শনিবার, ২৫ নভে ২০১৭ ০২:১১ ঘণ্টা

১৮ বছরের সিলেটি কন্যা শরিফার ব্রিটেন জয়

Share Button

১৮ বছরের সিলেটি কন্যা শরিফার ব্রিটেন জয়

যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: কাউন্সিলার নির্বাচিত হলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত সিলেটি তরুণী শরিফা রহমান। গত বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) অনুষ্ঠিত হয় ডারলিংটন বারা কাউন্সিলর উপ-নির্বাচন তিনি নির্বাচিত হন। ব্রিটেনের রাজনীতিতে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত হিসেবে শরিফা রহমান সর্ব কনিষ্ঠ নির্বাচিত প্রতিনিধি।

লেবার পার্টির প্রার্থী হিসেবে ৪৪ দশমিক ৮ শতাংশ ভোট পেয়ে স্থানীয় রেডহল এবং লিংফিলড ওয়ার্ড থেকে নির্বাচিত হন শরিফা। ডালিংটন তথা নর্থ ইস্ট ইংল্যান্ডের ইতিহাসে সেেয় কণিষ্ঠ কাউন্সিলার হয়েছেন শরিফা।শরিফার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী টোরি পার্টির জোনাথন ডালস্টন। অপর প্রতিদ্বন্দ্বীরা হলেন, লিবারেল ডেমোক্র্যাটস দলের হ্যারি লংমুর (১১ ভোট), গ্রীন পার্টির মাইকেল ম্যাকটিমনি (২০ ভোট) এবং প্রাক্তন ইউকিপ কর্মী স্বতন্ত্র প্রার্থী কেভিন ব্রা পেয়েছেন (৪৬ ভোট)। গত অক্টোবর মাসে বারা কাউন্সিলের রেডহল এবং লিংফিল্ড ওয়ার্ডের কাউন্সিলার হ্যাজেলডিন স্বাস্থ্যগত কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করলে আসনটি শুন্য হয়।নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর শরিফাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন স্থানীয় এমপি জেনি চাপম্যান ও এন্ড্রু গাইন। অন্যদিকে, নিউক্যাসেলের সিটি কাউন্সিলের বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত কাউন্সিলার দিপু আহাদ বলেন “শুধু বাংলাদেশী কিংবা মুসলিম মহিলা হিসেবে নয়, অত্র এলাকায় প্রথমবারের মত একজন তরুনী হিসেবে কাউন্সিলার নির্বাচিত হওয়াটা সকলের জন্য গর্বের ব্যাপার’’। এই তরুন বয়সে রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার মুল কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে শরিফা বলেন, অতীত অভিজ্ঞতা ও সংগ্রামের গল্পগুলোই তাঁকে রাজনীতিতে নিয়ে আসে।

দীর্ঘদিন যাবত ডার্লো ইয়াং লেবার গ্রুপের সেক্রেটারি হিসেব দায়িত্ব পালন করে আসছেন শরিফা। বর্ণবাদ বিরোধী আন্দোলনে অসামান্য ভূমিকা রাখার জন্য ২০১৬ সালে ডার্লিংটন শহরের সম্মানসুচক পদক অনুষ্ঠনে শরিফা রহমান কে “ইয়াং সিটিজেন অব দ্য ইয়ার’’ অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। অ্যাওয়ার্ড প্রদানের সময় শরিফাকে একজন ব্যাতিক্রর্মী ইয়াং উইমেন এবং কমিউনিটি এক্টিভিস্ট হিসেবে উল্লেখ করা হয় ।

স্থানীয় এমপি জেনি চ্যাপম্যানের সহযোগিতায় ডার্লিংটনে শরিফা সম্প্রতি চালু করেছেন একটি পিস ক্যাম্পেইন। যার মূল লক্ষ্য হচ্ছে, কমিউনিটির মধ্যে সুসম্পর্ক সৃষ্টি করা এবং বর্ণবাদের কুফল সম্পর্কে জনসচেনতা সৃষ্টি করা। স্থানীয় বিবিসি এবং পুলিশ বিভাগ এ কার্যক্রমে নিয়মিত সহায়তা করে যাচ্ছে।

কয়েক মাস আগে প্রকাশিত “এ’’ লেভেল পরীক্ষার ফলাফলে ঈর্ষনীয় সাফলতা পেয়েছে শরিফা। কুইন এলিজাবে কলেজের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দেখা যায়, ইউনিভার্সিটি অব নিউক্যাসেল এ পলিটি বিষয়ে গ্রাজুয়েশন কোর্স শুরু করতে যাচ্ছেন শরিফা। এ লেভেল পাশ করার পর গ্যাপ ইয়ারে সামাজিক ও রাজনৈতিক কার্যক্রমে যখন য্ক্তু ছিলেন তখনই কাউন্সিলার প্রার্থী হওয়ার সুযোগটি আসে। উল্লেখ্য, শরিফার জন্ম ও বেড়ে ওঠা নর্থ ইষ্টের ডার্লিংটন শহরে। বাবা লোকমান খানের দেশের বাড়ী সিলেটের সুনামগঞ্জ জেলার বরমরা গ্রামে। ৭ ভাই বোনের মধ্যে শরিফা সবার ছোট।

কাউন্সিলার পদে বিজয়ী হওয়ার অনুভূতি জানাতে গিয়ে শরিফা বলেন, “আমার নিজের শহরের জন্য কাজ করার সুযোগ পেয়ে আমি গর্বিত। আমার জন্য এটা খুবই আনন্দের বিষয় যে, যেখানে আমি বেড়ে উঠেছি সেখানকার মানুষের জন্য কিছু করা’’। তিনি আরও বলেন, “আমাদের সমাজে রয়েছে চরম বৈষম্য এবং এর কুফল ভোগ করছে সাধারণ মানুষ। আমি বিশ্বাস করি আমাদের সমাজে পরিবর্তন দরকার। সবার কর্তব্য হল বৈষম্য রোধে একসাথে কাজ করে যাওয়া। মধ্যবিত্ত ও খেটে খাওয়া পরিবারে বেড়ে উঠায় আমি গর্ব বোধ করি। সবার মাঝে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারব বলে আমি আশাবাদী ’’

এই সংবাদটি 1,015 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন