রবিবার, ১৫ অক্টো ২০১৭ ১১:১০ ঘণ্টা

কী হতে পারে আমাদের কাজের কৌশল?

Share Button

কী হতে পারে আমাদের কাজের কৌশল?

সামনে অনেক কাজ। অনেক ভাবনা। কিন্তু পথ কোনটা? কী হবে আমাদের কাজের কৌশল? কে হবেন আমাদের আদর্শ? সাম্প্রতিক বিশ্বে সফল এমন কে আছেন যাকে অনুসরণ করে এগিয়ে যাওয়া আমাদের পক্ষে সম্ভব? আমরা যা ভাবি, যেমনটা দেখতে চাই সেভাবে কি কিছু করা সম্ভব? কেন আমাদের উদ্যোগগুলো হারিয়ে যায়? কেন আমাদের প্রচেষ্টাগুলো আলোরমুখ দেখে না? ইত্যাদি নানা বিষয় আসতে থাকে। আমাদের জীবনের প্রতিটি পরতে পরতে রাসুল সা. এর আদর্শই একমাত্র আদর্শ।আর সাহাবায়ে রেখে যাওয়া কর্মপন্থার যে বিশাল জ্ঞান ভান্ডার রয়েছে তা যে কোন ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের মুক্তির জন্য, উৎকর্ষতা সাধনের জন্য আর কোন বিকল্পের চিন্তা করার কোনই প্রয়োজন নাই। আমাদের সামনে রাসুল সা. এর ওসওয়াহ ও সাহাবায়ে কেরামগণের অনুসরণযোগ্য আমলের বাস্তব প্রতিচ্ছবি পাই বিংশ শতাব্দীর শেষ দিনটিতে যিনি আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন সেই মহান ব্যক্তি, আল্লামা আবুল হাসান আলী নদভী রহ. এর প্রতিটি কাজ, প্রতিটি চিন্তা, প্রতিটি পদক্ষেপ, প্রতিটি লেখা, প্রতিটি বক্তৃতা, প্রতিটি আলোচনা সভায়।

 

আমাদের সাধ্যের ভিতর বুদ্ধিবৃত্তিক যে কোন কাজে প্রথম মডেল হিসেবে আল্লামা আবুল হাসান আলী নদভী রহ. এর চিন্তাধারাকে সামনে রাখি। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটেও তাঁর অসাধারণ দূরদর্শীতা প্রদর্শনমূলক বক্তব্যগুলো এতটাই আমাকে আপ্লুত করে, যা আর কারো লেখায় আমি পাইনা।বুদ্ধিবৃত্তিক যে কোন কাজে তাঁর অসাধারণ পরামর্শগুলো যদি আমরা আমাদের বাস্তব জীবনে প্রয়োগ ঘটাতে পারি, তাহলে মনে হয় এর দ্বারা আমাদের সকলের উপকৃত হওয়া সম্ভব। আমাদের আকাবির-আসলাফ যারা আছেন, তাদের সকলের কাজের মধ্যেই পরবর্তী প্রজন্ম এর জন্য অতীব জরুরী বার্তা নিহিত আছে। সেটাকে উদ্ধার করে, বাস্তব কর্মক্ষেত্রে প্রয়োগ করার সুযোগ বের করা আমাদের বর্তমান প্রজন্মের অন্যতম দায়িত্ব।

বাংলাদেশের আলেম-উলামা, মুসলিম জনসাধারণকে নিয়ে আল্লামা আবুল হাসান আলী নদভী রহ. এর আবেগঘন বক্তব্যের কিছু বিষয় বারবার আওড়াতে মন চায়। তিনি আমাদেরকে কাজের নীতিমালা জানিয়ে দিয়ে গিয়েছেন। আমরা আজ আরাকানের মুসলমানদের উদ্দেশ্যে তাঁর প্রদত্ত ১৯৬১সালের সেই ঐতিহাসিক বক্তব্যের কথা বলি। কিন্তু আমাদের উদ্দেশ্যে প্রদত্ত বক্তব্যগুলো ভুলে থাকি। এদেশের মানুষের উদ্দেশ্যে তাঁর প্রদত্ত রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের কৌশল হিসেবে প্রদত্ত চিন্তাগুলো নিয়ে আমাদের চিন্তা-ভাবনা করা, বাস্তবায়ন করা সময়ের অন্যতম দাবী।

“সাইয়েদ আবুল হাসান আলী নদভীর দাওয়াত ও চিন্তাধারা” বইটিতে আল্লামা নদভীর চিন্তা ও দর্শন ফুঠিয়ে তোলা হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে, বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর উদ্দেশ্যে প্রদত্ত তাঁর হৃদয়গলানো, মমতাভরা আবেদনগুলো তুলে আনা হয়েছে। বাংলাদেশের উলামা হযরাত, সাধারণ জনগণকে লক্ষ্য করে প্রদত্ত বক্তব্যগুলোও সেখানে একত্রিত করা হয়েছে। আমরা সংক্ষেপে তার কিছু উদ্ধৃতি জেনে নিয়ে সেগুলো থেকে আমাদের কী করণীয় তা বের করবো ইনশাআল্লাহ।

ভাষার নেতৃত্ব গ্রহন প্রসঙ্গে তিনি বলেন :
ক।আল্লামা নদভী রহ. আলেম ও ছাত্রদের এক বিশাল সমাবেশে ভাষণ দিতে গিয়ে আলেমদের বাংলাভাষায় দক্ষতা অর্জনের আহবান জানান। তিনি বলেন, “ আপনারা বাংলাভাষাকে অস্পৃশ্য মনে করবেন না।মনে করবেন না বাংলাভাষায় লেখাপড়ায় কোন সওয়াব নেই। যত সওয়াব সব আরবী-উর্দূতে। আপনারা প্রত্যেকেই বাংলাভাষায় দক্ষতা অর্জন করে ভালো লেখক, সাহিত্যিক, ভাষাবিদ, বাগ্মী হবেন। আপনার ভাষা হবে মিষ্ট, শ্রুতিমধুর ও সুখপাঠ্য। যেন লোকেরা অমুসলিম লেখকদের লেখা ছেড়ে আপনাদের লেখা নিয়েই মেতে থাকে। তিনি আরো বলেন- আপনার বাংলা ভাষার নেতৃত্ব গ্রহন করুন। অমুসলিম লেখক-সাহিত্যিক ও মুসলিম নামধারী অনৈসলামিক লেখক-সাহিত্যিক থেকে বাংলাভাষার নেতৃত্ব ও কর্তৃত্ব দখল করুন। উভয় শ্রেণি থেকে আপনার ভাষা ও সাহিত্যের নেতৃত্ব ছিনিয়ে নিয়ে তাতে এমন ব্যুৎপত্তি অর্জন করুন, যেন লোকেরা আপনাদের লেখার প্রতি আকৃষ্ট হয়।”

কৃষ্টি-কালচারের স্বাধীনতা প্রসঙ্গে তিনি বলেন:
খ। তিনি বলেন : যে জাতি অন্যের চিন্তা-চেতনা, প্রভাব-প্রতিক্রিয়া ও কৃষ্টি-কালচার গ্রহন করে, সে জাতি সব সময় বিপদাশঙ্কায় থাকে এবং কখনও পরিপূর্ণভাবে চিন্তার স্বাধীনতা পায় না। জ্ঞান ও সাহিত্যের দিক দিয়ে অন্য জাতির উপর নির্ভরশীল জাতি সবসময়ই তাদের করুণার পাত্র হয়ে থাকে এবং তাদের দ্বারা প্রভাবিত হয়। তাদের মূল্যবোধ, চিন্তা-চেতনা ও মনন গ্রহন করে এবং তাদের আনুগত্য প্রকাশ করে।”

চিন্তার দৈন্যতা কী বিপদ ডেকে আনতে পারে :
গ। তিনি বলেন : “ আপনারা যদি অন্য কোন জাতি বা সম্প্রদায় এবং অন্যকোন শ্রেণির মন:স্তাত্বিক আধিপত্য মেনে নেন, সাহায্য-সহযোগিতা গ্রহন করেন এবং তাদের ধ্যান-ধারণা ও চিন্তাধারা গ্রহন করেন, তাহলে আপনারা নিশ্চিত বিপদের সম্মুখীন হবেন। আপনাদের সভ্যতা-সংস্কৃতি ও ভাষা-সাহিত্য সবদিক দিয়ে স্বাধীন ও স্বাতন্ত্রের অধিকারী হতে হবে।”

‘এদেশের ভাগ্য ইসলামে সাথে, অন্য কোন কিছুর সাথেই নয়’ এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন :
ঘ। আল্লামা নদভী রহ, বলেন : “ এই দেশের জন্য আল্লাহর চিরন্তন ফায়সালা হলো, এই দেশে ইসলাম থাকবে। এই দেশের কল্যাণ ও নিরাপত্তা এর মধ্যেই নিহিত। আমি এই মিম্বরে বসে আপনাদের বলছি- যদি এই দেশ ইসলাম ছেড়ে দেয়, তবে কখনোই স্বচ্ছল, কল্যাণময় ও স্থিতিশীল হতে পারবেন না। কেননা এই দেশের ইজ্জত-সম্মান ইসলামের সাথে জড়িত। এই দেশ ওই সময় পর্যন্ত সংরক্ষিত থাকবে, যতক্ষণ পর্যন্ত তা ইসলামের অধীনে থাকবে। আল্লাহ না করুন, যদি এই দেশ আল্লাহর এই নিয়ামতের শোকর আদায় না করে এবং সে জাহিলিয়্যাতের কোন পতাকার নিচে চলে যায়, তাহলে এই দেশের কোন কল্যাণ নেই। কোন প্রজেক্ট, কোন প্ল্যান, বাইরের কোন সাহায্য-সহযোগিতা এবং অভ্যন্তরীন নিরাপত্তা ব্যবস্থা এই দেশ রক্ষা করতে পারবে না। এই দেশের ভাগ্য ইসলামের সাথে জড়িত।”

পাশ্চাত্যের সবই খারাপ! এমন মনোভাবের ক্ষতি সম্পর্কে বলেন:

আল্লামা নদভী রহ. পশ্চিমা সভ্যতার পুরোটাই অস্বীকার করেননি। তিনি তার এক ভাষণে বলেন : আপনারা স্মরণ রাখবেন, যে কোন কাজেই অতিরঞ্জন ও বাড়াবাড়ি ঠিক নয়। এটা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ক্ষতিকর প্রমাণিত হয়। যেমন বলে দেওয়া হয়- “ পশ্চিমা সভ্যতা কিছুই নয়। এর কোনকিছুই গ্রহন করার মতো নয়। কিন্তু মানুষ যখন এর বিরুদ্ধে কোন প্রমাণ পেয়ে যায় কিংবা জ্ঞান-বিজ্ঞানের উৎকর্ষ ও উপকারিতার ব্যাপারে তার অভিজ্ঞতা হয়ে যায়, তখন সে তা অস্বীকার করে না। অর্থাৎ সে তার পুর্বের অবস্থান থেকে ফিরে এসে পশ্চিমা সভ্যতার গুণগ্রহাী হয়ে উঠে। তিনি বলেন- এ বাস্তবতাও স্মরণ রাখুন, ভারসাম্যহীণতা অনেক সময় ইরতিদাদ তথা ধর্মান্তর পর্যন্ত পৌঁছে দেয়। এবং জীবনের গতিপথ পাল্টে দেয়।”

দ্বীনকে বিজয়ী করার ব্যাপারে তিনি দুটি রাস্তার কথা উল্লেখ করে বলেন :
প্রথম পথ: দ্বীনের দাওয়াত সমাজের নেতৃত্বস্থানীয় ও ক্ষমতাবানদের কাছে বা ভবিষ্যতে যারা ক্ষমতাসীন হবেন, তাদের কাছে তুলে ধরতে হবে। এই পদ্ধতি শ্রেণিবিন্যাস, প্রভাব ও উপকারিতার দিক দিয়ে সবচেয়ে কার্যকরী পদ্ধতি। দায়ীগণ ধর্মীয় পথপ্রদর্শনের নিমিত্তে সময়োপযোগী, সমীচিন ও প্রজ্ঞাপূর্ণ পন্থা অবলম্বন করে।
দ্বিতীয় পথ : সরাসরি ধার্মিক ব্যক্তিবর্গ ক্ষমতার নেতৃস্থানীয় পর্যায়ে পৌঁছবে ও শাসন-ক্ষমতা অর্জনের জন্য চেষ্টা করবে।

মুক্তির তৃতীয় পথটি হলো- দাওয়াত ও সংশোধনের সকল আশা যখন নিঃশেষ হয়ে যায় এবং একমাত্র বিপ্লবের পথই বাকি থাকে, তখন ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধে জিহাদ করা এবং দাওয়াতের পথ থেকে সকল বাঁধা দূর করা উম্মতের আলেমদের অবশ্য কর্তব্য।

‘সুযোগ আসলে ক্ষমতায় যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে রাখা’ প্রসঙ্গে তিনি বলেন:
ধমীয় আন্দোলন এবং আন্দোলনরত দলগুলোর ব্যাপার আল্লামা নদভী রহ, এটিই সঙ্গত মনে করতেন যে, তারা যতটুকু সম্ভব রাজনীতি থেকে পৃথক হয়ে ধর্মীয় এবং মনোজাগতিক নির্দেশনার জন্য কাজ করবে। মোক্ষম সময়ের পর্বে রাজনৈতিক বা বৈপ্লবিক পদক্ষেপ থেকে দূরত্ব বজায় রাখবে। তবে তার প্রয়োজন দেখা দিলে কোন অলসতা করবে না।”

উপরোক্ত আলোচনা ও উদ্ধৃতিগুলোতে আমাদের কাজের কৌশল কী হতে পারে, তা চলে এসেছে। আমাদের কর্মকৌশল, আমাদের রাজনৈতিক দর্শন, আমাদের অভিষ্ট লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সম্পর্কে তিনি পরিস্কার ধারণা দিয়েছেন। যে কোন সমাজের চিন্তাশীল আলেম সমাজের জন্য তার অসাধারণ দিক নির্দেশগুলো যদি আমরা অনুসরণ করি, তাহলে আমাদের মাঝে কোন বিরোধ সৃষ্টি হবে না। পরস্পর ভুল বুঝাবুঝি থাকবে না।

বুদ্ধিবৃত্তিক কাজের সাথে সম্পৃক্ত কোন সংগঠনের জন্য তাঁর যে নির্দেশনাগুলো উপরে এসেছে, সেগুলো আলোচনা করলে নিম্নের কাজগুলোই আমাদের সামনে প্রতিভাত হয়।

ক। মাতৃভাষা চর্চার বিকাশ ঘটানো, মান সম্পন্ন সাহিত্য চর্চার পরিবেশ তৈরী, পাঠক তৈরী, বাজারজাতকরণ ইত্যাদি বিষয়ে আমাদের গবেষণা, পরস্পরের ভাবনাগুলো বিনিময় করা। সাহিত্যচর্চার সংগঠনগুলোর পৃষ্টপোষকতা দান, গুণী লেখকদের সম্মানী ও  সম্মাননা প্রদান ইত্যাদি কার্যক্রম পরিচালনা করা।

খ। বিজাতীয় সভ্যতার ক্ষতিকর দিকগুলো সম্পর্কে মুসলিম উম্মাহকে সজাগ ও সতর্ক করা। খারাপ দিকগুলো বর্জন করা, ভালোটা গ্রহন করা। এ বিষয়ে গবেষণামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা, অনুষ্ঠান করা, লেখালেখি করা, প্রদর্শনী করা, ডকুমেন্টরী তৈরী করা, আলোচনাসভা করা, সেমিনার করা, র‌্যালী করা ইত্যাদি কার্যক্রম পরিচালনা করাই হবে বুদ্ধিবৃত্তিক কাজের জন্য প্রতিষ্ঠিত কোন সংগঠনের প্রথম ও অন্যতম কাজ।

গ। রাষ্ট্রের শক্তিশালী ইউনিটগুলোর নিকট দ্বীনের দাওয়াত পৌঁছানো। দ্বীনি মেজাজ তৈরী করা। তাদের দিয়ে দ্বীনি খেদমত আঞ্জাম দেওয়ার সর্বপ্রকার প্রচেষ্টা চালানো। যে যেই লাইনে কাজ করছেন, রাষ্ট্রের সেই লাইনের সম্মানিত লোকদের কাছে দাওয়াত পৌঁছানোর জন্য একদল যোগ্য, মেধাবী, সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অভিজ্ঞ লোকবল খুঁজে বের করে তাদের কাজে লাগানো। পরামর্শ প্রদান। মতামত প্রদান। এর মাধ্যমে কম প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছা সম্ভব। যেটা আল্লামা নদভী রহ. এর দাওয়াতি কাজের অন্যতম দর্শন হিসেবে তুলে ধরেছেন।

ঘ। ইসলাম বিরোধী শক্তির অপকৌশল সমূহ বুঝা, অনুভব করা, খুঁজে বের করা। মুসলিমদের ভেতর থেকে ধ্বংস করে দেওয়ার জন্য পাশ্চাত্য শক্তি যে ধরণের দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলের প্রয়োগ করে আসছে, যে সব পন্থায় তারা মুসলিম সমাজে ঢুকে পড়েছে, সেগুলোর তথ্যানুসন্ধান করা। মুসলিমদের মধ্য থেকে একদল নিবেদিতপ্রাণ এমন কর্মীবাহিনী গঠনের প্রচেষ্টা চালানো, যার দ্বারা খ্রীষ্টান মিশনারী শক্তিগুলো মুসলিম সমাজে ঢুকার পথ বন্ধ হয়ে যায়। সেবার আড়ালে, মানবতা ও মানবিকতা প্রদর্শনের আড়ালে, মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠার আড়ালে তারা যে ক্ষেত্রগুলো তৈরী করেছে সেসব জায়গায় আমাদের পৌঁছা, আমাদের সেবা প্রশস্ত করা। নির্দেশনা দেওয়া।

ঙ। চিন্তাশীল মানুষদের মধ্যে এমনভাবে সমন্বয় সাধন করা, যাতে করে কখনো যদি পরিবেশ আসে, সুযোগ আসে, তাহলে তারা যেন রাষ্ট্র পরিচালনায় যোগ্যতা প্রদর্শন করতে পারে। তারা যেন ব্যর্থ না হয়, জনগণের আশা-আকাংখার প্রতিফলন ঘটে সেই ধরণের পরিবেশ তৈরী করা। এরজন্য অভ্যন্তরীণ বিরোধ, মতপার্থক্য, ক্ষোভ প্রশমনে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা। নতুন নতুন চিন্তার ক্ষেত্র তৈরীর মাধ্যমে পুরাতন চিন্তাগুলোকে ঝেড়ে ফেলার ব্যবস্থা করা। অতীত ঐতিহ্য, ইতিহাস ও গৌরবমাখা দিনগুলোর পুনরুদ্ধারকল্পে বর্তমান মুসলিম স্কলারদের করণীয় কী তা প্রচার ও প্রসার করা। চিন্তার ক্ষেত্রে নতুন নতুন ভাবনাগুলো ছড়িয়ে দেওয়া। অলস মস্তিস্ক, অকর্মণ্য চিন্তাকে সচল রাখতে ভাবনার নতুন নতুন জগত নির্মাণ করা। শত্রু-মিত্র চিনার সহজ উপায় তুলে ধরা। ছোট শত্রুর সাথে মিত্রতা স্থাপন করে বড় শত্রুকে টার্গেট করে কর্মকৌশল নির্মাণ করা। অভিন্ন শত্রুর মোকাবেলায় ঐক্যবদ্ধ থাকা।

এভাবে বুদ্ধিবৃত্তিক কাজে সাথে সম্পৃক্ত কোন সংগঠন যদি এগিয়ে যেতে পারে, তাহলে আশা করা মুসলিম উম্মাহর প্রভুত কল্যাণ হবে। আল্লাহ আমাদের তৌফিক দান করুন। আমীন।

 

এই সংবাদটি 1,007 বার পড়া হয়েছে