রেখেছেন তা ব্যতিক্রম।

মৌলভীবাজারের তরুণ লিখিয়েদের প্রয়াসে অনুষ্ঠিত ‘লেখালেখি কর্মশালা’য় ‘ছড়া-ছন্দ ও কবিতা’র উপর প্রশিক্ষণ প্রদান করেন বিজয়ের সন্তান খ্যাত কবি গবেষক মুসা আল হাফিজ। ‘সাংবাদিকতার হাতেখড়ি’ বিষয়ের উপর দীর্ঘ বক্তব্য রাখেন বাংলা নিউজ টোয়েন্টি ফোর ডটকমের বিভাগীয় সম্পাদক মুফতী এনায়েত উল্লাহ। ‘আমাদের পড়াশোনা আমাদের লেখালেখি, বিষয়ের উপর আলোচনা করেন বরেণ্য গদ্যশিল্পী মুহাম্মদ যাইনুল আবেদীন। মীম সুফিয়ানের সঞ্চালনায় শুরু হওয়া কর্মশালাটি চলে সকাল দশটা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত।

প্রশিক্ষকরা বলেন, লেখালেখির পিচ্ছিল এই পথে হাঁটতে হলে নিজেকে পড়াশোনা মাধ্যমেই প্রস্তুত করতে হবে। প্রতিটি লেখক হৃদয় সামনে যা পায় একজন রাক্ষুসে ক্ষুদার্তের মতো তাই চর্বণ করতে হবে। বর্তমানের বুদ্ধিভিত্তিক লড়াইয়ে পড়াশোনার বিকল্প নেই। পড়াশোনা এবং লেখালেখির মাধ্যমে আমাদেরকে তা কাটিয়ে উঠতে হবে। বর্তমানে সাহিত্য কিংবা ভাষার শুদ্ধ লালনে আমাদেরকে আরো এগিয়ে যেতে হবে। আমরা এগিয়ে যেতে না পারলে কিংবা আমাদেরকে এগুতে না দিলে আমরা থেমে থাকতে পারি কিন্তু পিছিয়ে যেতে পারি না। অতিথিরা বলেন, মাওলানা মুহিউদ্দিন খান রাহ. বলতেন, একপৃষ্ঠা লেখতে হলে অন্তত একশো পৃষ্ঠা পড়তে হবে। আমাদের প্রত্যেক প্রশিক্ষণার্থীদেরকে এই কথা স্মরণ রাখতে হবে। সৃজনঘরের আয়োজন দেখে অতিথিরা বলেন, মৌলভীবাজারে এমন একটি আকর্ষণীয় ‘লেখালেখি কর্মশালা’ হবে আমরা তা ভাবতেও পারিনি। আয়োজকদের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, আগামীতেও এরকম মনমুগ্ধকর গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠান হওয়া চাই। এদিকে নাজাত ইসলামি মারকাযে সকাল নয়টা থেকেই জড়ো হতে থাকেন জেলার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত সাহিত্যপিয়াসু প্রশিক্ষণার্থীরা। উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে চলমান কর্মশালায় ছিলো তেলাওয়াত, হামদ-নাত, সঙ্গীত এবং ভিন্ন ধারার আবৃত্তি। বেলা তিনটায় কবি মীম সুফিয়ানের ‘সরব আবৃত্তি বলয়’ কোরাসকণ্ঠে কবি নজরুলের দু’টি কবিতা আবৃত্তি করে মঞ্চকে মাতিয়ে তুলে। এছাড়াও শিল্পী আহমদ আব্দুল্লাহ, কাজী আমিনুল ইসলাম এবং শালীন আহমদের সুরের মূর্ছনায় মোহিত হয় কনফারেন্স হল। কর্মশালার শেষ অধিবেশনে ছিলো মোড়ক উন্মোচন এবং সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান পর্ব। সৃজনঘরের অনলাইন সম্পাদক হাম্মাদ তাহমীমের প্রথম ছড়াগ্রন্থ ”ছন্দপাতার দন্দ্বগুলো’ বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন অতিথিরা। কবি মুসা আল হাফিজ বলেন, হাম্মাদ তাহমীমের বইটি ছড়া সাহিত্যে ভিন্ন মাত্রার স্বাদ এনেছে। আমার প্রথম বইটি থেকে হাম্মাদ তাহমীমের প্রথম বইটি অনেক সুন্দর এবং সমৃদ্ধ। ২০১৬-১৭ সেশনের সৃজনঘর সভাপতি আহমদ কবীর খলীল এবং সম্পাদক সাইফ রাহমানকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করে সৃজনঘর। সৃজনঘর সাহিত্য ফোরামের দিনব্যাপী এই ‘লেখালেখি কর্মশালা’ ব্যাপক সাড়া ফেলে অনলাইনে-অফলাইনে। গতকাল ১৩ অক্টোবর ফেসবুকে ঢুঁ মারলে দেখা যায় হোম পেজ ছেয়ে আছে লেখালেখি কর্মশালায় আগতদের পোস্টে।  ফোরামের সভাপতি আহমদ কবির খলীলের বক্তব্যের মাধ্যমে শেষ হয় দিনব্যাপী এই কর্মশালাটি।

 

এই সংবাদটি 1,013 বার পড়া হয়েছে