সোমবার, ০৪ ডিসে ২০১৭ ০৩:১২ ঘণ্টা

মাদ্রাসার ভুলে ভরা ২৪ লাখ বই বাতিল!

Share Button

মাদ্রাসার ভুলে  ভরা ২৪ লাখ বই বাতিল!

ডেস্ক রিপোর্ট: জঙ্গিবাদ উসকে দেওয়ার অভিযোগ, হাদিসের ভুল ব্যাখ্যাসহ অসংখ্য ভুলে ভরা মাদ্রাসা বোর্ডের ২৪ লাখ পাঠ্যবই প্রত্যাহারের নির্দেশনা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। গত রবিবার সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণির আকাঈদ ফিকহ এবং নবম-দশম শ্রেণির কোরআন মাজিদ ও তাজভিদ এবং হাদিস শরিফ— এ চারটি পাঠ্যবই বাতিলের নির্দেশ দিয়ে এনসিটিবিকে চিঠি দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এতে সরকারের গচ্চা যাবে প্রায় ১০ কোটি টাকা। জানা যায়, ২০১৫ সালে এসব অভিযোগের কারণে বেশ কিছু পাঠ্যবই সংশোধনের কথা ছিল। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও তিন বছরে তা সংশোধন করা হয়নি। ভুলে ভরা এসব বই ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের জন্যও ছাপা শেষ হয়েছে। এখন ২৪ লাখ বইয়ে সংশোধনী এনে নতুন করে বই ছাপানোর সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে এনসিটিবির চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘এনসিটিবি শুধু বই ছাপানোর কাজ করে। মাদ্রাসার কারিকুলাম সম্পূর্ণই মাদ্রাসা বোর্ড তৈরি করে দেয়। তারা পাণ্ডুলিপির সিডি পাঠায়, আমরা ছাপাই। গত রবিবার মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের চিঠি দিয়েছে, চারটি বই পরিমার্জিত হবে।

আমরা সে অনুযায়ীই কাজ করছি। কোন কারণে পরিমার্জন করা হয়েছে তা আমরা জানি না। জানা যায়, সপ্তম শ্রেণির আললুগাতুল অ্যারাবিয়্যাতুল ইত্তেসালিয়্যাহ বইয়ের ১২২ পৃষ্ঠার একটি কবিতায় বলা হয়েছে, ‘আমাদের দেশের যুবক, আমরা প্রত্যাশার প্রতীক, সম্মানের তরে এবং জিহাদের জন্য…। ’ অষ্টম শ্রেণির একই বইতেও জিহাদের নামে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাকে উসকে দেওয়া হয়েছে। সপ্তম শ্রেণির হাদিস শরিফ বইয়ের ১৩৭ নম্বর পৃষ্ঠায় বলা হয়েছে, ‘আল্লাহর দীন কায়েমের সকল প্রকার প্রচেষ্টা, আল্লাহর বিধান প্রচার ও প্রসার, দীনি শিক্ষা ও তত্পরতার কাজে যাকাতের অর্থ ব্যয় করা যাবে। ’ এভাবে বিভিন্ন বইতে জঙ্গিবাদ এবং কোমলমতি শিশুদের মনে বিষবাষ্প ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে মনে করছেন শিক্ষকরা। এগুলো ছাড়াও আরও কিছু পাঠ্যবইয়ে সমস্যা ধরা পড়েছে। জানা যায়, ২০১৫ সালে মাদ্রাসার পাঠ্যবই ছাপা হওয়ার পর কিছু বই নিয়ে নানা অভিযোগ ওঠে। ইসলামিক ফাউন্ডেশন মাদ্রাসার সব বই পর্যালোচনা করে হাদিসের ভুল ব্যাখ্যাসহ নানা বিষয় চিহ্নিত করে। তখন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এ নিয়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বছরের ফেব্রুয়ারি মাসেই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে অসঙ্গতিগুলো দূর করে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়। কিন্তু তিন বছরেও তা সংশোধন হয়নি। চলতি মাসে মাদ্রাসার বইয়ের অসঙ্গতির বিষয়টি আবারও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নজরে আসে। কার্যালয় থেকে আগামী শিক্ষাবর্ষের মাদ্রাসার বইগুলো খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেওয়া হয়। এরপর গত ১৫ নভেম্বরে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের কাছে মন্ত্রণালয় সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণির কোরআন মাজিদ ও তাজভিদ, আকাঈদ ও ফিকহ, আরবি প্রথম পত্র এবং নবম-দশম শ্রেণির কোরআন মাজিদ ও তাজভিদ এবং হাদিস শরিফ বইয়ের পাণ্ডুলিপি চায়। পাঠ্যবইগুলো বিশ্লেষণ করে মন্ত্রণালয় দেখতে পায়, ২০১৫ সালে যেসব অসঙ্গতি সংশোধনের জন্য দেওয়া হয়েছিল তা করা হয়নি। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে জানানো হলে আগামী শিক্ষাবর্ষের ছাপানো বইও বাতিল করার নির্দেশ দেওয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত রবিবার চারটি পাঠ্যবই বাতিলের নির্দেশ দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, চারটি বইয়ের প্রায় ২৩ লাখ ৮৯ হাজার কপি বাতিল করতে হবে। এতে সরকারের গচ্চা যাবে প্রায় ১০ কোটি টাকা। তবে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির আরও অনেক পাঠ্যবইয়ে অসঙ্গতি রয়েছে। রয়েছে হাদিসের ভুল ব্যাখ্যা। কিন্তু সব বই বাতিল করে নতুন করে ছাপাতে গেলে জানুয়ারি মাসে সব বই শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া কোনোভাবেই সম্ভব হবে না। করতে গেলে গচ্চা যাবে প্রায় ৩০ কোটি টাকা। তাই আপাতত যে চারটি বইয়ে বেশি অসঙ্গতি রয়েছে, সেগুলোই বাতিল করা হয়েছে। এসব বিষয়ে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের (স্বাশিপ) কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো. শাহজাহান আলম সাজু বলেন, এসব বই লেখক ৩৪ জনের মধ্যে অধিকাংশই জামায়াত-বিএনপি ঘরানার। তারা সরকারকে চাপে ফেলতে ও সরকারের অর্জনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে জঙ্গিবাদে উসকানি দেয় এমন তথ্য বইয়ে ঢুকিয়ে দিয়েছে। এ লেখকদের কালো তালিকাভুক্ত করে তাদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি। একই দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছিলেন তারা।-বাংলাদেশ প্রতিদিন

এই সংবাদটি 1,171 বার পড়া হয়েছে