সোমবার, ৩০ অক্টো ২০১৭ ০৮:১০ ঘণ্টা

বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে রেখে ভারতের সুষমার সাথে দেখা করে কি পেলেন খালেদা জিয়া?

Share Button

বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে রেখে ভারতের সুষমার সাথে দেখা করে কি পেলেন খালেদা জিয়া?

রেজা আহমদ ফয়সল চৌধুরী: অনেকদিন বৃটিশ ফরেন এন্ড কমনওয়েলথ অফিসে যাওয়া হয়না। আগে মাঝে মধ্যে প্রেস কনফারেন্সের দাওয়াত আসলে যাওয়া হতো। ঢাকায় যখন বৃটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরী ছিলেন তখন তিনি লন্ডনে আসলেই লন্ডনের বাংলা মিডিয়ার সাথে মতবিনিময় করতেন। এখন আর আনোয়ার চৌধুরী নেই। যারা আছেন তারা আর বাংলা মিডিয়ার সাথে বসেননা। বসলেও আমার আর যাওয়া হয়না। ২০০৭ সালে যখন দেশে ওয়ান ইলেভেন ছিল তখন ঘন ঘন প্রেস কনফারেন্স হতো ফরেন এন্ড কমনওয়েলথ অফিসে। এখন সে দিন আর নেই। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বলেন আর বিরোধী দলীয় নেত্রী বলেন কেউই বৃটিশ উচ্চ পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের সাথে দেখা করেননা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী লন্ডনে আসলে লেবার পার্টির নেতৃবৃন্দের সাথে দেখা করেন। ঐতিহাসিকভাবে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাথে বৃটেনের লেবার পার্টির সম্পর্ক ভালো। একবার বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন জন মেজর। তখন বৃটেনে সাধারন নির্বাচন ছিল, তৎকালীন সময়ে বাবু সুরঞ্জিত সেন লন্ডনে আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দকে বলেছিলেন লেবার পার্টিকে ভোট দেয়ার জন্য। জনমেজরের এডমিনিষ্ট্রেশন তখন একটু মনক্ষুন্ন হয়েছিল। আমি জিজ্ঞাস করেছিলাম বাবু সুরঞ্জিত সেন সাহেবকে – আপনারা তো এটা বলতে পারেননা, যে দলই ক্ষমতায় আসুক না কেন বাংলাদেশ তাদের সাথে কাজ করতে হবে। বাবু আমার কথায় খুব একটা পাত্তা দেননি। মনে মনে হয়তো বলেছিলেন দুর বেটা তুমি আর আমাকে শিখাতে যেয়োনা।

সে যাক, বৃটেনে সর্বশেষ সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরুনের সাথে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেখা করেছিলেন। যতদুর মনে পড়ে বাংলাদেশের গনমাধ্যমে তখন খবর প্রকাশিত হয়েছিল দুদেশের প্রধানমন্ত্রী দ্বিপাক্ষিক বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। আমি যতটুকু জানি বা আমার কাছে যতটুকু খবর ছিল সেখানে দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে ফটোসেশন হয়েছিল। তারপর চা পান করে বিদায় নিয়েছিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী!!

এবার বিএনপি নেত্রী লন্ডনে আসার পর বিএনপি যুক্তরাজ্য কমিটির এক নেতা, যুবদলের এক নেতা ও একজন সাংবাদিক বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া, তারেক রহামন ও বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসনের মধ্যে একটি বৈঠকের চেষ্টা করেছিলেন। যোগাযোগও করেছিলেন তারা। বেশ উচ্চপয়ায়ে কথা বার্তা ও হয়েছিল। বিষয়টি আমি জানতামনা। বিএনপি নেত্রী তখন লন্ডনে। কনজারভেটিব পার্টি এক নেতার সাথে আমার দেখা হয়। তিনি খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান সাহেব সর্ম্পকে আমার কাছে জানতে চেয়েছিলেন। আমি তো আর এত কিছু জানিনা। খালেদা জিয়া তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, তারেক জিয়া সাহেব বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান আমি যা যা বলার দরকার বলেছি। তাদের অবস্থা সম্পর্কে কনজারভেটিব নেতার কাছে সেটি পরিস্কার করেছি। কনজারভেটিব নেতা আমাকে ধন্যবাদ দিয়ে চলে যান। এর পর শুনি হঠাৎ করেই খালেদা জিয়া দেশে চলে যান। কেন তিনি হঠাৎ করে চলে গেলেন? খবর নিয়ে জানলাম ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বাংলাদেশে যাচ্ছেন এবং খালেদা জিয়ার সাথে একান্তে কথা বলবেন। বিএনপির ভাবসাব দেখে মনে হলো ভারত ও তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী  বিএনপিকে ক্ষমতায় বসিয়ে দেবে। প্রধানমন্ত্রী হবেন খালেদা জিয়া, আর তারেক রহমান সাহেব হবেন প্রেসিডেন্ট। আর তার আশে পাশের লোকজনই হবেন পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র সহ অন্যসব মন্ত্রী প্রতিমন্ত্রী!!! লন্ডনে অনেক নেতার গলার টোন এবং চেহারা ছবি পরিবর্তন হয়ে গিয়েছিল, সবার মধ্যে ছিল কেমন জানি একটি পরিবর্তন পরিবর্ধনের  চাপ। বাংলাদেশ থেকে খবর এলো শেখ হাসিনা নাকি গেইম খেলছেন বিএনপির সাথে।  কি গেইম? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নাকি ম্যারাডোনার মত রাজনীতি খেলেন। বাংলাদেশে রাজনীতি যে ম্যারাডোনার মত একাই খেলে যাচ্ছে ভারত আর তার গোয়েন্দা সংস্থা তা তো আমার জন্মের পর থেকেই দেখে আসছি। তবে ভারত যেভাবে বাংলাদেশকে নিয়ে খেলে যদি সেখানে স্ট্রং লিডারশীপ থাকতো তাহলে খেলতে পারতোনা। পররাষ্ট্রমন্ত্রী যদি প্রফেশনাল ডিপ্লোমেট হতেন তাহলে তিনি বুঝতে পারতেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কোন টোনে কথা বলছেন। ডিপ্লোমেসীর ভাষা আর পল্টন ময়দানের ভাষা কি এক? মোটেই না। সফল ভালোবাসার ভাষা, আর ব্যর্থ ভালোবাসার ভাষা কি এক?

বৃটেনের জনমেজর সরকার অথবা থেচারের সরকারের সময় একবার অর্থমন্ত্রী হয়েছিলেন কেনিথ ক্লার্ক। কেনিথ ক্লার্ক ছিলেন পেশায় ব্যরিষ্টার। প্রথম দিন তিনি তার মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সাথে সৌজন্য বৈঠক করলেন। সচিব এবং পারমানেন্ট সচিব দুজনই এডভাইস দিলেন। একটু বাড়িয়ে এডভাইস দেয়ার সময় বুঝিয়ে দিলেন তোমি তো ইকোনমি বুঝনা, বুঝার কথাও না। কারন তোমি আইনের লোক। কেনীথ ক্লার্ক বুঝলেন তাদের ভাষা। দুজনকে ডেকে নিয়ে বললেন আমি আগামী একমাস কোনো অফিস করবোনা। গত ৩০ বছরের যে সব জাতীয় অর্থনৈতিক সিদ্বান্ত হয়েছে সব কাগজ পত্রগুলো আমার খামার বাড়ীতে পাঠিয়ে দিবা। এবং আগামী একমাস যেন কেউ আমাকে কোনো ধরনের ডিস্টার্ব না করে। সচিবরা তাই করলেন। কেনীথ ক্লার্ক ৩০ বছরের বৃটিশ ইকোনমির বড় বড় সিদ্বান্তগুলো পড়ার পর তার বুঝতে আর বাকী রইলো না বৃটিশ ইকোনমি কি বলে। তিনি অফিসে বেক করে সচিবদের বুঝিয়ে দিলেন তিনিও বৃটিশ ইকোনমি এখন বুঝেন। আমাদের দেশের মন্ত্রী এমপিদের খামার বাড়ীতে কি হয়? আমরা সবাই তা জানি———।

প্রিয় পাঠক বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদেরকে বদলাতে হবে। প্রথম শ্রেনীর অপদার্থ মন্ত্রীদের পি-ফোর্টি ফাইভ ধরিয়ে দিতে হবে। চাকুরী থেকে তাদের বরখাস্ত করতে হবে। ইন্ডিয়ার প্রেশারে যারা মন্ত্রী এমপি হন তাদরেকে সরকারের উচিৎ হলো চিহ্নিত করা। ওরা যখন কোনো দেশের এজেন্ট হয়ে কাজ করে তারা তখন ঐ দেশের স্বার্থ দেখে। বাংলাদেশের অনেকেই বলেন উনি তো সিআইএর  এজেন্ট!! উনি তো কেজিবির এজেন্ট, উনি তো ইন্ডিয়ার এজেন্ট। অনেক সাংবাদিকও নাকি বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দা সংস্থার এজেন্ট!! এটা কোনে ধরনের কথা। আমাকে একবার লন্ডনে একজন জিজ্ঞাসা করেছিলেন ফয়সল চৌধুরী আপনি কোন দেশের এজেন্ট? । আমি বলেছিলাম আমি বাংলাদেশের এজেন্ট শুধুমাত্র বাংলাদেশেরই এজেন্ট।

সে যাক খালেদা জিয়া দেশে চলে গেলেন। তিনি হয়তো ভেবেছিলেন সুষমা স্বরাজের সাথে দেখা করে কথা বললে হয়তো তিনি অনেক কিছু অর্জন করতে পারবেন! যতদুর জানা গেছে  কিছুই তিনি বা আওয়ামলীগ অর্জন  করতে পারেনি। একটি সুত্র থেকে জানা গেছে সুষমা দু’দলের সাথেই বড় বোন সুলভ আচরণ করে গেছেন। দু’দলের নেতাদের মধ্যেই একটি সহনশীলভাব চলে এসেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে মন্ত্রী এমপিদের ভাষা এত মার্জিত যে, তারা ভদ্র আচরণ করছেন! তাহলে কি এ দু’দলের মধ্যেই একটি বুঝাপাড়া করার জন্য সুষমা এসেছিলেন বাংলাদেশে? আমি জানিনা। তবে অতীত অভিজ্ঞতা বলে সুষমা ২০১৪ এর নির্বাচনেও তিনি এ রকম করেছিলেন, এরশাদ সাহেবকে বাধ্য করেছিলেন নির্বাচনে যেতে, এবং তিনি গিয়েছিলেন।

শেষ কথা হচ্ছে বাংলাদেশ কবে বের হয়ে আসবে সুষমাদের কাছ থেকে? আজ যদি সুষমার সাথে দেখা না করে ম্যাডাম জিয়া দেখা করতেন বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসনের সাথে তাহলে কি লাভ হতো না? অবশ্য বিএনপির যে ফরেন ওয়িং তা দিয়ে হবেনা। যারা বিএনপি ক্ষমতায় আসলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার দিবা-স্বপ্ন দেখছেন তাদের কি যোগ্যতা আছে? বিএনপি গত ৯ বছর ধরে ক্ষমতার বাইরে, এ নয় বছরে বিএনপি কি কোনো কুঠনৈতিক তৎপরতা চালিয়েছে? আমার সেটি জানা নেই। বিএনপির এমন কোনো যোগ্য ব্যাক্তিও নেই যে সেটি চালাবে। তারেক রহমান সাহেবের সাথে যারা চলাফেরা করেন তারা কতটুকু কি পারেন আমি জানিনা। গত ৮/৯ বছর ধরে তারেক রহমান সাহেব লন্ডনে কিন্তু কোনো উল্লেখযোগ্য কূটনৈতিক তৎপরতা চোখে পড়েনি।

একটি হাস্যকর বৈঠকের কথা বলে শেষ করি আজকের লেখা, সেই দিন চ্যানেল আই ইউরোপের কমিউনিটি নিউজ দেখছিলাম, সেখানে দেখলাম বাংলাদেশের অর্থ উপদেষ্টা মহোদয় পূর্ব লন্ডনের টাওয়ার হ্যমলেটসের মেয়র জনবিগসের সাথে বৈঠক করছেন !!!!! জনবিগস কি বৃটেনের অর্থমন্ত্রী? অথবা মন্ত্রী পরিষদের কেউ? আমি জানিনা। এ বৈঠকের ফলে বাংলাদেশ কি অর্জন করতে পারে?  বাংলাদেশ যদি শীতের সময় গরমের ওয়াজ করে তাহলে কে শুনবে তাদের কথা? কে বোঝাবে তাদেরকে যে শুধু ইন্ডিয়ার দিকে চেয়ে থাকলে চলবেনা। কারন ইন্ডিয়া বাংলাদেশকে কোনোভাবেই সহযোগিতা করবেনা। ইন্ডিয়া শুধু বাংলাদেশের কাছ থেকে নিবে বৈ দিবেনা। এটা বিএনপি এবং আওয়ামীলীগ যত তাড়াতড়ি বুঝবে ততই দেশের মঙ্গল হবে।

লন্ডন ৩০/১০/২০১৭

লেখক সভাপতি ইউকে বাংলা প্রেস ক্লাব

এই সংবাদটি 1,017 বার পড়া হয়েছে