শনিবার, ১১ নভে ২০১৭ ০৩:১১ ঘণ্টা

ইসরায়েলে গোপন বৈঠক, পদত্যাগ করলেন ব্রিটিশ মন্ত্রী

Share Button

ইসরায়েলে গোপন বৈঠক, পদত্যাগ করলেন ব্রিটিশ মন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট :

যুক্তরাজ্যের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রী প্রীতি প্যাটেল রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ এখন বড়সড় প্রশ্নচিহ্নের মুখে। অবস্থা এতটাই গুরুতর যে পার্লামেন্টের সদস্যপদও খোয়াতে পারেন প্রীতি।বুধবার প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে-র ফোন পেয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে প্রীতি আফ্রিকা সফর কাটছাঁট করে তড়িঘড়ি লন্ডনে ফিরে এসেছেন। ইস্তফা দিয়েছেন মন্ত্রিত্ব থেকে।

প্রীতির বিরুদ্ধে অভিযোগ, জুলাই মাসে ব্যক্তিগত ছুটিতে ইসরায়েল গিয়েছিলেন প্রীতি। সেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুসহ দেশটির কয়েক ডজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ১২টি গোপন বৈঠক করেন প্রীতি প্যাটেল। একটি বৈঠকের কথাও ইসরায়েলে ব্রিটিশ দূতাবাসকে জানাননি প্রীতি। কিছু জানত না ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিট-ও।

এই বৈঠকগুলির কথা প্রকাশিত হয়ে গেলে প্রীতি প্রথমে বলেছিলেন, ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন ইসরায়েলি নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের কথা জানতেন। পরে অবশ্য তার সেই অবস্থান থেকে সরে আসেন প্রীতি। কিন্তু এরপরে আরও দুটি গোপন বৈঠকের কথা তিনি আবার বেমালুম চেপে যান। এই বৈঠক দুটি হয়েছিল সেপ্টেম্বরে। প্রথমে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট চত্বরেই ইসরায়েলের জননিরাপত্তামন্ত্রী গিলাদ এর্দানের সঙ্গে গোপনে বৈঠক সারেন প্রীতি। এক সপ্তাহের মধ্যেই নিউইয়র্কে ইসরায়েলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ইয়ুভাল রটেমের সঙ্গে দ্বিতীয় বৈঠকটি করেন। নিয়ম ভেঙে বৈঠক দুটির একটির কথাও তিনি প্রশাসনকে জানাননি।

ইসরায়েলে থাকাকালীন সে দেশের সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে দখলকৃত গোলান উপত্যকায় গিয়েছিলেন  প্রীতি। যা পুরোদস্তুর নিয়মবিরুদ্ধ, কারণ এই এলাকাকে ইসরায়েলের অংশ বলেই মানে না ব্রিটেন। বর্তমানে ইসরায়েলের দখলে থাকা গোলান উপত্যকা এক সময় সিরিয়ার অংশ ছিল। বিতর্কিত এই এলাকা নিয়ে মাথা না ঘামানোর নির্দেশ জারি ছিল ব্রিটিশ কর্মকর্তাদের ওপরে।

বিরোধী শিবিরের দাবি, ইসরায়েল সেনা পরিচালিত একটি হাসপাতালকে ব্রিটেনের আর্থিক সাহায্য দেয়ার বিষয়ে ইসরায়েলি মন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনা করেন প্রীতি।

আগস্টের ওই ১২টি বৈঠকের কথা প্রকাশ্যে আসায় সোমবার প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে-র কাছে ক্ষমা চান প্রীতি। প্রীতির দাবি ছিল, উৎসাহের বশেই এই কাণ্ড ঘটিয়ে ফেলেছেন। তবে ওই ১২টি বৈঠকের কথা মেনে নিলেও এ দিন সেপ্টেম্বরের বৈঠক দুটির কথা বেমালুম চেপে গিয়েছিলেন প্রীতি।

ব্রিটেনের রাজনীতির আঙিনায় প্রীতি পাটেল আদৌ নতুন মুখ নন। বরং ভারতীয় বংশোদ্ভুত রাজনীতিবিদদের মধ্যে তিনিই বেশি পোড়খাওয়া। তিনি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে-র ঘনিষ্ঠও বটে। ব্রিটেনের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন দপ্তরসহ বিদেশ সংক্রান্ত বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ দফতরের ভার এখন তারই হাতে।

এই সংবাদটি 1,009 বার পড়া হয়েছে