বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসে ২০১৭ ০৬:১২ ঘণ্টা

সিলেটসহ সারা দেশে বিক্ষোভ শুক্রবার

Share Button

সিলেটসহ সারা দেশে বিক্ষোভ শুক্রবার

 

 সিলেট রিপোর্ট:  মুসলমানদের পবিত্র শহর আল কুদসকে (জেরুসালেম) ইহুদিবাদী ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার তীব্র  নিন্দা ও প্রতিবাদ শুরু হয়েছে বিশ্বব্যাপী। বিশ্বের বিভিন্ন মুসলিম দেশের ন্যায় বাংলাদেশের ইসলামী জনতার পক্ষ থেকে ও প্রতিবাদ কর্মসুচি ঘোষণা করা হয়েছে। শুক্রবার বাদ জুম্মা সিলেট সহ দেশ ব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসুচি দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। বাদ জুম্মা জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররম থেকে এবং সিলেটের বন্দরবাজার জামে মসজিদ থেকে হেফাজতের বিক্ষোভ মিছিল বের হবে বলে হেফাজত সুত্রে জানাগেছে।
এদিকে,
হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী ও মহাসচিব আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী এক যুক্তবিবৃতিতে বলেন,পবিত্র মসজিদুল আকসাকে ঘিরে গড়ে ওঠা জেরুসালেম নগরীকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসেডিন্ট অন্যায়ভাবে ইহুদীবাদী ইসরাঈলের রাজধানী ঘোষণা করে মুসলিম উম্মাহর বিরুদ্ধে যুদ্ধ লাগিয়ে দিয়েছে। তার সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বিশ্ব মুসলিম নেতৃবৃন্দ ও জনসাধারণকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তারা বলেন, জেরুসালেম শুধু ফিলিস্তিনী মুসলমানদের নয় গোটা মুসলিম উম্মাহর। ইসলামের প্রথম কেবলা বায়তুল মুকাদ্দাসের এই ভূমি মুসলমানদের রক্তের চাইতেও পবিত্র। এটা কখনো কোন ইহুদী গোষ্ঠীর হতে পারে না।হেফাজত নেতৃদ্বয় আরো বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান প্রেসিডেন্ট একজন মস্তিষ্কবিকৃত লোক। তার একের পর এক নানা বিতর্কিত ও আগ্রাসনমূলক সিদ্ধান্তে বিশ্বশান্তি মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে এবং যুক্তরাষ্ট্রের ভাবমূর্তিকে বিশ্ববাসীর কাছে প্রশ্নবিদ্ধ করছে।
তারা বলেন, বিশ্ববাসীর কর্তব্য হলো শান্তি নিরাপত্তার স্বার্থে এই উগ্রবাদী প্রেসিডেন্টের লাগাম টেনে ধরতে সোচ্চার প্রতিবাদে শামিল হওয়া। কারণ, যুক্তরাষ্ট্রের কূট রাজনীতি ও আগ্রাসী সমরনীতির কারণে গোটা মধ্যপ্রাচ্যসহ এশিয়া ও আফ্রিকার বহুদেশে চরম অস্থিতিশীলতা ও সংঘাতময় পরিস্থিতি বিরজ করছে।
হেফাজত নেতৃদ্বয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কর্তৃক  অধিকৃত ফিলিস্তিনের জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে একতরফাভাবে স্বীকৃতি দেয়ার প্রতিবাদে আগামীকাল ৮ ডিসেম্বর  শুক্রবার বাদজুমা হেফাজতে ইসলামের উদ্যোগে সারাদেশে বিক্ষোভ মিছিলে শামিল হওয়ার জন্য হেফাজত নেতা কর্মী,  ওলামায়ে কেরাম ও জনসাধারণের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত,
সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসকে তেল আবিব থেকে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস সরিয়ে জেরুজালেমের আল কুদস শহরে নেয়ার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন। ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্টের দপ্তর থেকে এ কথা জানানো হয়েছে। মাহমুদ আব্বাসের কার্যালয় থেকে দেয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মঙ্গলবার ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্টকে ফোন করেন এবং তেল আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস সরিয়ে আল-কুদস শহরে নেয়ার কথা জানান। তবে শিগগিরি তিনি দূতাবাস সরাতে চান নাকি দেরি করবেন তা ওই বিবৃতিতে বলা হয়নি।
ফোনালাপে মাহমুদ আব্বাস এ ধরনের পদক্ষেপের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, এর পরিণতি হবে মারাত্মক এবং কথিত শান্তি আলোচনা মধ্যপ্রাচ্যের নিরাপত্তা, স্থিতিশীলতা ও গোটা বিশ্বের নিরাপত্তার ওপর প্রভাব ফেলবে। মাহমুদ আব্বাস আরো বলেছেন, পূর্ব বায়তুল মুকাদ্দাসকে রাজধানী না করে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র ক্পনাও করা যায় না। মার্কিন এ অগ্রহণযোগ্য উদ্যোগ ঠেকাতে ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট বিশ্ব নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন।

এদিকে,ফিলিস্তিনের জেরুজালেম শহরকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া তুরস্কের রাজধানী আংকারা ও ইস্তাম্বুলে শত শত মানুষ বিক্ষোভ করেছেন। এ সময় তারা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এ ঘোষণার তীব্র নিন্দা ও সমালোচনা করেন।  দুই শহরের বিক্ষোভই শান্তিপূর্ণ ছিল তবে বিক্ষুব্ধ জনতা কোথাও কোথাও কিছু কাগজে আগুন ধরিয়ে প্রতিবাদ করেন এবং ইসরায়েলের পতাকা পোড়ান। বিক্ষোভকারীদের অনেকের হাতে তুরস্কের পতাকা ও নানা রকম ফেস্টুন দেখা যায় যাতে লেখা ছিল ‘ফিলিস্তিন মুক্ত করুন’।বিক্ষোভকারীরা তুরস্কে ইসরায়েলি কনস্যুলেট ভবনের দেয়ালেও ফিলিস্তিন মুক্ত করার দাবিতে নানা স্লোগান লিখেছেন।এছাড়া তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মার্কিন ঘোষণার নিন্দা ও সমালোচনা করে দায়িত্বজ্ঞানহীন এ সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের আহ্বান জানিয়েছে।বাংলাদেশ সময় গতকাল বুধবার রাত সোয়া ১২টার দিকে জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। জাতিসংঘ, আরব ও মুসলমান-অধ্যুষিত দেশ, এমনকি মার্কিন মিত্রদের আপত্তিকে পাত্তা না দিয়ে তিনি নিজের একগুঁয়েমি সিদ্ধান্তেই অনড় থাকেন। একই সঙ্গে ইসরায়েলের তেলআবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে সরিয়ে নেয়ার কথা জানান ট্রাম্প।ট্রাম্পের এই ঘোষণার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস দেশটিতে নতুন করে গণঅভ্যুত্থানের ডাক দিয়েছে।
ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকা থেকে এ ঘোষণা দিয়ে হামাস নেতা ইসমাইল হানিয়া বলেছেন, ট্রাম্পের এই স্বীকৃতি ইসরায়েল-ফিলিস্তিনের শান্তি প্রক্রিয়াকে ‘হত্যা’ করেছে।

 

এই সংবাদটি 1,060 বার পড়া হয়েছে