বৃহস্পতিবার, ০২ নভে ২০১৭ ১১:১১ ঘণ্টা

যৌন হয়রানির দায়ে ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ

Share Button

যৌন হয়রানির দায়ে ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ

ডেস্ক রিপোর্ট:
ব্রিটেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী স্যার মাইকেল ফ্যালন তার ব্যক্তিগত আচরণের কারণে পদত্যাগ করেছেন। তিনি এমন এক সময়ে পদত্যাগ করলেন, যখন ব্রিটেনের বেশ কিছু সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে।

স্যার মাইকেল ফ্যালন বলেছেন তার আচরণ যে মানের হওয়ার কথা, সেটি হয়তো সে মানের ছিল না। খবর বিবিসির।

মঙ্গলবার তিনি স্বীকার করেছেন যে ১৫ বছর আগে তিনি সাংবাদিক ও রেডিও উপস্থাপিকা জুলিয়া হার্টলি-ব্রুয়ারের হাঁটু অশোভনভাবে স্পর্শ করেছিলেন।

সে আচরণের জন্য তিনি ক্ষমা চেয়েছেন। স্যার মাইকেল ফ্যালন বিবিসিকে বলেছেন, ‘১৫ কিংবা ১০ বছর আগে যেটি গ্রহণযোগ্য ছিল, বর্তমানে সেটি মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়।’

ব্রিটেনের পার্লামেন্টে বেশ কয়েকজন এমপি’র বিরুদ্ধে সম্প্রতি যৌন হয়রানীর অভিযোগ প্রকাশ হওয়ার প্রেক্ষাপটে প্রতিরক্ষামন্ত্রী স্যার মাইকেল ফ্যালকন হচ্ছেন প্রথম রাজনীতিবিদ যিনি পদত্যাগ করলেন।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী স্যার মাইকেল ফ্যালনের পদত্যাগের সাথে নতুন কোন অভিযোগের সম্পর্ক নেই বলে মনে করছে বিবিসি। তবে বিষয়টি নিয়ে ডাউনিং স্ট্রিট কোন মন্তব্য করেনি।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফ্যালন বলেছেন, ব্রিটেনের সামরিক বাহিনী যে মানের আচরণ আশা করে তার আচরণ সে রকম ছিলনা। স্যার মাইকেল ফ্যালন মন্ত্রীপরিষদের একজন সদস্য হিসেবে তার ভূমিকাকে যে গুরুত্বের সাথে দেখেছেন সেটির প্রশংসা করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে।

‘অতীতে আমার কিছু আচরণসহ সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকজন এমপি’র বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। এসব অভিযোগের অনেকগুলোই মিথ্যা। কিন্তু আমি স্বীকার করছি যে অতীতে আমার আচরণ সর্বোচ্চ মানের তুলনায় ঘাটতি ছিল,’ এক বিবৃতিতে বলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী স্যার মাইকেল ফ্যালন।

বিবিসির অনুষ্ঠানে স্যার ফ্যালনকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল যে তিনি ক্ষমা চাইবেন কিনা?

উত্তরে স্যার ফ্যালকন বলেন, ‘আমার মনে হয় আমরা এখন সবাই অতীতের দিকে ফিরে তাকিয়েছি। সেখানে এমন কিছু ঘটনা ঘটেছে যার জন্য আপনার অনুতাপ হতে পারে, যেটা ভিন্নভাবে করা যেত।’

গত সাড়ে তিন বছর ধরে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনের বিষয়টিকে সম্মানের ছিল বলে তিনি মন্তব্য করেন।

আবার আসছেন প্রভাবশালী বৃটিশমন্ত্রী সাঈদা ওয়ারসি
আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান সহিংসতা নিরসনে চাপ সৃষ্টির জন্য আবারও বাংলাদেশ সফরে আসছেন প্রভাবশালী বৃটিশমন্ত্রী ব্যারোনেস সাঈদা ওয়ারসি।

আগামী ১২ ডিসেম্বর তার ঢাকায় আসার কথা রয়েছে বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্রে জানা গেছে।

রাজনৈতিক সংকট নিরসনে ওয়ারসির আগেই ঢাকায় আসছেন জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো। চারদিনের সফরে ৬ ডিসেম্বর তিনি ঢাকা আসছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বাংলাদেশ সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেত্রী খালেদা জিয়াসহ রাজনৈতিক নেতা, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব ও সুশীল সমাজের সঙ্গে কথা বলবেন বৃটেনের সবচেয়ে প্রভাবশালী মুসলিম নারী এবং ধর্মবিষয়ক মন্ত্রী সাঈদা ওয়ারসি।

এর আগে গত এপ্রিলে বাংলাদেশ সফরকালে তিনি সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ নির্বাচনের আহ্বান জানান। কিন্তু এরপর পরিস্থিতির আরো অবনতি হওয়ায় গত নভেম্বরেই ওয়ারসির ঢাকা সফরে আসার কথা ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই সফর হয়নি।

এই সংবাদটি 1,009 বার পড়া হয়েছে