বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসে ২০১৭ ১২:১২ ঘণ্টা

নিউইয়র্কে বাংলাদেশি দম্পতির স্বাস্থ্যবীমা জালিয়াতি!

Share Button

নিউইয়র্কে বাংলাদেশি দম্পতির স্বাস্থ্যবীমা জালিয়াতি!

 

নিউইর্য়ক থেকে বিশেষ প্রতিনিধি:  নিউইয়র্কে বাংলাদেশি নামকরা ব্যবসায়ী, বাংলাদেশ সোসাইটির দুই বারের সভাপতি এবং বর্তমান ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান  মোহাম্মদ আজিজের প্রথম স্ত্রীর চিকিৎসা সেবা বীমা এবং প্রেসক্রিপশন চুরি করে হাজার হাজার ডলার হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে লং আইল্যান্ডে’র গ্লেন হেডে বসবাসরত এক দম্পতিকে গত সপ্তাহে গ্রেফতার করা হয়।নাসাউ কাউন্টি জেলা অ্যাটর্নি মেডেলিন সিঙ্গাস এ খবর নিশ্চিত করেন।

খবরে আরো বলা হয়, ৬১ বছর বয়স্ক মোহাম্মদ আজিজকে গত বৃহস্পতিবার গ্রেফতার করা হয় এবং দুই দোষীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়।অভিযোগে বলা হয় প্রথম ডিগ্রি পরিচয় চুরি এবং চতুর্থ ডিগ্রি স্বাস্থ্যসেবা জালিয়াতি। ৩০০০ ডলারে নগদ অর্থে বাংলাদেশি আজিজের জামিন আদালত মঞ্জুর করে।

গত ২৪ অক্টোবর অপর অভিযুক্ত আজিজের দ্বিতীয় স্ত্রী এনা খালেদকে গ্রেফতার করা হয় এবং দ্বিতীয় দফা জালিয়াতি, প্রথম ডিগ্রি পরিচয় চুরি, তৃতীয়-ডিগ্রি বীমা জালিয়াতি এবং চতুর্থ দফা স্বাস্থ্যসেবা ফৌজদারী মামলা দায়ের করা হয়। এনা খালেদের জামিন ৪০০০ ডলার বন্ড এবং ২০০০ ডলার নগদ অর্থে কার্যকর হয় ।

মোহাম্মদ আজিজের দ্বিতীয় স্ত্রী আনা খালেদ ২০১২ সাল থেকে বিভিন্নরকম চিকিৎসা সেবা ও প্রেসক্রিপশনের জন্য চুরিকৃত পরিচয় ব্যবহার করে হাজার হাজার ডলার ছিনিয়ে নিয়েছে।

সিঙ্গাস এক বিবৃতিতে বলেন, “মোহাম্মদ আজিজের প্রথম স্ত্রীর সকল তথ্য, স্বাস্থ্য বীমা দ্বিতীয় স্ত্রী চুরি করে ব্যবহার করেন এবং প্রথম স্ত্রী যখন হাসপাতালে গিয়ে ভর্তি হন এবং ডাক্তার প্রথম স্ত্রীকে বলেন, আপনার ডায়বেটিস আছে , বাচ্চা জন্ম দিয়েছেন তখন তিনি আশ্চর্য্য হয়ে যান এবং বলেন আমি কোন বাচ্চা জন্ম দেয়নি।

সিঙ্গাস আরো বলেন, ২০১৪ সালে খালেদের প্রথম স্ত্রীর উইনথ্রপ হাসপাতালের জরুরী রুমে গিয়েছিলেন। হাসপাতালের ডাক্তার তার মেডিকেল ইতিহাসে তালিকাভুক্ত ঔষধ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করেন, কিন্তু তিনি বলেন যে তিনি ওষুধগুলি নির্দিষ্ট করেননি।
এছাড়াও মেডিকেল রেকর্ড অনুযায়ী,  সম্প্রতি গ্লেন কোভের নর্থ শোর লং আইল্যান্ড জুইস হাসপাতালে প্রথম স্ত্রী নতুন করে বাচ্চা জন্ম  দেওয়া হয়েছে বলে প্রেসক্রিপশনে উল্লেখ করা হয়।

এছাড়া আজিজের প্রথম স্ত্রীর স্বাস্থসেবা দ্বিতীয় স্ত্রী বিভিন্ন সময়ে ব্যবহার করেছেন যার সুস্পষ্ট প্রমাণ গ্লেন হেড ফার্মেসির সিকিউরিটি ফুটেজে নিশ্চিত হওয়া যায় ।নর্থ শোর লং আইল্যান্ড জুইস হাসপাতালের মেডিকেল রেকর্ডে প্রমাণ পাওয়া যায় যে প্রথম স্ত্রীর শিশুর পরিচয় অন্য একজনের নামে মেডিকেল ইন্সুরেন্স ব্যবহার করা হয়েছে। আর মেডিকেল বিল এবং জাল তথ্য  চুরির অভিযোগে বাংলাদেশি আজিজকে অভিযুক্ত করা হয় ।এদিকে সূত্র বলছে বাংলাদেশি আজিজের প্রথম ও দ্বিতীয় স্ত্রী দুজনই বৈধ স্ত্রী দাবি করছেন তবুও এটা নিয়ে অনেক  অস্পষ্টতা আছে।

“নাসাউ কাউন্টির পুলিশ কমিশনার প্যাট্রিক রেইডার বলেন,” নাসাউ কাউন্টির পুলিশ বিভাগ এবং নাসাউ কাউন্টির জেলা অ্যাটর্নি অফিস কর্তৃক গভীর তদন্তে অপরাধমূলক কার্যক্রম কমিয়ে আনার একটি সহযোগী প্রচেষ্টা এবং একটি দৃষ্টান্তমূলক উদাহরণ।”এইভাবে, আমরা আমাদের বাসিন্দাদের এবং তাদের বীমা ক্যারিয়ারগুলি জালিয়াতিবিহীন বীমা দাবি থেকে রক্ষা করে যা প্রতি বছর আমাদের সম্প্রদায়ের বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করে।”

সিঙ্গাস বলেন ,মে মাসে নাসাউ কাউন্টির জেলা অ্যাটর্নি কার্যালয়ের কাছে অপরাধটি রিপোর্ট করা হয়।
আজিজ আদালতে আগামী ১৭ই  জানুয়ারি ফিরে আসেন। যদি দোষী সাব্যস্ত হন, আজিজ ও খালেদের সাত বছর কারাদন্ড হবে।

এই সংবাদটি 1,127 বার পড়া হয়েছে