মঙ্গলবার, ২৪ অক্টো ২০১৭ ১১:১০ ঘণ্টা

মাননীয় আইনমন্ত্রী পদত্যাগ করুন

Share Button

মাননীয় আইনমন্ত্রী পদত্যাগ করুন

রেজা আহমদ ফয়সল চৌধুরী: পুরাতন সব কাগজ খোঁজা-খুঁজি করছিলাম, দরকারী কাগজ রেখে বাঁকী গুলো ফেলে দিচ্ছিলাম। কারন কাগজের কারনে পরিবারের সবাই আমার উপর বিরক্ত। আমার রেইঞ্জ রোভার গাড়ীটি একটি ছোট খাটো অফিস। পাঠক আপনারা আমাকে ভূল বুঝবেননা। আমি রেইঞ্জ রোভার বলে ডাট মারছিনা, সেটি পুরোনো রেইঞ্জ রোভার। ২০০৪ এর। ডাস বোর্ডের উপরে পত্রিকা আর কাগজে টাসা। আমি কোনো কিছু ফেলতে চাইনা। ২০১০ এর দিকে লন্ডনে আমার গাড়ীতে উঠেছিলেন চ্যানেল আই এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব ফরিদুর রেজা সাগর সাহেবের স্ত্রী কনা রেজা, কনা ভাবী উঠে বলেছিলেন কি-রে, এ গাড়ী তো দেখছি ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের গাড়ীর মত। সাগর ভাই তখন একটু বিব্রত হয়েছিলেন, সাগর ভাই ভেবেছিলেন আমি হয়তো মাইন্ড করবো, কিন্তু কনা ভাবীর কথা শুনে মাইন্ড তো দুরের কথা হাঁসি পায়, যা বলার সরাসরি বলে ফেলেন।
সে যাক, লন্ডনের কবি বন্ধুবর মোহাম্মদ আব্দুলহাক বেশ কয়েকমাস ধরেই তাগিদ দিচ্ছেন, আমার পুরানো-নতুন লেখা নিয়ে একটা বই বের করবেন। যার কারনেই এসব খোঁজা। খুঁজতে গিয়ে একটি লেখা চোঁখে পড়লো। লেখাটি ২০০৮ সালের সেপ্টেম্বর ,মাসের ৮ তারিখের। বর্তমান “বাংলাদেশ প্রতিদিনের“ প্রিয় সম্পাদক নঈম নিজাম সাহেব আমাকে উদ্দেশ্য করে লিখেছিলেন, হেডিং ছিল “প্রেম জীবনকে দেয় ঐশ্বর্য, মৃত্যুকে দেয় মহিমা, প্রবঞ্চিতকে দেয় দাঁহ, জনগনকে দেয়নি কিছুই, ফয়সাল এবার শুনুন———। দীর্ঘ লেখাটি নতুন করে আবার পড়লাম। লেখাটি প্রকাশিত হয়েছিল তৎকালীন নাঈমুল ইসলাম খান সাহেবের পত্রিকা দৈনিক “আমাদের সময়ে“ তখন নাঈম ভাইর পত্রিকায় আমি লিখতাম। লিখতেন সর্ব জনাব নঈম নিজাম, পীর হাবিব , সৈয়দ বোরহান কবীর, (প্রিয় বোরহান কবীর সাহেবের সাথে লেখা নিয়ে কিছুটা দ্বিমত হয়েছিল, সেটি অন্য প্রসঙ্গ) বন্ধুবর আকিদুল ইসলাম, মাহমুদুর রহমান মান্না সাহেব,সুনীল শুভ রায়, শাবান মাহমুদ, আবুল বাশার,দীনেশ দাস ,বর্তমান একাত্তর টিভির মোজাম্মেল বাবু সাহেব সহ অনেকেই। নাঈম ভাইর পত্রিকা ছিল কলম সৈনিকদের তর্ক বিতর্কের এক মিলন মেঁলার প্লাট ফরম। ভালোই লাগতো। নঈম নিজাম ভাই তখন গল্প লিখতেন তুগলকের গল্প। আমি লিখেছিলাম “নঈম নিজাম গল্প, গল্প থাকলেই ভালো হয়, গল্পকে অগল্পে টেনে আনলে ওটা রুপ কথা হয়ে দাঁড়ায়“ তখন তিনি উত্তরে লিখেছিলেন প্রেম জীবনকে দেয় ঐশ্বর্য——– ফয়সাল এবার শুনুন নুর মোহাম্মদের গল্প। দীর্ঘ কলামে সে দিন নঈম নিজাম ভাই রাজনৈতিক নেতাদের অনেক গল্প শুনিয়েছিলেন। তার এ গল্পের লেখাটি পড়ে আমার কেন জানি মনে হলো নঈম নিজাম ভাইকে বলি, নিজাম ভাই আরেকটি গল্প লিখুন, যে গল্পে থাকবে প্রধান বিচারপতি সিনহা সাহেবের চলে যাওয়ার গল্প, আইনমন্ত্রী কর্তৃক সিনহা সাহেবের ক্যান্সারের ভুতুঁরে গল্প। যে গল্পটি সাজিয়ে ছিলেন মাননীয় আইনমন্ত্রী। আমি মাননীয় লিখবো কি-না? ….ভাবছিলাম…? কিন্তু মনে হলো বাংলাদেশের রাজনীতিবীদ লেখক সাংবাদিকরা কারো সাথে মতের অমিল হলেই অকথ্য ভাষা ব্যবহার করেন। আমি যেহতেু বৃটেনে বসবাস করি, সভ্যতার চরম শিখরে বসবাস করে আমি অসভ্যভাবে কেন আইনমন্ত্রীকে মাননীয় বলবোনা? তাই ভদ্রভাবেই তাকে সম্বোধন করেছি মাননীয় আইন মন্ত্রী!!
মাননীয় আইনমন্ত্রী ক্ষমতায় থাকার জন্যই কি আপনি বিচারপতির ক্যান্সার হওয়ার ভুঁতুরে গল্পের কাহিনী সাজিয়েছেন? আপনি যে দিন এ কথা গুলো বলেছিলেন আমি সেদিন বিশ্বাস করেছিলাম, কিন্তু যে দিন বিচারপতি সিনহা সাহেব বলেছিলেন তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ, সেদিন আমার মনের প্রতিক্রিয়া কি হয়েছিল তা আপনাকে বোঝাতে পারবোনা। কারো মিথ্যা কথা শুনলে আমি কষ্ট পাই, আর সেটি যদি হয় জাতীয় বেঈমানী আর তা ও যদি হয় আপনার মত একজন মন্ত্রীর মুখে???? মাননীয় মন্ত্রী আপনাদের এ কাজ কারবার,- কে উৎসাহিত করে আমি জানিনা। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এসেছিল দশটাকা কেজি দরে পাবলিককে চাউল খাওয়াবে বলে, কিন্তু তা না করে ভুঁতুরে গল্প শুনাচ্ছে,র একজন সুস্থ সবল মানুষকে বানিয়ে দিচ্ছেন ক্যান্সারের রোগী। আপনাদের কাছে যে সব কথাবার্তা বিলাসিতা আমাদের কাছে সেটিতো ভুঁতুরের আষাড়ে গল্পের মত। আপনাদের কাছে দেশ যেখানে উন্নয়নের মহাসড়কে উপনীত,মাননীয় অর্থমন্ত্রীর ভাষায় সেটি হচ্ছে সাগর চুরি। আপনাদের কাছে দশ টাকা সের চাউল যদি ঠাট্টা- মশকরা হয়, গরীব মানুষের কাছে সেটি এক কঠিন বাস্তবতা, তাদের কাছে তা “ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়, পূর্ণিমার চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি“। আপনাদের কাছে যেখানে জিডিপির গ্রোথ মোর দেন সেভেন পার্সেন্ট গরীব মানুুষের কাছে সেটি বিশ্বব্যাংকের লোনের বোঝা। আপনাদের কাছে যেখানে শেয়ার মার্কেট ফটকাবাজিতে ভরপুর, গরীব মানুষের কাছে তা আত্মহত্যার নামান্তর। আপনাদের কাছে যে রানা প্লাজা দুর্ঘটনা, গরীব মানুষের কাছে সেটি লাঁশের মিঁছিল। আপনাদের কাছে যেটি মাদার অব হিউম্যানিটি বিরোধী দলের কাছে সেটি লাশ হত্যা ও গুম। আপনাদের কাছে ঢাকা শহর যেখানে ওভারব্রীজ সমস্যার সমাধান সাধারন মানুষের কাছে ট্রাফিক জ্যামের আধুনিকায়ন। আপনাদের কাছে যেটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা রাজাকারদের কাছে সেটি গলার ফাঁস। আপনাদের কাছে যেটি বিচারপতিকে তীব্র ভাষায় গালি সাধারন মানুষের কাছে সেটি বিচার বিভাগের উপর নগ্ন হস্তক্ষেপ।
প্রিয় পাঠক আমাদের মাননীয় আইনমন্ত্রী প্রধান বিচারপতির অসুস্থতার কথা জানান দিয়েছিলেন সাংবাদিকদের ডেকে নিয়ে। তিনি বলেছিলেন তিনি এ জীবনে কখনো মিথ্যা কথা বলেননি। মাননীয় মন্ত্রীর সাথে আমার ব্যাক্তিগত পরিচয় নেই। তবে কয়েকমাস আগে তিনি এবং মাননীয় পররাষ্ট প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার সাহেব লন্ডনে এসেছিলেন, লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে এক পরামর্শ সভা ডেকেছিল হাইকমিশন, আমি ছিলাম সেখানে, সেখানেই মাননীয় আইনমন্ত্রীর বক্তব্য শুনেছিলাম। এই ছিল এ জীবনে তাকে সরাসরি দেখার সুযোগ, তারপর টেলিভিশনের নিউজে তাকে দেখি। তিনি যেদিন বিচারপতির রোগের কথা জাতীকে জানান সেদিন তার বক্তব্য শুনেছিলাম, এ বক্তব্য শুনে মনে হয়েছিল কাউকে যেন বলি এ তোমরা কে কোথায় আছো, মাটি কেটে গর্ত করে দাও আমি সে মাটির ভিতরে জীবন্ত ঢুকে পড়ি। কিন্তু না আমি কাউকে পাইনি। কারন আমার লজ্জা লাগছিল। বিচারপতির কি আসলে ও ক্যান্সার হয়েছে. এ প্রশ্নটি করেছিলাম সম্প্রতি ডঃ কামাল হোসেন সাহেবকে, তিনি হেঁসে উড়িয়ে দিয়েছেন। গত সপ্তাহে ডঃ কামাল হোসেন সাহেবের কথা লিখেছিলাম, লেখা প্রকাশিত হওয়ার পর পরই তাকে পেয়ে যাই লন্ডনে। এক রকম জোর করে চ্যানেল আই লন্ডন ষ্টুডিওতে নিয়ে এসে ইন্টারভিউ করি। কামাল সাহেব যা বলেছেন তা যদি এখানে লিখি তাহলে লেখা অনেক লম্বা হয়ে যাবে। কামাল হোসেন সাহেবকে এর আগেও জিজ্ঞাস করেছিলাম “তারেক জিয়া সাহেব যে বলেছিলেন জিয়াউর রহমান সাহেব প্রথম রাষ্টপতি “সেটিও তিনি হেঁসে উড়িয়ে দিয়েছিলেন। কামাল সাহেবকে জিজ্ঞাস করেছিলাম আপনি নাকি ষোড়শ সংশোধনী রায়টি লিখতে ডিকটেইট করেছেন তিনি বলেছেন, না। অথচ এক শ্রেণীর লোক বলেছেন তিনিই সব করেছেন। এ সব প্রপাগান্ডার দরকার কি? মাননীয় আইনমন্ত্রী আপনাকে বলার কিছুই নেই। বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল তখন রাষ্টপতি মরহুম ইয়াজ উদ্দিন সাহেব বঙ্গভবনকে কলুষিত করেছিলেন। সব নিয়মনীতি উপেক্ষা করে তিনি প্রধান উপদেষ্টা হয়েছিলেন। জাতী তখন অবাক বিস্ময়ে রাষ্টপতি ইয়াজ উদ্দিন সাহেবের কার্যকলাপ প্রত্যক্ষ করেছিল!! আমার মত মানুষ হতাশার ঘোর অন্ধাকারে নিমজ্জিত হয়েছিল। রাষ্টপতি ইয়াজ উদ্দিন সাহেব শুধু সেদিন তত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টাই হননি, বাজারে প্রচলিত ছিল তিনি জায়গা ও দখল করেছিলেন। স্ত্রীর নামে খাঁস জমিরও নাকি আবেদন করেছিলেন। একজন রাষ্টপতি যদি স্ত্রীর নামে জায়গা জমির আবেদন করেন তাহলে আপনি মাননীয় আইনমন্ত্রী হয়ে বিচারপতির রোগ নিয়ে মিথ্যা কথা বলেছেন তাতে জাতী অবাক হবে কেন? তবে রাষ্টপতির শেষ রক্ষা হয়নি। ওয়ান ইলেভেনের সরকার লন্ড ভন্ড করে দিয়েছিল সব কিছু। আমার শ্রদ্ধাভাজন সাংবাদিক ইয়াজউদ্দিন সাহেবের উপদেষ্টা মখলেসুর রহমান চৌধুরী কিভাবে বঙ্গভবন ত্যাগ করেছিলেন আমি জানিনা। আমি কামনা করিনা আপনার সে রকম কোনো অবস্থা হউক। তবে আপনার কাছে আমার বিনীত অনুরোধ, জাতীর কাছে ক্ষমা চেয়ে বিচারপতি সিনহা সাহেবের কাছে ক্ষমা চেয়ে আপনি আইনমন্ত্রনালয় থেকে বেরিয়ে আসুন, আইন মন্ত্রনালয় আপনার মিথ্যার ভার কিভাবে বয়ে বেড়াচ্ছে আমি জানিনা। তবে পাঁপের প্রায়শ্চিত্ত কিন্তু সবাইকে ভোগ করতে হয়।
তারিখ ২২/১০/২০১৭ লন্ডন
লেখক সভাপতি ইউকে বাংলা প্রেস ক্লাব
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি বাংলা ষ্টেইটমেন্ট ডট কম
ব্যবস্থাপনা পরিচালক চ্যানেল আই ইউরোপ

এই সংবাদটি 1,241 বার পড়া হয়েছে