রবিবার, ১২ নভে ২০১৭ ১০:১১ ঘণ্টা

বিচারপতি সিনহা অধ্যায়ের অবসান

Share Button

বিচারপতি সিনহা অধ্যায়ের অবসান

ডেস্ক রিপোর্ট:
সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে পদত্যাগ করেছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা (এস কে সিনহা)। সিঙ্গাপুর থেকে বাংলাদেশ হাইকমিশনের মাধ্যমে পাঠানো তার এ পদত্যাগপত্র গতকাল বঙ্গভবনে এসে পৌঁছায়।

এরপর তিনি সিঙ্গাপুর থেকে কানাডায় তার ছোট মেয়ের কাছে চলে যান। আপাতত সেখানেই তিনি অবস্থান করবেন। রাষ্ট্রপতির প্রেসসচিব জয়নাল আবেদীন প্রধান বিচারপতির পদত্যাগপত্র বঙ্গভবন পেয়েছে বলে গতকাল দুপুরে বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানিয়েছেন। এদিকে বিচারপতি সিনহার পদত্যাগপত্র বঙ্গভবনে পৌঁছার পর গতকাল বিকালে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সাংবাদিকদের বলেছেন, প্রধান বিচারপতি পদত্যাগ করায় কোনো শূন্যতা সৃষ্টি হয়নি। এখন রাষ্ট্রপতি যা করার তা-ই করবেন। তিনি বলেন, বিচার বিভাগ স্বাধীন। এতে সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করেনি। বিচারপতি সিনহা যেভাবে সমাধান চেয়েছেন সেভাবেই হয়েছে। সুরেন্দ্র কুমার সিনহার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ ছিল সে ব্যাপারে জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে। আইনের ঊর্ধ্বে কেউ নন। বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা ১৯৯৯ সালে তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকারের সময় হাই কোর্ট বিভাগের অস্থায়ী বিচারক হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। ২০১৫ সালের ১৭ জানুয়ারি তিনি দেশের ২১তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নেন। আগামী বছর ৩১ জানুয়ারি নিয়ম অনুযায়ী তার অবসরে যাওয়ার কথা ছিল। মেয়াদ শেষ হওয়ার ৮১ দিন আগেই তিনি বিদায় নিলেন। এর আগে গত ১৩ অক্টোবর এক মাসের ছুটি নিয়ে সুরেন্দ্র কুমার সিনহা অস্ট্রেলিয়া যান। সেখানে যাওয়ার আগে সাংবাদিকদের তিনি বলেছিলেন, আবার তিনি ফিরে আসবেন। কিন্তু তখনই বিভিন্ন মহলে আলোচনা ছিল, তার আর ফেরার সম্ভাবনা নেই। শেষ পর্যন্ত তা-ই হলো।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর প্রধান বিচারপতির পদে অধিষ্ঠিত ২১ জন বিচারকের মধ্যে সুরেন্দ্র কুমার সিনহাই প্রথম পদত্যাগ করলেন। দেশের ৪৭ বছরের ইতিহাসে তিনিই ছিলেন প্রথম অমুসলিম প্রধান বিচারপতি। গত ১৩ অক্টোবর বিচারপতি সিনহা ছুটি নিয়ে বিদেশ যাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অর্থপাচার, আর্থিক অনিয়ম ও নৈতিক স্খলনসহ সুনির্দিষ্ট ১১টি অভিযোগ ওঠার কথা সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়। সর্বোচ্চ আদালত জানায়, ওইসব অভিযোগের ‘গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা’ তিনি (এস কে সিনহা) না দিতে পারায় সহকর্মীরা তার সঙ্গে এজলাসে বসতে নারাজ। এর পরিপ্রেক্ষিতে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছিলেন, সহকর্মীরা বসতে না চাওয়ায় এস কে সিনহার প্রধান বিচারপতির দায়িত্বে ফেরা ‘সুদূরপরাহত’। এর আগে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ গত ৩০ সেপ্টেম্বর আপিল বিভাগের বিচারপতিদের ডেকে নিয়ে বিচারপতি সিনহার বিরুদ্ধে ‘১১টি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ’ তুলে ধরেন। বঙ্গভবনের ওই বৈঠক থেকে ফিরে পরদিন ১ অক্টোবর আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতি বিচারপতি ওয়াহ্হাব মিঞা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার, বিচারপতি ইমান আলী নিজেরা বৈঠক করে বিষয়টি নিয়ে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে কথা বলার সিদ্ধান্ত নেন। এরপর তারা প্রধান বিচারপতির হেয়ার রোডের বাড়িতে গিয়ে এ বিষয়ে কথা বললে বিচারপতি সিনহা ‘দুর্নীতি, আর্থিক অনিয়ম ও নৈতিক স্খলনের’ ওই অভিযোগগুলোর ‘গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা’ দিতে পারেননি বলে বিবৃতিতে বলা হয়। এক-এগারোর সময় দুজন বিচারপতি বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছিলেন। তাদের একজন বিচারপতি জয়নাল আবেদীন এবং অপরজন ছিলেন সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। জয়নাল আবেদীনকে তখন বিদায় নিতে হয়েছিল। আর মামলার মুখোমুখি হয়েছিলেন তখনকার উপদেষ্টা বিচারপতি ফজললু হক। গত ৩ জুলাই উচ্চ আদালতের বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে ফিরিয়ে নিতে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় বহাল রেখে রায় দেয় আপিল বিভাগ। গত ১ আগস্ট পূর্ণাঙ্গ রায় সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে দেওয়া হয়। রায় প্রকাশের পর এ নিয়ে সরকার ও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ সংক্ষুব্ধ হয়। বিশেষ করে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার বিভিন্ন পর্যবেক্ষণ নিয়ে ক্ষোভ ও অসন্তোষ প্রকাশ করেন মন্ত্রী, দলীয় নেতা ও সরকারপন্থি আইনজীবীরা। তারা প্রধান বিচারপতির পদত্যাগের দাবিও তোলেন। গত ১৪ সেপ্টেম্বর সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় এবং তার কিছু পর্যবেক্ষণের বিষয়ে আইনি পদক্ষেপ নিতে জাতীয় সংসদে একটি প্রস্তাব নেওয়া হয়। সংসদে ওই দিন প্রায় পাঁচ ঘণ্টা আলোচনা হয়। এতে সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ ১৮ জন সংসদ সদস্য অংশ নেন। গত ৯ আগস্ট রায়ের সঙ্গে দ্বিমত প্রকাশ করেন আইন কমিশনের চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রধান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হক। রায়ের পর্যবেক্ষণ নিয়ে কঠোর সমালোচনাও করেন তিনি। গত ১২ আগস্ট প্রধান বিচারপতি সিনহার সঙ্গে দেখা করে ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে দলীয় বক্তব্য জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ১৩ আগস্ট রায় নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি পালন করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা। ১৬ আগস্ট রায় নিয়ে বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলোচনা করেন। ২২ আগস্ট প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব ছাড়তে বিচারপতি এস কে সিনহাকে সময় বেঁধে দেয় আওয়ামী লীগ সমর্থক আইনজীবীরা। তা না হলে তাকে অপসারণে আন্দোলনের হুমকি দেন তারা। গত ২৪ আগস্ট সুপ্রিম কোর্টের অবকাশ শুরুর আগে শেষ অফিস করেন বিচারপতি সিনহা। প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নেওয়ার পর বিচার বিভাগের ক্ষমতা খর্ব করার অভিযোগ নানা সময় তুলেছিলেন বিচারপতি সিনহা। নিম্ন আদালতের বিচারক নিয়োগের প্রজ্ঞাপন প্রকাশ নিয়ে তার সঙ্গে সরকারের বিরোধও ছিল আলোচিত। অবসরের পর রায় লেখা নিয়ে বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গে তার বাদানুবাদ বিচারাঙ্গন ছাড়িয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনেও উত্তাপ ছড়ায়। প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ বা অন্য কোনো কারণে ওই পদ শূন্য হলে কী হবে, তা সংবিধানের ৯৭ অনুচ্ছেদে বলা আছে। সংবিধানের ৯৭ অনুচ্ছেদে বলা আছে, ‘প্রধান বিচারপতির পদ শূন্য হলে কিংবা অনুপস্থিতি, অসুস্থতা বা অন্য কোনো কারণে প্রধান বিচারপতি তাঁহার দায়িত্ব পালনে অসমর্থ বলিয়া রাষ্ট্রপতির নিকট সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হইলে ক্ষেত্রমত অন্য কোন ব্যক্তি অনুরূপ পদে যোগদান না করা পর্যন্ত কিংবা প্রধান বিচারপতি স্বীয় কার্যভার পুনরায় গ্রহণ না করা পর্যন্ত আপীল বিভাগের অন্যান্য বিচারকের মধ্যে যিনি কর্মে প্রবীণতম, তিনি অনুরূপ কার্যভার পালন করিবেন। ’ বঙ্গভবন সূত্র জানিয়েছে, সুরেন্দ্র কুমার সিনহার পদত্যাগের আনুষ্ঠানিকতা শেষে রাষ্ট্রপতি নতুন প্রধান বিচারপতি নিয়োগের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন। এস কে সিনহা ছুটিতে যাওয়ার পর থেকে সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

এই সংবাদটি 1,003 বার পড়া হয়েছে