শনিবার, ১১ নভে ২০১৭ ০৩:১১ ঘণ্টা

জগন্নাথপুরের আর্ট স্কুল পরিদর্শনে তিন ব্রিটিশ এমপি

Share Button

জগন্নাথপুরের আর্ট স্কুল পরিদর্শনে তিন ব্রিটিশ এমপি

জগন্নাথপুর সংবাদদাতা :

সুনামগঞ্জ জেলার একমাত্র চারুকলা প্রতিষ্ঠান ‘জগন্নাথপুর আর্ট স্কুল’ পরির্দশন করেছেন বৃটেনের তিন এমপি।

শুক্রবার (১০ নভেম্বর)দুপুরে ব্রিটিশ এমপি লুসি পাওয়েল, সাবাদ মাহমুদ ও জেফ স্মিথ ও কয়েকজন ব্রিটিশ কাউন্সিলর জগন্নাথপুর আর্ট স্কুল পরিদর্শন করেন।

এ সময় তারা প্রত্যন্ত এলাকায় আর্ট স্কুল প্রতিষ্ঠায় সংশ্লিষ্টদের প্রশংসা করেন। বিশেষ করে শিশুদের আঁকা বাংলাদেশের ফুল পাখি নদী নৌকা ও প্রকৃতির ছবি দেখে মুগ্ধ হন  তারা। বিকেলে ফিরে যান বৃটিশ এমপিদের প্রতিনিধি দলটি।

পরিদর্শনকালে ব্রিটিশ এমপি, লুসি পাওয়েল বলেন, “এই প্রথম বাংলাদেশে এসেছি। এ দেশ অপার সম্ভাবনাময় একটি দেশ। এখানকার মানুষ খুবই আত্মীয়পরায়ণ। ” বাংলাদেশের প্রকৃতি নিয়ে ক্ষুদে আঁকিয়েদের আঁকা ছবি দেখে তিনি বলেন, “আমি অভিভূত হয়েছি ছোট ছোট শিশুদের তুলিতে ফুটিয়ে তোলা সুন্দর ছবি দেখে। আমি বিশ্বাস করি বাংলাদেশ একদিন বিশ্ব প্রতিযোগিতায় সুনাম বয়ে আনবে। ”

ব্রিটিশ এমপি সাবান মাহমুদ বলেন, “বাংলাদেশ বৃটেনের খুব ভালো বন্ধু।

আমার খুবই ভালো লাগছে শিশু-কিশোরদের চিত্রকর্ম দেখে। তাদের সঙ্গে কিছু সময় কাটাতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত। ” তিনি বলেন, “বাংলাদেশের মানুষ অতি সহজে  মানুষকে আপন করে নিতে পারে। এটা বিরল। ”

ব্রিটিশ কাউন্সিলর লুৎফুর রহমান, আবিদ সোহান, বাতেস শেখ, আলী ইলিয়াস, এমবিই রাজা মিয়া, মনসর আলী, মঈনুল আমিন বুলবুল, গ্রেটার মানচেস্টার অ্যাসিসোয়েশনের সাবেক চেয়ারম্যান সুয়াবুর রহমান, কেনসাইট ও টেমস লাইট লেবার ফেন্ডস’র ট্রেজারার জগন্নাথপুর আর্ট স্কুলের সাবেক শিক্ষক আমিনুল ইসলাম ওয়েছ, জগন্নাথপুর থানার ওসি হারুনুর রশিদ চৌধুরী, জগন্নাথপুর আর্ট স্কুলের অধ্যক্ষ প্রণব বণিক, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক লুৎফুর রহমান, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি ডা. আব্দুল আহাদ ও স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলী ইউনিয়নের সাতহাল গ্রামের বাসিন্দা ব্রিটিশ কাউন্সিলর লুৎফুর রহমান ও জগন্নাথপুর আর্ট স্কুলের সাবেক শিক্ষক উপজেলার চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের ভরাখালি গ্রামের বাসিন্দা বৃটেনের কনসাইট ও টেমস লাইট লেবার ফেন্ডস’র ট্রেজারার আমিনুল ইসলাম ওয়েছের আমন্ত্রণে ব্রিটিশ  প্রতিনিধিদলটি জগন্নাথপুরে আসেন।

এই সংবাদটি 1,007 বার পড়া হয়েছে